• শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ৩০ কার্তিক ১৪২৬
ads
গান্ধীর ভাস্কর্য অপসারণ

মহাত্মা গান্ধীর ভাস্কর্য সরিয়ে ফেলা হচ্ছে

ছবি : ইন্টারনেট

আফ্রিকা

গান্ধীর ভাস্কর্য অপসারণ

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮

‘বর্ণবাদী’ বলে ঘানার রাজধানী আক্রার একটি বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর থেকে মহাত্মা গান্ধীর ভাস্কর্য সরিয়ে ফেলা হয়েছে। ২০১৬ সালের জুনে ভারতের সাবেক প্রেসিডেন্ট প্রণব মুখার্জী ইউনিভার্সিটি অব ঘানা’র ক্যাম্পাসে মহাত্মা গান্ধীর ওই ভাস্কর্যটি উন্মোচন করেছিলেন। তিনি ঘানা সরকারকে ভাস্কর্যটি উপহার দিয়েছিলেন। তার পরপরই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ভাস্কর্যটি সরিয়ে নিতে অনলাইনে পিটিশন দায়ের করেন।

ভারতের জাতির পিতা মাহাত্মা গান্ধী তরুণ বয়সে দীর্ঘদিন দক্ষিণ আফ্রিকায় ছিলেন। ওই সময় কৃষ্ণাঙ্গ আফ্রিকানদের নিয়ে তার মন্তব্য বিতর্কের জন্ম দিয়েছিল। ওই সময়ে তিনি একটি চিঠিতে কৃষ্ণাঙ্গ আফ্রিকানদের ‘কাফির’ বলে বর্ণনা করেন। বর্ণবাদী  শ্বেতাঙ্গরা কৃষ্ণাঙ্গ আফ্রিকানদের তাচ্ছিল্য করে ‘কাফির’ বলে সম্বোধন করত। এ ছাড়া তিনি ভারতীয়দের কৃষ্ণাঙ্গদের তুলনায় উঁচু স্তরের বলেও বর্ণনা করেছিলেন।

ইউনিভার্সিটি অব ঘানা’র আইন বিভাগের শিক্ষার্থী নানা আদম আদেই বিবিসিকে বলেন, তার ভাস্কর্য আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকার অর্থ তিনি যেসব বিষয়ের পক্ষে ছিলেন আমরাও সেগুলো সমর্থন করি। যদি তিনি কৃষ্ণাঙ্গদের নিয়ে ওইসব কথা বলে থাকেন, তবে আমার মনে হয় তার ভাস্কর্য আমাদের ক্যাম্পাসে রাখা উচিত হবে না।

বিবিসি জানায়, ওই পিটিশনে মহাত্মা গান্ধীকে ‘বর্ণবাদী’ হিসেবে উল্লেখ করে আফ্রিকার দেশনায়কদের অগ্রাধিকার দেওয়া উচিত বলে দাবি করা হয়। যার পরিপ্রেক্ষিতে ঘানা সরকার ভাস্কর্যটি অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। গত বুধবার গান্ধীর ভাস্কর্যটি সরিয়ে নেওয়া হয় বলে বিবিসিকে জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads