• বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৫
ads
পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে যুক্ত চার আনলোডার মেশিন

কলাপাড়ায় পায়রা ১৩২০ মেগাওয়াট তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে আনা চারটি গ্রাব শিপ আনলোডার

ছবি : বাংলাদেশের খবর

আমদানি-রফতানি

পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে যুক্ত চার আনলোডার মেশিন

  • কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় পায়রা ১ হাজার ৩২০ মেগাওয়াট তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে আমদানিকৃত কয়লা, লাইমস্টোন খালাসের জন্য চারটি গ্রাব শিপ আনলোডার (পণ্য নামানোর যন্ত্র) আনা হয়েছে।

বন্দরের শুল্কায়নসহ অন্যান্য কাজ শেষ করে গত মঙ্গলবার পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রধান জেটিতে সরাসরি ভিড়েছে কয়লা, লাইমস্টোনসহ পণ্য খালাশের যন্ত্র ‘গ্র্যাব শিপ আনলোডার’ বহনকারী জাহাজ শিন চেন ওশান।

২৫ হাজার টন বহন ক্ষমতা সম্পন্ন ১৫৪ মিটার দীর্ঘ ৪০ মিটার প্রস্থ জাহাজটি পায়রা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জেটিতে নোঙ্গর করে। এর আগে গত রোববার চায়না থেকে মেশিনগুলো জাহাজে করে পায়রা সমুদ্র বন্দরে এসে পৌঁছে।

চারটি গ্রাব শিপ আনলোডারের মাধ্যমে আনলোড করে কনভেয়ার বেল্টের মাধ্যমে বিদ্যুৎ কেন্দ্রে স্থাপিত কয়লা মজুদ রাখার ডোমে পৌঁছবে। ৩২ মিটার বুম দীর্ঘ এবং ৪৮ মিটার উচ্চতার একেকটি গ্র্যাব শিপ প্রত্যেকটির ঘণ্টায় ৮০০ টন, ৪টি মিলে ঘণ্টায় ৩ হাজার ২০০ টন কয়লা খালাস হবে। প্রতি বছর এ জেটি দিয়ে প্রায় চার মিলিয়ন টন কয়লা খালাস করার সক্ষমতা সম্পন্ন এ গ্র্যাব শিপ আনলোডার স্থাপনের জন্য সরাসরি চীন থেকে জাহাজটি সাগরপথে বাংলাদেশে এসে পৌঁছে বলে বিসিপিসিএল-এর সহকারী প্রকৌশলী মো. পিঞ্জুর রহমান জানান।

পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রশাসনিক কর্মকর্তা শাহমনি জিকো জানান, চীন থেকে গ্রাব শিপ আনলোডার বহনকারী জাহাজ শিনচেন ওশান পৌঁছতে ২০ দিন লেগেছে।

পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষের ডক মাস্টার ক্যাপ্টেন এসএম শরীফুর রহমান ও পাইলট ক্যাপ্টেন আসীফ আহমেদ গ্র্যাব শিপ আনলোডার বহনকারী জাহাজটি সংশ্লিষ্টদের বুঝিয়ে দেন।

বাংলাদেশ-চায়না পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানির (বিসিপিসিএল) নির্বাহী প্রকৌশলী (পূর্ত) মো. রেজওয়ান ইকবাল খান জানান, চায়নার ডালিয়ান হুয়ারুই হেভি ইন্ডাস্ট্রি গ্রুপ লিমিটেড এ আনলোডার প্রস্তুতকারক।

জেটিতে গ্রাব আনলোডার বহনকারী জাহাজ নোঙরকালে চায়না ন্যাশনাল এনার্জি ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেডের (সিইসিসি) প্রকল্প পরিচালক হ্যান লি গুয়া, বাংলাদেশ-চায়না পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানির (বিসিপিসিএল) নির্বাহী প্রকৌশলী ওয়াং ঝিসহ বিদ্যুৎ প্লান্টের কর্মরত উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

গ্র্যাব শিপ আনলোডার মেশিনে কয়লা, লাইমস্টোন আনলোডারের মাধ্যমে আনলোড করে কনভেয়ার বেল্টের মাধ্যমে বিদ্যুৎ কেন্দ্রে স্থাপিত কয়লা জমা রাখার ডোমে পৌঁছবে। কলাপাড়ার ধানখালীতে নির্মাণাধীন ১৩২০ মেগাওয়াট পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি এ বছরের শেষের দিকে উৎপাদনে যাওয়ার কথা রয়েছে। এরই মধ্যে বিদ্যুৎ কেন্দ্রের শতকরা ৬৩ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে বলে তারা জানান।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads