• বৃহস্পতিবার, ১৬ জুলাই ২০২০, ১ শ্রাবণ ১৪২৭
ads
বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে ৬২ ট্রাক ভারতীয় পাটবীজ আমদানি

প্রতিনিধির পাঠানো ছবি

আমদানি-রফতানি

বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে ৬২ ট্রাক ভারতীয় পাটবীজ আমদানি

  • লালমনিরহাট প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ০৫ এপ্রিল ২০২০

সীমান্তের ওপারে আটকে থাকা ৬২টি পাটবীজ বোঝাই ট্রাক লালনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলা বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি করা হয়েছে। এতে ১ হাজার ২০০টনের মতো পাটবীজ রয়েছে। গতকাল রোববার সরকারি স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিশেষ ব্যবস্থায় এ ট্রাকগুলো বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে।

বুড়িমারী স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের উপপরিচালক (ডিডি) মাহফুজুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, নোভেল করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি বিবেচনা করে সম্পূর্ণ স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবং সামাজিক দূরুত্ব বজায় রেখে পণ্য খালাস করা হয়েছে।

দেশে নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে গত ২২ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে সব ধরনের পণ্য আমদানি-রফতানি কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করে লালমনিরহাট জেলা প্রশাসন। একারণে কৃষিজ পণ্যসহ পাটবীজ বোঝাই ট্রাকগুলো ভারতের কুচবিহার জেলার চ্যাংড়াবান্ধা স্থলবন্দর এলাকায় আটকে পড়ে।

বুড়িমারী স্থলবন্দর কাস্টমস সূত্র জানায়, কৃষি মন্ত্রণালয়ের এক আদেশে গতকাল রোববার বুড়িমারী স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ, বিজিবি, উদ্ভিদ সংগনিরোধ কর্তৃপক্ষ, স্বাস্থ্য বিভাগ ও আমদানিকারক ব্যবসায়ীরাসহ ভারতীয় পক্ষদের সহযোগিতায় ৬২ ট্রাক ভারতীয় পাটবীজের গাড়ি গ্রহণ করা হয়। এর ফলে পাট মৌসুমে চাষীদের বীজ সংকট সমাধান হবে।

কাস্টমস সূত্রে আরো জানা গেছে, পাবনার হাজীবীজ ভান্ডার, নিউ হাজী বীজ ভান্ডার, নীলফামারীর বিশ্বাস অ্যান্ড ব্রাদার্স, রায় সিডকোম্পানি, চাঁপাইনবাবগঞ্জের আঁখি সিড ভান্ডার, মীম বীজ ভান্ডার, ঢাকার জামাল সিড কোম্পানি, জেএফ অ্যাগ্রো লিমিটেড, কোয়ালিটি সিড কোং, রাসেল সিড কোং, বিকাশ এন্টারপ্রাইজসহ বিভিন্ন আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান এসব বীজ আমদানি করেছে।

বুড়িমারী স্থলবন্দর সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট ব্যবসায়ী তাহাজুল ইসলাম মিঠু বলেন, এসব বীজ দ্রুত সরবরাহ করা হবে। যেন কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে কেউ পাটবীজের বাজার অস্থিতিশীল করতে নাপারে। এ বিষয়ে সরকারের পাশাপাশি ব্যবসায়ীদেরও সজাগ থাকতে হবে।

বুড়িমারী স্থলবন্দর কাস্টমসের সহকারী কমিশনার (এসি) সোমেন কুমার চাকমা বলেন, স্থলবন্দরের ওপারে পাটবীজ নিয়ে কিছু গাড়ি আটকে ছিল। তবে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের এক আদেশ পেয়ে সেগুলো গ্রহণ করা হয়েছে। যেহেতু পাটবীজ বপনের সময় হয়েছে, সেহেতু কৃষকদের স্বার্থেই পাটবীজগুলো দ্রুত গ্রহণ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads