• বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯, ৬ আষাঢ় ১৪২৫
ads
ঈদের ছুটিতে মহাসড়কে গেল নয় প্রাণ, আহত ৬৫

ছবি : বাংলাদেশের খবর

দুর্ঘটনা

ঈদের ছুটিতে মহাসড়কে গেল নয় প্রাণ, আহত ৬৫

  • সোহেল রানা, সিরাজগঞ্জ
  • প্রকাশিত ০৮ জুন ২০১৯

চালকের গাফিলতি ও বেপোরোয়া গতির কারণে ঈদের ছুটিতে সিরাজগঞ্জের মহাসড়কে ঝরে পড়েছে তরতাজা নয় প্রাণ। স্বজনদের সাথে ঈদ আনন্দ কাটাতে যাবার সময় সিরাজগঞ্জের মহাসড়কের কয়েকটি পয়েন্টে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নয়জন প্রাণ হারায়। দুর্ঘটনায় প্রায় ৬৫জন গুরুত্বর আহত হয়েছে হতাহতদের পরিবারেগুলোতে ঈদ আনন্দের পরিবর্তে শোকের ছায়া নেমে আসে।

নিহতরা হলো- গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার কিশমত হলদীয়া গ্রামের জয়নাল আবেদীনের ছেলে ফজলুল হক (৪০), একই উপজেলার তালুক সর্বানন্দা গ্রামের এলাহী বক্সের ছেলে শাহজাহান মিয়া (৩৫), কুটিপাড়া গ্রামের বুলুমিয়ার ছেলে হামিদুল ইসলাম (৪০), রংপুরের মির্জাপুরের মহুরীপাড়া মহল্লার আব্দুর রহিমের ছেলে আতাউর রহমান (৩২), নেত্রকোনা জেলার বাসিন্দা ফারুক (৪০), চন্দন (৩৮), ফরিদপুর জেলার বোয়ালমারি উপজেলার কমল ইশ্বরদী গ্রামের আব্দুল মালেকের ছেলে ও অগ্রণী ব্যাংকের ম্যনেজার এমারুল হোসেন (৪২) এবং প্রাইভেটকার চালক রুবেল (৪৫) ও কুমিল্লা লাঙ্গলকোর্ট থানার মহুয়া গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে রবিউল ইসলাম (২৫)।

পুলিশ জানায়, ঈদের আগের দিন ৪জুন বৃহস্পতিবার ভোরে ঢাকা-বগুড়া রায়গঞ্জ উপজেলা দথিয়া এলাকায় ঢাকা থেকে গাইবান্ধাগামী জারিফ পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস দ্রুতগতির কারণে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই চারজন মারা যায়। এতে আহত হয়েছেন অন্তত ৩০ জন। অপরদিকে একই দিন সিরাজগঞ্জের মুলিবাড়িতে ঢাকা থেকে সিরাজগঞ্জগামী আঁখি পরিবহনের যাত্রীবাহী একটি বাসের সঙ্গে মুলিবাড়ী এলাকায় বিপরীত দিক থেকে আসা লালমণি এক্সপ্রেসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ সময় দু’টি বাসই নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে যায়। এ দুর্ঘটনায় অন্তত ২০ জন যাত্রী আহত হয়েছেন।

ঈদের দিন বুধবার দুপুর আড়াইটার দিকে ৫ জুন মহাসড়কের রায়গঞ্জ উপজেলার ভুইয়াগাঁতী পল্লী বিদ্যুৎ এলাকায় একটি মুরগীবাহী মিনি ট্রাকের সাথে একটি বড় ট্রাকের মুখোমুখী সংঘর্ষে মুরগীর ট্রাকের চালক ফারুক ও হেলপার চন্দন আহত হয়। উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পর সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুজনই মারা যান। একইদিন সকালে তবারিপাড়া এলাকায় ঢাকাগামী ডিপজল পরিবহনের একটি বাসের সাথে বিপরীতমুখী একটি ট্রাকের মুখোমুখী সংঘর্ষ হয়। এতে বাসের হেলপারসহ ৮ জন আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পর বাসের হেলপার রবিউল মারা যায়। এছাড়াও মহাসড়কের ষোলমাইল এলাকায় ঢাকাগামী আদর পরিবহনের একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে গিয়ে ৭ যাত্রী আহত হয়।

ঈদের পরদিন ৬জুন বৃহস্পতিবার সকালে হাটিকুমরুল- বনপাড়া মহাসড়কের সলঙ্গা থানার হরিনচড়া বাজার দ্রুগামী একটি প্রাইভেটকার চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলায় কারটি খাদে পড়ে যায়। এতে অগ্রনী ব্যাংক ট্রেনিং সেন্টার ঢাকার ধানমন্ডি শাখার ম্যানেজার ও চালক নিহত হয়।

হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল কাদের জিলানী জানান, চালকদেও গাফিলতির কারইে সড়ক দুর্ঘটনাগুলো ঘটেছে। দুর্ঘটনায় নিহতের লাশ উদ্ধার করে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
আহতদের বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads