• বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭
ads
২৬ ঘণ্টা পর উদ্ধার বুড়িগঙ্গায় ডুবে যাওয়া লঞ্চ

ফাইল ছবি

দুর্ঘটনা

২৬ ঘণ্টা পর উদ্ধার বুড়িগঙ্গায় ডুবে যাওয়া লঞ্চ

  • অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ৩০ জুন ২০২০

বুড়িগঙ্গা নদীতে ডুবে যাওয়া লঞ্চটি ২৬ ঘণ্টা পর উদ্ধার করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে লঞ্চটিকে এয়ার লিফ্টিং ব্যাগ দিয় ভাসিয়ে তোলা হয়।

সকাল ৮টা থেকে দ্বিতীয় দিনের মতো উদ্ধার অভিযানে নামে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল।

এর আগে, গতকাল সোমবার সকালে ‘এমভি ময়ূর-২’ লঞ্চের ধাক্কায় মুহূর্তে ডুবে যায় যাত্রীবাহী ছোট লঞ্চ ‘এমএল মর্নিং বার্ড’। এতে পানিতে ডুবে প্রাণ হারান ৩২ জন যাত্রী।

এছাড়া লঞ্চটি ডুবে যাওয়ার প্রায় ১৩ ঘণ্টা পর সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে একজনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়।

নিহতদের মধ্যে ৩০ জনের নাম পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন, সত্যরঞ্জন বনিক (৬৫), মিজানুর রহমান (৩২), শহিদুল (৬১), সুফিয়া বেগম (৫০), মনিরুজ্জামান (৪২), সুবর্ণা আক্তার (২৮), মুক্তা (১২), গোলাম হোসেন ভুইয়া (৫০), আফজাল শেখ (৪৮), বিউটি (৩৮), ছানা (৩৫), আমির হোসেন (৫৫), মো. মহিম (১৭), শাহাদাৎ (৪৪), শামীম ব্যাপারী (৪৭), মিল্লাত (৩৫), আবু তাহের (৫৮), দিদার হোসেন (৪৫), হাফেজা খাতুন (৩৮), সুমন তালুকদার (৩৫), আয়শা বেগম (৩৫), হাসিনা রহমান (৪০), আলম বেপারী (৩৮), মোসা. মারুফা (২৮), শহিদুল হোসেন (৪০), তালহা (২), ইসমাইল শরীফ (৩৫), সাইফুল ইলাম (৪২), তামিম ও সুমনা আক্তার। বাকি দুজনের পরিচয় এখনও জানা যায়নি।

এ ঘটনায় ৭ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়। এছাড়া, মৃত প্রত্যেকের পরিবারকে দেড় লাখ টাকা ও তাৎক্ষণিক ভাবে দাফন করা জন্য ১০ হাজার টাকা দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী। এদিকে মঙ্গলবার ভোর রাতে সাত জনকে আসামি করে মামলা করেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads