• বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭
ads
বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবি : উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত, আরও একজনের মরদেহ উদ্ধার

ফাইল ছবি

দুর্ঘটনা

বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবি : উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত, আরও একজনের মরদেহ উদ্ধার

  • অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ৩০ জুন ২০২০

বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবির ঘটনায় আরও একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে গত দুইদিনে ৩৪ জনের লাশ উদ্ধার করা হলো।

এদিকে মঙ্গলবার দুপুরে উদ্ধার অভিযানের সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে। পরে বিকেল সোয়া ৫ টার দিকে অজ্ঞাত আরও একজন পুরুষের ভাসমান লাশ উদ্ধার করা হয়। এ নিয়ে উদ্ধার হওয়া লাশের সংখ্যা দাঁড়াল ৩৪ জনে।

এর আগে দুপুর পৌনে ১টার দিকে ডুবে যাওয়া লঞ্চটির ইঞ্জিন রুম থেকে একজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

মঙ্গলবার দুপুরে এমভি মর্নিং বার্ড উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা করেন বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমোডর গোলাম সাদেক। এ সময় ফায়ার সার্ভিস, কোস্টগার্ড, র‌্যাব ও নৌপুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স অধিদফতরের মিডিয়া সেলের কর্মকর্তা মো. এরশাদ হোসেন। তিনি বলেন, আনুষ্ঠানিক অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা হলেও নিখোঁজ ব্যক্তিদের উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিসের একটি ডুবুরি দল সার্বক্ষণিক অবস্থান করে উদ্ধার প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখবে।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স বাহিনীর সহকারি পরিচালক মো. সালেহ উদ্দিন জানান রাজধানীর শ্যামবাজার এলাকা সংলগ্ন বুড়িগঙ্গা নদীতে ডুবে যাওয়া লঞ্চটি উদ্ধারে দ্বিতীয় দিনের মতো আজ মঙ্গলবার সকাল ১০ টার দিকে উদ্ধার কাজ শুরু করা হয়। দুপুর আড়াইটার দিকে দিকে অভিযান সমাপ্ত ঘোষনা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ডুবে যাওয়া লঞ্চটি নদীর পাড়ে টেনে নিয়ে রাখা হয়েছে। সেখান থেকে পরবর্তীকালে ডকইয়ার্ডে টেনে তোলা হবে। এ ছাড়া নিখোঁজ ব্যক্তির আত্মীয়-স্বজনরা আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

এ ঘটনায় মো. রিফাত (২৪) ও সুজন বেপারী (৪৩) নামে দুই যুবককে জীবিত অবস্থায় উদ্বার করেছে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। তাদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস সদরদপ্তরের ডিউটি অফিসার এরশাদ হোসেন জানান, আজ দুপুর ১২টা ৪৮ মিনিটে ঘটনাস্থল থেকে একজনের এবং বিকেল সোয়া ৫টার দিকে আরও একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে গত দুই দিনে বুড়িগঙ্গা নদীতে লঞ্চডুবির ঘটনায় ৩ শিশু, ৮ নারী ও ২৩ পুরুষসহ মোট ৩৪ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এছাড়া পানির নিচে ১৩ ঘণ্টা আটকে থাকা অবস্থায় সুমন বেপারীকে এবং এরআগে মো: রিফাতকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে।

সোমবার সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে “মুন্সীগঞ্জের কাঠপট্টি এলাকা থেকে ৬০-৭০ জন যাত্রী নিয়ে মর্নিং বার্ড নামের লঞ্চটি ঢাকায় ফিরছিল। লঞ্চটি ফরাশগঞ্জ ঘাটে এসে পৌঁছালে পিছন দিক থেকে ঢাকা-চাঁদপুর রুটের ময়ূর-২ নামে অপর একটি লঞ্চ ধাক্কা দিলে মর্নিং বার্ড লঞ্চটি ডুবে যায়।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads