• বুধবার, ৩ জুন ২০২০, ২০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
ads
ফুলের আধুনিক প্রক্রিয়াজাতকরণ কেন্দ্র হচ্ছে গদখালীতে

ফাইল ছবি

কৃষি অর্থনীতি

ফুলের আধুনিক প্রক্রিয়াজাতকরণ কেন্দ্র হচ্ছে গদখালীতে

  • প্রকাশিত ১৮ ডিসেম্বর ২০১৯

ফুলের রাজধানী হিসেবে পরিচিত যশোরের গদখালীতে নির্মাণ করা হচ্ছে দেশের একমাত্র ফুল প্রক্রিয়াজাতকরণ কেন্দ্র ও আধুনিক বাজার। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ও ইউএসএআইডির যৌথ উদ্যোগে গদখালীর পানিসারায় তৈরি করা হচ্ছে প্রায় ১৯ কোটি টাকা ব্যয়ে এ আধুনিক ফুল বাজার ও কুলিং চেম্বার। দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা পূরণ হওয়ায় এলাকার চাষিরা  ফুল চাষে নতুন সম্ভাবনা দেখছেন। তবে নির্মাণকাজের অগ্রগতি নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন ফুলচাষিরা।

১৯৮৩ সাল থেকে যশোরের ঝিকরগাছার গদখালীতে দেশে প্রথম শুরু হয় বাণিজ্যিকভাবে ফুল চাষ। এরপর দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ফুল চাষ সম্প্রসারণ হলেও দেশের মোট চাহিদার ৭০ শতাংশ সরবরাহ হয় এই গদখালী থেকে। গদখালী ও তার আশপাশ এলাকার প্রায় লক্ষাধিক মানুষ বর্তমান এ ফুল চাষের সঙ্গে যুক্ত। নানা জাতের ফুল বিক্রি করে তারা কোটি কোটি টাকা আয় করে থাকেন। তবে এ অঞ্চলে ফুল সংরক্ষণের জন্য কোনো বিশেষায়িত কোল্ডস্টোরেজ ও আধুনিক মার্কেট না থাকায় ফুল উৎপাদনের ভরা মৌসুমে কৃষককে নানা সমস্যায় পড়তে হয়। যে কারণে দীর্ঘদিন ধরে তাদের দাবি ছিল এ অঞ্চলে একটি কোল্ডস্টোরেজ ও ফুলের মার্কেট তৈরির জন্য। অবশেষে কৃষকের সেই দাবি পূরণে এগিয়ে এসেছে এলজিইডি ও আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থা ইউএসএ আইডি। তাদের যৌথ উদ্যোগে গদখালীর পানিসারায় গড়ে তোলা হচ্ছে আধুনিক ফুল প্রক্রিয়াজাতকরণ কেন্দ্র ও আধুনিক মার্কেট। নির্মাণাধীন এ আধুনিক ফুল প্রক্রিয়াজাতকরণ কেন্দ্র ও আধুনিক মার্কেটে ফুল চাষের সম্প্রসারণে নানা আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করা হবে। এখানে বসেই কৃষকরা তাদের ফুল প্যাকেজিং, গ্রেডিং করবে। পরে সেগুলো আধুনিক কুলিং চেম্বারে রাখা হবে। পরে সেগুলো যাচাই-বাচাই করে নির্দিষ্ট দামে বিক্রি করা হবে। পাশাপাশি থাকবে কৃষকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থাও।

তবে ফুল চাষিরা জানান, আধুনিক ফুল প্রক্রিয়াজাতকরণ এ কেন্দ্রটি নির্মাণে কাজের ধীরগতি তাদেরকে চিন্তায় ফেলেছে। পানিসারার ফুল চাষি ইসমাইল হোসেন বলেন, গদখালীর ফুল চাষকে বাণিজ্যিকীকরণের লক্ষ্যে আমরা দীর্ঘদিন ধরে এ অঞ্চলে একটি বিশেষায়িত কোল্ডস্টোরেজ নির্মাণের দাবি জানিয়ে আসছি। কিন্তু এটি দীর্ঘদিন ধরে তা বাস্তবায়ন হয়নি। অবশেষে ২০১৫ সালে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল ও ইউএসএ আইডির অর্থায়নে পানিসারায় ফুল প্রক্রিয়াজাতকরণ ও আধুনিক ফুল বাজার নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও সেটি পূর্ণাঙ্গভাবে এখনো নির্মাণ করা হয়নি।

ফুলচাষি শের আলী জানান, আমরা মনে করেছিলাম নতুন বছরের ফুল উৎপাদনের ভরা মৌসুমে এখান থেকে সুবিধা গ্রহণ করতে পারব। এখনো পর্যন্ত ভবন নির্মাণ সম্ভব হয়নি। তিনি কৃষকদের সুবিধার স্বার্থে এটি পূর্ণাঙ্গ রূপ দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। এ বিষয়ে বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার সোসাইটির সভাপতি আবদুর রহিম বলেন, গদখালীর ফুলচাষিদের দীর্ঘদিনের স্বপ্নপূরণ হতে চলেছে। আধুনিক এ ফুল প্রক্রিয়াজাতকরণ ও মার্কেট নির্মাণ হলে ফুল চাষের নতুন অধ্যায় রচনা হবে। পাল্টে যাবে এখানকার জীবনযাত্রা।

এ বিষয়ে এলজিইডি যশোরের নির্বাহী প্রকৌশলী মীর্জা ইফতেখার আলী বলেন, ২০১৫ সাল থেকে এ প্রকল্পটি শুরু হয়েছে। আগামী ২০২০ সালের মধ্যে সব কাজ শেষ হবে বলে আমরা আশা করছি। তিনি বলেন, ফুলের মার্কেটটি কেন্দ্র করে আশপাশের সড়ক যোগাযোগের উন্নয়নসহ নানা উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এটি কার্যকর হলে এ অঞ্চলের ফুলের অর্থনীতিতে নতুন মাত্রা যোগ হবে ।

শহিদ জয়, যশোর 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads