• বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৫
ads
কাঠের ব্যারেলে মহাসাগর পাড়ি

কাঠের ব্যারেলে মহাসাগর পাড়ি

ছবি : ইন্টারনেট

আজব খবর

কাঠের ব্যারেলে মহাসাগর পাড়ি

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ২৮ ডিসেম্বর ২০১৮

বার্ধক্যকে যে বয়সের ফ্রেমে বাঁধা যায় সেই কথাটি আবারো বিশ্ববাসীকে দেখিয়ে দিতে চান ৭১ বছর বয়সী ফরাসি নাগরিক জ্যাঁ-জ্যাক স্যাঁভো। এই বয়সে যখন তার নাতি-নাতনিদের সঙ্গে খুনসুটি করে কাটানোর কথা তখনই তিনি শুরু করলেন দুরন্ত এক অভিযান। উত্তাল-সংক্ষুব্ধ আটলান্টিক মহাসাগর পাড়ি দিতে নেমে পড়েছেন নোনা জলে। তবে তিনি কোনো জাহাজ বা যন্ত্রচালিত নৌযান নিয়ে এই অভিযানে নামেননি। কাঠের তৈরি একটি ব্যারেলে চড়েই মহাসাগরের নেমেছেন এই ফরাসি।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, স্থানীয় সময় গতকাল বৃহস্পতিবার ক্যানারি আইল্যান্ডের এল হিয়েরো বন্দর থেকে যাত্রা শুরু করেছেন স্যাঁভো। তার আশা আগামী তিন মাসের মধ্যে ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জে পৌঁছাতে পারবেন। যাত্রাপথে তিনি মার্কার ফেলতে ফেলতে যাবেন যার মাধ্যমে আটলান্টিকের স্রোতের প্রকৃতি সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে।

এই অভিযানের অগ্রগতি সম্পর্কে স্যাঁভোর ফেসবুক পাতায় বিস্তারিত জানানো হচ্ছে। ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপিকে গতকাল তিনি জানান, আবহাওয়া চমৎকার। এখন তিন ফুট উঁচু ঢেউ হচ্ছে এবং আমি ঘণ্টায় ২ থেকে ৩ কিলোমিটার বেগে এগিয়ে যাচ্ছি। তিনি আশা প্রকাশ করেন রোববার পর্যন্ত বাতাসের গতিবেগ অনুকূল থাকবে।

রিইনফোর্সড প্লাইউড দিয়ে তৈরি এই ব্যারেলের মধ্যে রয়েছে ঘুমানোর জন্য একটি বাঙ্ক বিছানা, রান্নার ব্যবস্থা ও মালামাল রাখার জায়গা। তার এই ব্যারেলটি তিন মিটার দীর্ঘ আর ২ দশমিক ১০ মিটার চওড়া। সব মিলিয়ে এই ব্যারেলের ভেতরে মোট জায়গা রয়েছে ছয় বর্গমিটার। ব্যারেলের চারদিকেই পুরু কাচের জানালা। মেঝেতেও রয়েছে একটি পোর্ট-হোল যা দিয়ে তিনি ভেসে বেড়ানো মাছ দেখতে পারবেন। এতে রয়েছে একটি সোলার প্যানেল। এর সৌরশক্তি দিয়ে জিপিএস ও যোগাযোগ ব্যবস্থা চালানো যাবে।

স্যাঁভো আশা প্রকাশ করেন, এই ব্যারেল যানটি নিয়ে অনায়াসেই ৪৫০০ কিলোমিটার পথ পেরিয়ে ক্যারিবিয়ান এলাকায় পৌঁছাতে পারবেন তিনি।

স্যাঁভো ফরাসি সেনাবাহিনীর একজন অবসরপ্রাপ্ত প্যারাট্রুপার। পার্ক রেঞ্জার ও পাইলট হিসেবেও কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে তার। নতুন এই অভিযান শুরুর পর তাকে অনেকেই ৭১ বছরের তরুণ হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads