• মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২ আশ্বিন ১৪২৫
ads
জীবন্ত ঘড়ি !

মানবঘড়ি অহিজল

প্রতিনিধির পাঠানো ছবি

আজব খবর

জীবন্ত ঘড়ি !

  • জামালপুর প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ২৬ জানুয়ারি ২০১৯

ঘড়ি কথা বলে, কাজ করে। ৭২ বছর যাবত দৈনন্দিন জীবনে সব কিছু চলছে নিয়ম তান্ত্রিকভাবে। ঠিক মতই সময় বলে দিচ্ছেন তিনি। এক মুহুর্তের জন্যও বন্ধ হয়নি। কারন এই জীবন্ত ঘড়ির কাটা অচঁল হয়ে গেলে কেউ তা সংস্কার করতে পারবেনা।

জামালপুর জেলার বকশীগঞ্জ উপজেলার জানকিপুর জিগাতলা গ্রামে ৭২ বছর বয়সের এক আশ্চর্য জীবন্ত ঘড়ির সন্ধ্যান মিলেছে।

জানা গেছে , জিগাতলা গ্রামের আব্দুর রহিম অহিজল (৭২) বিগত ৩০ বছর পূর্বে একটি বিড়ির ফ্যাক্টরিতে নিজের রিক্সা যোগে বিড়ি আনা নেওয়ার কাজে শ্রমিক হিসেবে চাকুরি করতেন। এক দিন সকালে দেরিতে কাজে আসায় মালিক পক্ষ তাকে বকাবকি করেন। মালিক পক্ষের জনৈক কর্মকর্তা কটাক্ষ করে বলেন চাকুরি করো ঘড়ি কিনতে পারো না আগামী কাল থেকে সময় মত অফিসে আসবে। না হলে চাকুরি চলে যাবে। সে দিনের ঘটনায় তাকে ভীষণ ভাবে পিড়া দেয়। সে মনে মনে ঘড়ি কেনার জন্য মনস্থির করেন। কিন্তু পড়া লেখা না জানায় আর ঘড়ি কেনা হয়নি। পরের দিন সকালে সে যথা সময়ে কাজে যায়। ঐ দিন থেকে অহিজল নিজেই ঘড়ির ভূমিকা পালন করে আসছে। যে কোন ব্যক্তি তাকে সময় জিজ্ঞেস করলেই তৎক্ষনাত তিনি সঠিক সময় বলে দিতে পারেন।

আব্দুর রহিম অহিজল জানান, আমি শিক্ষিত না থাকায় ঘড়ি কিনতে পারি নাই। কিন্তু আল্লাহ আমার অন্তরের ঘড়ি খুলে দিয়েছে। তাই বিগত ৩০ বছর যাবৎ ঘড়ি , সূর্য্য ও চাঁদ না দেখেই সঠিক সময় বলে দিতে পারি। এ কারনে অনেক সময় আমি বিব্রতবোধ করি। কারণ অনেক সময় অনেক মানুষ বিশেষ করে শিক্ষার্থীরা নিজের হাতে ঘড়ি থাকার পরেও যাছাই করার জন্য আমাকে সময় জিজ্ঞেস করে থাকেন। আবার অনেক লোক আমার কাছে সময় জেনে নিয়ে নিজের ঘড়ির সময় ঠিক করেন। রমজান মাসে ইফতারের সময় আমার কাছে সময় জানার জন্য অনেক লোক ভীড় করে থাকেন।

অহিজল আরো জানান, বিগত ৩০ বছরে আমি আমার আব্দুর রহিম অহিজল নামটিও হারিয়ে ফেলেছি। কারন এই ঘটনার পর থেকেই লোক জন আমাকে ঘড়ি বা জীবন্ত ঘড়ি বলে ডাকে। আগে খারাপ লাগতো এবং রাগ করতাম। কিন্তু এখন তা লাগেনা। তাই আমিও তাদের ডাকে সাড়া দেই।

পারিবারিক সূত্র জানায়, আব্দুর রহিম অহিজল ৪ সন্তানের জনক। স্ত্রী গৃহিনী। টানা ৩০ বছর যাবৎ তিনি রিক্সা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করছেন। বর্তমানে ৭২ বছর বয়সেও সকাল ১০ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত রিক্সা চালান। তাতে যা উপার্জণ হয় তাই দিয়ে তার সংসার চালান।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads