• সোমবার, ২৭ মে ২০১৯, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
ads
নেক ব্লাস্ট রোগে ধানে চিটা

নেক ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত ধান

সংগৃহীত ছবি

বিশ্লেষণ

নেক ব্লাস্ট রোগে ধানে চিটা

  • আমজাদ হোসেন মিন্টু, বগুড়া
  • প্রকাশিত ২৪ এপ্রিল ২০১৯

বগুড়ার সোনাতলায় বোরো ধানক্ষেতে নেক ব্লাস্ট রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ায় কৃষকরা চিন্তিত হয়ে পড়েছে। এ রোগের কারণ বাড়ন্ত ধানের শীষ চিটায় পরিণত হচ্ছে। উপজেলার বেশিরভাগ জায়গায় রোপণকৃত ইরি-বোরো ধান নেক ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত হওয়ায় ওই উপজেলার কৃষক হতাশ হয়ে পড়েছে।

সরেজমিনে উপজেলার তেকানিচুকাইনগর, ভিকনেরপাড়া, মহব্বতের পাড়া, সরলিয়া, খাবুলিয়া, জন্তিয়ার পাড়া, মহেশপাড়া, ছাতিয়ানতলা, শালিখা, মধুপুর, হরিখালী, উত্তর করমজা, পাকুল্লা, শ্যামপুর, হুয়াকুয়া, পদ্মপাড়া, নিশ্চিন্তপুর, গোসাইবাড়ি, চরপাড়া, ঠাকুরপাড়াসহ বেশ কয়েকটি গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে, বোরো ক্ষেত নেক ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত হয়ে পাতা পুড়ে গেছে। ফলে জমিতে রোপনকৃত ধানের শীষ চিটায় পরিনত হয়েছে। এছাড়া ধানের শীষ সাদা হয়ে গেছে। এ বিষয়ে নওদাবগা গ্রামের আবদুর রাজ্জাক, মুকুল মিয়া, সুজন মাহমুদ মাস্টার জানান, তাদের রোপন কৃত ব্রি ধান-২৮ নেক ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত হওয়ায় ধানের শীষ চিটায় পরিণত হয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাসুদ আহমেদ জানান, এটি ছত্রাক জনিত রোগ। যেসব এলাকার কৃষক ব্রি-ধান ২৮ রোপণ করেছে সেসব এলাকায় নেক ব্লাস্ট রোগ দেখা দিয়েছে। এই জাতের ধান রোপণ করতে কৃষকদের নিষেধ করা হয়েছে। এই রোগের ফলে জমির ধান চিটায় পরিণত হয়। এছাড়া ধানের পাতা শুকিয়ে যায়।

এজন্য মাঠ পর্যায়ে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা এ বিষয়ে লিফলেট বিতরণ ও উঠান বৈঠক করে কৃষকদের সচেতন ও পরামর্শ দিচ্ছেন বলে কৃষি বিভাগ জানায়। এছাড়া ছত্রাকজনিত রোগে আক্রান্ত জমিতে রোগনাশক ওষুধ নাটিভো, দুপার, ক্লিয়া, এমাস্ট্রাটক প্রয়োগ করার পরামর্শ দিয়েছেন।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads