• বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads
বেশি করে ফলদ গাছ লাগাতে হবে: ত্রাণমন্ত্রী

চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার ছেঙ্গারচর সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ‘ফলদ বৃক্ষ মেলা-২০১৮’ উদ্বোধন করেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া

ছবি : বাংলাদেশের খবর

জীব ও পরিবেশ

বেশি করে ফলদ গাছ লাগাতে হবে: ত্রাণমন্ত্রী

  • মহিউদ্দিন আল আজাদ, চাঁদপুর প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীর বিক্রম এমপি বলেছেন, বর্তমান সরকার কৃষি বান্ধব সরকার। কৃষকের চাহিদা মেটাতে সকল ব্যবস্থা নিয়েছে সরকার। এ লক্ষ্যে সরকার ভতুর্কিসহ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সারাদেশে ফলদ ও বনজ গাছ লাগানোর জন্য যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আমাদের দেশে পরিবেশবান্ধব পরিস্থিতি সৃষ্টি করার জন্য বনায়ন দরকার। এ দেশের মানুষের পুষ্টিহীনতা দূর করতে হলে বেশি করে ফলদ গাছ লাগাতে হবে।

আজ শনিবার সকালে চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার ছেঙ্গারচর সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ‘ফলদ বৃক্ষ মেলা-২০১৮’ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ত্রাণ মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ফলের চাহিদা মেটানোর জন্য প্রতিটি বাড়িতে বেশি করে দেশী ফল গাছ লাগাতে হবে। এজন্য কৃষকদের ফল গাছ লাগানো জন্য সকল প্রকার সহায়তা করতে কৃষি কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

এবারের মেলার প্রতিপাদ্য বিষয় ‘অপ্রতিরোধ্য দেশের অগ্রযাত্র- ফলের পুষ্টি দেবে নতুন মাত্রা’। এ স্লোগানকে সামনে রেখে এবারের ফলদ বৃক্ষ মেলা ০১-১০ জুলাই ১০ দিন ব্যাপী আয়োজন করা হয়েছে। মেলার আয়োজকরা কৃষকদের বেশী করে দেশী ফলের চারা লাগানো জন্য পরামর্শ দেন। মেলায় ১২ টি ষ্টল নিয়ে মেলা শুরু হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, দেশি ফলে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন রয়েছে যা মানবদেহের জন্য দরকার। বেশি করে ফলদ গাছের চাষ করলে এদেশের ফলের চাহিদা পূরণ করে তা বিদেশে রপ্তানি করা যাবে। এতে করে প্রচুর পরিমাণের বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব হবে। গাছ মানুষের জীবনের সঙ্গে জড়িত।

মেলা ঘুরে দেখা যায়, বিভিন্ন প্রজাতির ফল গাছের চারা উঠেছে। উন্নতমানের দেশী উঁচু জাতের আম, পেয়ারা, জামবুরা, লেবু, ডালিম, করমচা, লটকন, আতা, লিচু’সহ প্রায় ৫০-৬০ জাতের ফল গাছের চারা দেখা যায়। এর আগে ফিতা কেটে মেলা উদ্বোধন করেন মন্ত্রী।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তারের সভাপতিত্বে ও উপজেলা কৃষি অফিসার মোহাম্মদ সালাউদ্দিনের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মনজুর আহমদ, উপজেলা আ’লীগের সভাপতি এ্যাড. রুহুল আমিন, ছেংগারচর পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব রফিকুল আলম জজ, জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান এইচএম জাহাঙ্গীর আলম, ভাইস চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম সরকার ইমন, পৌর আ’লীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) হাজী মনির হোসেন বেপারী, সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান ঢালী, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির খান, কলাকান্দা ইউপি চেয়ারম্যান ছোবহান সরকার সুভা, উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) খোরশেদ আলম, সাধারণ সম্পাদক জিএম ফারুক, প্যানেল মেয়র রুহুল আমিন মোল্লা, আ’লীগ নেতা আল-মাহমুদ টিটু মোল্লা’সহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, আ’লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads