• সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads
পাকিস্তানের নির্বাচনে থাকবে ৩ লাখ ৭১ হাজার সেনা

পাকিস্তানের নির্বাচনে সাহায্য করছে সেনাবাহিনী

পুরোনো ছবি

এশিয়া

পাকিস্তানের নির্বাচনে থাকবে ৩ লাখ ৭১ হাজার সেনা

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ১০ জুলাই ২০১৮

পাকিস্তানে চলতি বছরের সাধারণ নির্বাচনে ৩ লাখ ৭১ হাজার ৩৯৯ জন সেনা মোতায়েন করা হবে। সেনাবাহিনী নির্বাচনে প্রত্যক্ষ ভূমিকা পালন না করলেও যেকোনো বাজে পরিস্থিতি মোকাবেলায় এই সেনা মোতায়েন করা হবে বলে জানিয়েছেন দেশটির ইন্টার সার্ভিসেস পাবলিক রিলেশন্সের (আইএসপিআর) মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আসিফ গফুর।

দেশটির সংবাদ মাধ্যম ডনের প্রতিবেদনে বলা হয়, এবারের নির্বাচনে মোট ৮৫ হাজার ৩০০ ভোটকেন্দ্রে ১০ কোটি  ৫৯ লাখ ৫০ হাজার ভোটার ভোট দেবেন বলে আশা করছে দেশটির নির্বাচন কমিশন দফতর। নির্বাচনী সহিংসতার বিষয়ে আসিফ গফুর বলেন, ২০১৩ সালের নির্বাচনে দেশের নিরাপত্তার অবস্থা অতটা ভালো ছিল না। আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টির অনেক সদস্যকেই জঙ্গিরা মৃত্যুর হুমকি দিয়ে আসছিল। এমনকি কয়েকজন নেতাকে হত্যাও করা হয়। নির্বাচনে সহিংসতা আর জঙ্গি নির্মূলে তখন ৭৫ হাজার সেনা মোতায়েন করা হয়েছিল।

তবে আসিফ গফুর যাই বলুন না কেন, এবারের নির্বাচনেও অনেক রাজনীতিককে মৃত্যুর হুমকি দেওয়া হয়েছে। দ্য ন্যাশনাল কাউন্টার টেররিজম অথরিটি (এনএসিটিএ) গত সোমবার ইমরান খানসহ মোট ছয় রাজনীতিকের নাম প্রকাশ করেছে যাদের হত্যার ষড়যন্ত্র করছে বিভিন্ন সন্ত্রাসী গোষ্ঠী। সংস্থাটির পক্ষ থেকে ইতোমধ্যেই নির্বাচন কমিশন সচিব বাবর ইয়াকুবকে এ বিষয়ে জানানো হয়েছে।

নিরাপত্তা ইস্যুতে মহাপরিচালক বলেন, জুলাইয়ের ২১ তারিখের আগে অননুমোদিত কোনো ব্যক্তিকে প্রিন্টিং প্রেসে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। সেনা সদস্যরা কোনো ব্যালট বক্সে হাত দেবে না এবং ভোট গণনার সময়ও থাকবে না। তবে নির্বাচন কমিশন কর্মকর্তারা চাইলে সর্বাত্মক সহায়তা করা হবে।

সম্প্রতি ন্যাশনাল অ্যাকাউন্ট্যাবিলিটি ব্যুরোর দফতরে বোমা হামলার হুমকি দেওয়া হয়েছে। হুমকি মোকাবেলায় ইতোমধ্যেই সদর দফতরে ৪৮ জন অতিরিক্ত নিরাপত্তা রক্ষী এবং ৪০টি সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। এ ছাড়া ভবনের চারপাশের এলাকাগুলোকে পর্যবেক্ষণের আওতায় আনা হয়েছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads