• সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads
কনের হাত ধরে পুতিনের নাচ

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন অস্ট্রিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী কারিন কেনাইসেলের বিয়েতে তার হাত ধরে নাচছেন

ছবি : ইন্টারনেট

এশিয়া

কনের হাত ধরে পুতিনের নাচ

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশিত ২০ আগস্ট ২০১৮

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন অস্ট্রিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী কারিন কেনাইসেলের বিয়েতে তার হাত ধরে নেচেছেন। দুই মাস আগে পাওয়া আমন্ত্রণ রক্ষা করতে গত শনিবার তিনি জার্মানি যাওয়ার পথে অস্ট্রিয়ার স্টেরিয়াতে নেমে কেনাইসেলের বিয়েতে যোগ দেন। খবর বিবিসি।

অস্ট্রিয়ায় নেমে ফুলের তোড়া নিয়ে গাড়িতে করে পুতিন বিয়ের অনুষ্ঠানে পৌঁছান। এ সময় নবদম্পতিকে সান্ধ্য প্রেমসঙ্গীত শোনাতে একদল কসাক বাদ্যযন্ত্রী তার সঙ্গে ছিল। ছবিতে দেখা যায়, স্টেরিয়া প্রদেশের দক্ষিণাঞ্চলে একটি আঙুরক্ষেতে সাদা ও ক্রিম রঙের লম্বাটে ‘টিরন্ডল’ পোশাক পরিহিত ৫৩ বছর বয়সী হাস্যোজ্জ্বল কেনাইসেল রুশ প্রেসিডেন্টের সঙ্গে নাচছে ও কথা বলছে। এ আঙুরক্ষেতেই ব্যবসায়ী ওলফগ্যাং মাইলিঙ্গারের সঙ্গে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়।

ক্রিমিয়া দখল ও অন্যান্য বিষয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সঙ্গে রাশিয়ার সম্পর্কের টানাপড়েনের মধ্যেই রুশ প্রেসিডেন্টকে বিয়েতে আমন্ত্রণ জানানোর ঘটনায় মস্কো ও ভিয়েনার অনেকেই বিস্মিত হয়েছিল। মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক বিশেষজ্ঞ, বহুভাষী, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত পার্লামেন্ট সদস্য কেনাইসেলের সঙ্গে পুতিনের বন্ধুত্ব ছিল, এমন কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে পুতিনের দল ইউনাইটেড রাশিয়ার সঙ্গে অস্ট্রিয়ায় ক্ষমতাসীন কট্টর ডানপন্থি দল ফ্রিডম পার্টির (এফপিও) সহযোগিতা চুক্তি হয়েছে।   এফপিও নেতৃত্বাধীন সরকারেই পররাষ্ট্রমন্ত্রী কেনাইসেল। দলটির নেতা ও অস্ট্রিয়ার ভাইস চ্যান্সেলর হেইন্স-ক্রিস্টিয়ান স্ট্রাখেও এর আগে রাশিয়ার প্রতি সমর্থন জানিয়েছিলেন। তিনি মস্কোর ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে পশ্চিমাদের আহ্বান জানান। বিয়েতে পুতিনকে আমন্ত্রণ জানানোয় কেনাইসেলের প্রশংসাও করেছেন স্ট্রাখে। পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ব্রিজ বিল্ডার অ্যাখ্যা দিয়ে নবদম্পতিকে অভিনন্দন জানান ও সৌভাগ্য কামনা করেন তিনি। বিয়েতে অংশ নেওয়ার পর শনিবারই সিরিয়া, ইউক্রেন ও জ্বালানি সংক্রান্ত বিষয়ে মেরকেলের সঙ্গে আলোচনার জন্য জার্মানিতে যান পুতিন। স্টেরিয়া সফর সম্পর্কে তিনি সাংবাদিকদের জানান, এটা ছিল একেবারেই ব্যক্তিগত ও চমৎকার এক সফর।

ইইউতে থাকলেও অস্ট্রিয়ার সঙ্গে বরাবরই রাশিয়ার সম্পর্ক বেশ ভালো। পুনরায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর ইউরোপে প্রথম সফরে জুনে অস্ট্রিয়ায় গিয়েছিলেন পুতিন।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads