• বুধবার, ২৯ জানুয়ারি ২০২০, ১৫ মাঘ ১৪২৬
এসআইবিএলে ফের মালিকানা পরিবর্তন!

এসআইবিএলের লোগো

ফাইল ছবি

ব্যাংক

এসআইবিএলে ফের মালিকানা পরিবর্তন!

  • সাইদ আরমান
  • প্রকাশিত ০৪ ডিসেম্বর ২০১৯

মালিকানা দখলের তিন বছরের মাথায় বেসরকারি খাতের সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকে আবারো মালিকানা পরিবর্তনের খবর পাওয়া গেছে। একই সঙ্গে ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদের ভাইস চেয়ারম্যান বেলাল আহমেদ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কাজী ওসমান আলীসহ কয়েকজন কর্মকর্তার পদত্যাগের খবর ছড়িয়ে পড়েছে। তবে কেউ নিশ্চিত করতে চাননি।  

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চট্টগ্রামভিত্তিক এস আলম গ্রুপ ব্যাংকটির অংশীদারিত্ব ছেড়ে দিচ্ছে। আর নতুন মালিকানায় বিআরবি গ্রুপ ও আল হারামাইন গ্রুপের নাম এসেছে।   

ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী ওসমান আলী পদত্যাগ করেছেন বলে গুঞ্জন বেরিয়ে এসেছে। একই সঙ্গে ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদের একজন ভাইস চেয়ারম্যান বেলাল আহমেদ, কোম্পানি সচিব আবদুল হান্নান খান এবং মানবসম্পদ বিভাগের প্রধান কাজী ওবায়দুল আল ফারুকের পদত্যাগের খবর পাওয়া গেছে।  

জানতে চাইলে কাজী ওসমান আলী বাংলাদেশের খবরকে গতকাল জানান, তার পদত্যাগের খবরটি সঠিক নয়। একটি স্বার্থান্বেষী মহল উদ্দেশ্যমূলকভাবে এই তথ্য প্রচার করছে। আমি অফিস করছি। কোনো মহল কেন এমনটি প্রচার করল জানতে চাইলে তিনি বলেন, সেটি এই মুহূর্তে বলা কঠিন। তবে আমিসহ যাদের পদত্যাগের তথ্য ছড়িয়ে পড়েছে সবাই বহাল রয়েছেন। 

অপরদিকে ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. আনোয়ারুল আজিম আরিফ বাংলাদেশের খবরকে বলেন, এমডিসহ কারো পদত্যাগের খবর সঠিক নয়। তার কাছে কোনো পদত্যাগপত্র আসেনি। তবে ব্যাংকটির মালিকানা পর্ষদের বিষয়ে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি।  

খোঁজ নিয়ে আরো জানা যায়, বেশ কিছু দিন ধরেই ব্যাংকিং খাতে আলোচনা চলছে এসআইবিএল ছেড়ে দিচ্ছে এস আলম গ্রুপ। তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বেসরকারি খাতের ব্যাংকগুলোর মধ্যে একসময় শক্ত অবস্থানে থাকা এসআইবিএল এখন আর্থিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়েছে। বেড়ে গেছে খেলাপি ঋণ। ব্যাংক এখন নিরাপত্তা সঞ্চিতি ঘাটতিতে রয়েছে। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের কথিত ব্যক্তিগত সহকারী মিয়া নূরুদ্দীন আহমেদ অপুকে বড় অঙ্কের টাকা ঋণ হিসেবে দিয়েছে। ব্যাংকটির ইস্কাটন শাখা থেকে এই ঋণ ছাড় করা হয় গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ঠিক আগে। অবশ্য নির্বাচনের আগে নগদ টাকাসহ এলিট ফোর্স ব্যারের হাতে আটক হয়েছিলেন এই অপু। ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডসহ চট্টগ্রামভিত্তিক গ্রুপটির কবজায় থাকা তিনটি ব্যাংক থেকে অপু সংঘবদ্ধভাবে ৩০০ কোটি টাকা বের করে নিয়েছেন। দুর্নীতি দমন কমিশনসহ আইনশৃঙ্খলাবাহিনী বিষয়টি তদন্ত করছে। 

২০১৭ সালের অক্টোবর মাসের শেষ দিন পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনায় বড় পরিবর্তন আসে। এ কারণে ব্যাংকটির চেয়ারম্যান, নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালককে (এমডি) হঠাৎ পদত্যাগ করতে হয়েছে। রাজধানীর ওয়েস্টিন হোটেলে বিশেষ নিরাপত্তাব্যবস্থার মধ্যে এক সভায় এ পরিবর্তন সংঘটিত হয়। 

তবে ওই সভায় ব্যাংকটির তৎকালীন চেয়ারম্যান রেজাউল হক, নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান আনিসুল হক, এমডি শহীদ হোসেন যোগ দেননি। একই প্রক্রিয়ায় ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে ইসলামী ব্যাংকের পরিবর্তন আসে। এ পরিবর্তনের সঙ্গে চট্টগ্রামভিত্তিক এস আলম গ্রুপের নাম উঠে আসে। নতুন চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পান চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য আনোয়ারুল আজিম আরিফ। নতুন এমডি হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয় ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের অতিরিক্ত এমডি কাজী ওসমান আলীকে। এ ছাড়া ভাইস চেয়ারম্যান করা হয় বেলাল আহমেদকে। তিনি এস আলম গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাইফুল আলমের জামাতা। ১৯৯৫ সালে যাত্রা শুরু করা এসআইবিএলের শাখার সংখ্যা ১৫০-এর কাছাকাছি। 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads