• সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ads

বলিউড

হতাশ কঙ্গনা

  • বিনোদন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ০৯ নভেম্বর ২০১৯

ভারতের তামিলনাড়ুর প্রয়াত মুখ্যমন্ত্রী জয়ললিতার মৃত্যুর প্রায় তিন বছর পর তার বায়োপিক তৈরি করার হিড়িক পড়েছে বলিউডে। এ পর্যন্ত পাঁচটি বায়োপিকের খবর পাওয়া গেছে। তবে সবচেয়ে বেশি আলোচনা হচ্ছে পরিচালক গৌতম বাসুদেব মেনন এবং এএল বিজয়ের ‘থালাইভি’ ছবিটি নিয়ে। এখানে কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করার জন্য চূড়ান্ত হয়েছেন কঙ্গনা রানৌত। জয়ললিতার বায়োপিকে অভিনয়ের জন্য চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পর থেকেই উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে আসছেন এই অভিনেত্রী। কিন্তু হঠাৎ করেই সেই উচ্ছ্বাস যেন পরিণত হয় বিষাদে। জানা গেছে, অনিশ্চয়তা দেখা গেছে জয়ললিতার বায়োপিক নিয়ে। জয়ললিতার ভাইঝি দীপা জয়কুমার আর্জি জানিয়েছেন, যেহেতু এই ছবিতে জয়ললিতার ব্যক্তিগত জীবন দেখানো হবে, তাই পরিচালকদের উচিত পরিবারের মতামত নেওয়া। শুধু তাই নয়, এর পরেই মাদ্রাজ হাইকোর্ট পরিচালক গৌতম মেনন এবং এএল বিজয়কে নোটিশ পাঠিয়েছেন।

বিষয়টি নিয়ে কঙ্গনা বলেছেন, ‘আমি যখন অভিনয়ের জন্য চুক্তিবদ্ধ হই, তখন বিজয় এবং ছবির প্রযোজক বলেছিলেন, তাদের কাছে জয়ললিতার ভাইপো দীপকের সম্মতি রয়েছে। কিন্তু এখন শুনছি নতুন কথা। এটা খুবই দুঃখজনক। এই বায়োপিক নিয়ে আমি অন্য রকম এক প্রত্যাশা করছিলাম। কিন্তু আচমকা এই জটিলতা তৈরি হওয়ায় আমি বেশ আশাহত। তবে আমার বিশ্বাস এই জটিলতা কেটে উঠবে। দেখা যাক, কোথাকার জল কোনদিকে গড়ায়!’

কঙ্গনা রানৌত বলিউডে কোনো বিষয়ে মুখ খুললেই তাকে ঘিরে নানা বিতর্ক তৈরি হয়। কিছুদিন আগে জীবনের প্রথম চুমু খাওয়ার ভয়ংকর অভিজ্ঞতা শেয়ার করে আলোচনায় এসেছেন কঙ্গনা রানৌত। তবে সেই অভিজ্ঞতা যে মোটেই মধুর নয়, তা-ও নির্দ্বিধায় জানিয়েছেন তিনি।

কঙ্গনা বলেন, আমার প্রথম চুম্বন মোটেই স্বর্গীয় ছিল না। বরং পুরো বিষয়টাই যেন অগোছালো ছিল। ‘১৬-১৭ বছর বয়সে আমি প্রথম সম্পর্কে জড়াই। আমি তখন চণ্ডীগড়ে থাকতাম। আমার এক বন্ধু ডেটে গিয়েছিল। ওর প্রেমিকের বন্ধুর সঙ্গে আমি সম্পর্কে জড়াই। সেই কিউট পাঞ্জাবি পুরুষের বয়স তখন ২৮। আর আমি ১৬-১৭।’

কিন্তু সেই প্রেমের শেষটা মোটেই সুখের ছিল না কঙ্গনার জন্য। মন ভেঙেছিল কঙ্গনার। তিনি বলেন, ও আমার দিকে তাকিয়ে বলেছিল, তুমি তো বাচ্চা। ও বুঝেছিল এই খেলাটায় আমি নতুন। আমার মন ভেঙেছিল। আমি ওকে মেসেজ করতাম, আমায় একটা সুযোগ দাও। আমি বড় হয়ে যাব।

শুধু প্রথম প্রেমই নয়, প্রথম ক্রাশের কথাও বললেন কঙ্গনা। রিভালভার রানির প্রথম ক্রাশ ছিলেন তারই এক শিক্ষক। তিনি বলেন, প্রথম এক শিক্ষকের প্রেমে পড়েছিলাম। ১৫-১৬ বছর বয়সে ছেলেদের সেভাবে গোঁফও ওঠে না। তাই আমার এক শিক্ষককেই ভালো লেগেছিল। আমি তখন নবম শ্রেণিতে পড়ি। তখন ‘চাঁদ ছুপা বাদল মে’ গানটি বেরিয়েছিল। আমি একটা ওড়না নিয়ে নাচতাম আর ওনার কথা ভাবতাম।

কয়েক বছর ধরেই কঙ্গনা রানৌত বলিউডের চর্চিত বিষয়। তিনি যে চরিত্রেই অভিনয় করেন না কেন, শতভাগ উজাড় করে দেন। ভিন্ন ভিন্ন সিনেমায় ভিন্ন ভিন্ন লুকে হাজির হয়ে দর্শকদের মুগ্ধতার চাদরে মুড়িয়েছেন বহুবার। সর্বশেষ চমকে দিয়েছিলেন ‘মেন্টাল হ্যায় কেয়া’ সিনেমায়। এবার সেই কঙ্গনাকেই দেখা যাবে তামিলনাড়ুর প্রয়াত মুখ্যমন্ত্রী জয়ললিতার বায়োপিকে। এই ছবির খবর এখন আলোচনার কেন্দ্রে।

শুরুর দিকে এ সিনেমার প্রধান চরিত্রের জন্য উঠে এসেছিল বহু তারকার নাম। কখনো শোনা গিয়েছিল কাজলের নাম, আবার কখনো বলা হয়েছিল বিদ্যা বালানকে নেওয়ার চিন্তাভাবনা চলছে এ সিনেমার জন্য। তবে সব জল্পনার অবসান ঘটিয়ে নির্মাতাদের তরফে জানানো হয় কঙ্গনাই চূড়ান্ত জয়ললিতার চরিত্রের জন্য।

ইতোমধ্যে ছবির জন্য নিজেকে তৈরি করা শুরু করে দিয়েছিলেন কঙ্গনা রানৌত। ইনস্টাগ্রামে কঙ্গনার টিমের তরফে বেশ কিছু ছবি পোস্ট করা হয়, যেখানে দেখা যায় তার প্রসথেটিক মেজারমেন্ট হচ্ছে। লস অ্যাঞ্জেলেসের জেসনকলিনসের স্টুডিওতেই চলছে প্রসথেটিক মেজারমেন্টের প্রাথমিক পর্যায়ের কাজ। এদিকে রাজনীতিবিদ হওয়ার আগে জয়ললিতা ছিলেন একজন অভিনেত্রী। ছবিতে সে বিষয়টিও দেখানো হবে। শোনা যাচ্ছে, কঙ্গনা একটি গানের শুট করবেন যেখানে থাকবেন প্রায় ১০০ ব্যাকগ্রাউন্ড নৃত্যশিল্পী।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads