• শনিবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২০, ১১ মাঘ ১৪২৬

বলিউড

দুই বছর পেরিয়ে...

  • বিনোদন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ১২ ডিসেম্বর ২০১৯

দেখতে দেখতে পেরিয়ে গেল দুই বছর। ২০১৭ সালের ১১ ডিসেম্বর সুদূর ইতালিতে গিয়ে গোপনে বিয়ে করেন বিরাট কোহলি ও আনুশকা শর্মা। প্রেম নিয়ে কোনো রাখঢাক না রাখলেও বিয়েতে কেন গোপনীয়তা? এমন প্রশ্নে দুজনের ভক্তরাই ব্যথিত হয়েছেন। ২০১৩ সালে প্রথম দেখা হয় বিরাট-আনুশকার। গড়ে ওঠে বন্ধুত্ব, যা ধীরে ধীরে প্রেমে পরিণতি লাভ করে। এরপর চুটিয়ে প্রেম করেন চার বছর। মিডিয়ায় তাদের প্রেম নিয়ে নানা কথাবার্তা হলেও তা নিয়ে কখনো কথা বলেননি দুজনের একজনও। ইতালিতে বিয়ে করতে যাওয়া নিয়ে তারা কিছু না বললেও মিডিয়া এবং ভক্তরা ভেবেই নেন এবার বিয়ে হচ্ছে দুই তারকার।

১১ ডিসেম্বর এই দুই তারকা দম্পতির দ্বিতীয় বিবাহবার্ষিকী থাকলেও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে টি-২০ ম্যাচে মাঠে ছিলেন বিরাট। অন্যদিকে শোনা যাচ্ছে অভিনয় ছেড়ে নিজের প্রোডাকশন হাউস নিয়ে মনোযোগী হতে চান আনুশকা। তবে স্বামী বিরাটকে সময় দিতে চান আনুশকা। যার কারণে এই মুহূর্তে নতুন কোনো সিনেমায় যুক্ত হচ্ছেন না তিনি।

২০০৮ সালে আদিত্য চোপড়ার রাব নে বানা দি জোড়ি ছবিতে অভিনয়ের মাধ্যমে চলচ্চিত্রশিল্পে আনুশকা আত্মপ্রকাশ ঘটে। এরপর বুলবুল সিং পরিচালিত বদমাশ কোম্পানি, ঈশিকা দেশাইয়ের লেডিস ভার্সেস রিকি ভেল, জগৎ জননী সাহনীর পিকে সিনেমায় অভিনয় করে দর্শকদের হূদয়ে জায়গা করে নেন আনুশকা শর্মা।

অপরদিকে ২০০৮ সালে ১৯ বছর বয়সে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ভারতের হয়ে ওয়ান ডেতে অভিষেক হয়েছিল বিরাট কোহলির। এরপর ২০১১ সালে টেস্ট অভিষেক হয় এবং ২০১৩ সালের মধ্যে অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকার টেস্টে শতরান করে নিজেকে একজন টেস্ট ক্রিকেটার প্রমাণ করেছিলেন বিরাট। ওয়ানডে ক্রিকেটে সবচেয়ে দ্রুততম ব্যাটসম্যান হিসেবে ১০ হাজার এবং ১১ হাজার রানের রেকর্ডটি করেছিলেন তিনি। ২০১২ সালে আইসিসির বর্ষসেরা ওয়ান ডে ক্রিকেটার হিসেবে আইসিসি পুরস্কার লাভের মর্যাদা লাভ করেন কোহলি। ২০১৬ সালে উইজডেন কর্তৃক বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ক্রিকেটারের মর্যাদা পান।

স্বামী-স্ত্রী দুজন স্ব-স্ব স্থানে ব্যস্ত থাকার পরে নিজেদের সময় দিতে একটুও ভুলে যান না। সময় পেলেই বেড়াতে যান দুজন। বিরাটের ছুটিতে কিংবা বিদেশে ট্যুর হলেই সঙ্গী হন আনুশকা।

যেন চোখের আড়াল করতে চান না বিরাটকে। আর সে কারণেই অভিনয় থেকে দূরে আছেন আনুশকা। এমনটাই মনে করছেন আনুশকার ভক্তরা। কিন্তু আনুশকার এ ব্যাপারে বক্তব্য ভিন্ন। তবে যা-ই হোক বিরাট-আনুশকার দ্বিতীয় বিবাহবার্ষিকীকে ঘিরে তাদের ভক্তদের মনে নানা কল্পনা জন্মাচ্ছে। অনেকে প্রস্তুতি নিচ্ছে তাদের প্রিয় তারকা দম্পতিকে বিবাহবার্ষিকীর শুভেচ্ছা জানাতে।

সবকিছু মিলিয়ে তাদের দাম্পত্য জীবন সুখী হোক- প্রত্যাশা এমনটাই ভক্তদের।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads