• সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯, ১১ ভাদ্র ১৪২৫
ads
চালের দাম কিছু কমেছে

চালের দাম কিছু কমেছে

সংরক্ষিত ছবি

পণ্যবাজার

প্রভাব পড়েনি খুচরা বাজারে

চালের দাম কিছু কমেছে

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১৯ জানুয়ারি ২০১৯

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বেড়ে যাওয়া চালের দাম এখন কমে আসছে। পাইকারি বাজারে দাম কমে আসলেও এর প্রভাব এখনো খুচরা বাজারে পড়েনি। এ ছাড়া আটা, খোলা তেল, ডাল ও ডিমের দাম গত সপ্তাহে বেড়ে এখন উচ্চ মূল্যে স্থিতিশীল রয়েছে।

রাজধানীর চালের পাইকারি বাজার বাবুবাজার, বাদামতলী আর মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেটের চালের আড়ত মালিকরা জানিয়েছেন, সরু চালের দর আগে ৪-৫ টাকা বেড়েছিল। এখন সে হারে না কমলেও ২ টাকা কমেছে। মাঝারি ও মোটা চাল তিন টাকা বেড়েছিল। সেটা এখন পুরোটাই কমেছে।

কৃষি মার্কেটের বরিশাল রাইস এজেন্সির শুক্কুর আলী বলেন, মাঝারি ও মোটা চাল এখন স্বাভাবিক দামে এসেছে। সরু চাল যে হারে বেড়েছিল, সেই হারে কমেনি। এ চালের দাম কমার সম্ভাবনাও কম। কারণ শেষ আমনের যেসব চাল বাজারে আসছে তার বেশিভাগ মোটা চাল। আগামী ইরি-বোরের চাল বাজারে আসলে সেটা হবে সরু। তখন দাম কমবে।

এসব বাজারে প্রতিকেজি স্বর্ণা চাল সপ্তাহখানেক আগে ৪০-৪২ টাকায় বিক্রি হয়েছে, যা কেজিতে দুই টাকা পর্যন্ত কমে বাজারভেদে ৩৮-৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বিআর আটাশ চাল বিক্রি করতে দেখা গেছে ৪২-৪৪ টাকা কেজি দরে, যা এক সপ্তাহ আগে ৪৪-৪৬ টাকায় বিক্রি হয়েছে। প্রতিকেজি সাধারণ মানের সরু চাল ৪৬-৫৪ টাকায় ও একটু ভালো মানের সরু চাল ৫৫-৬০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে। তবে খুচরা বাজার ও পাড়া মহল্লার দোকানে এখনও আগের দামে বিক্রি হচ্ছে এসব চাল। ফলে সেসব দোকান থেকে চাল কিনলে এখনও বেশি দাম গুনতে হচ্ছে ভোক্তাদের। এ বিষয়ে রামপুরার এক মুদি দোকানি শরিফুল বলেন, পাইকারি বাজারে দাম কমছে শুনেছি, তবে আমরা এখনো কমাতে পারিনি। কারণ, এসব চাল আগের বেশি দামে কেনা। 

এছাড়াও বাজারে আটা, খোলা তেল, ডাল ও ডিমের দাম বেশি। তবে খুব একটা হেরফের হয়নি সবজি মাছ ও অন্যান্য পণ্যের দাম। মৌসুমের শেষ দিকে কিছু সবজির দাম সরবরাহের সাথে ওঠানামা করলেও বছরের অন্যান্য সময়ের থেকে সেটা কম হওয়ায় ক্রেতাদের তা নিয়ে মাথাব্যাথা নেই।

আটা তেল ও ডালের ব্যবসায়ীরা বলছেন, নির্বাচন-পরবর্তী সময়ে পণ্যের চাহিদা বাড়লেও ডলারের মূল্যবৃদ্ধির কারণে আমদানি কমে যাওয়ায় সরবরাহ কমেছে। এ কারণে বাজারে অস্থিরতা দেখা দিয়েছে। ডাল তেল ও আটার দাম গত বছরের পুরোটা সময় কম ছিল। ফলে লোকসান কমাতে অনেক ব্যবসায়ী বাধ্য হয়ে দাম বাড়িয়েছেন এমন দাবিও কারো কারো।

শীতের এই সময়ে সবজির ভরা মৌসুম। এখন পর্যন্ত পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকায় সবজির দামও স্থিতিশীল রয়েছে। প্রতিকেজি ২০ থেকে ৪০ টাকার মধ্যেই মিলছে সব সবজি। দেশি ও আমদানি করা পেঁয়াজ ২৫ টাকা কেজি দরে পাওয়া যাচ্ছে। যদিও কদিন আগেই আমদানি করা পেঁয়াজের দাম বাড়ানোর একটা পাঁয়তারা দেখা গেছে। দেশি পেঁয়াজের ভরা মৌসুমের কারণে সেটাও কমাতে বাধ্য হয়েছে বিক্রেতারা।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads