• মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২ আশ্বিন ১৪২৫
ads
চাটমোহরে কাঁচামরিচের দাম বেড়েছে তিনগুণ

ছবি: বাংলাদেশের খবর

পণ্যবাজার

চাটমোহরে কাঁচামরিচের দাম বেড়েছে তিনগুণ

  • চাটমোহর (পাবনা) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ১৫ জুলাই ২০১৯

পাবনার চাটমোহরে বেড়েছে কাঁচামরিচের দাম। এতে নাভিশ্বাস উঠছে সাধারণ ক্রেতাদের। আমদানি ও ফলন কম এবং বৃষ্টির কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে দাবি করছেন কাঁচামরিচ বিক্রির সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিরা। ৪০ টাকা কেজি দরের কাঁচা মরিচ ৫/৭দিনের ব্যবধানে প্রায় তিনগুণ বেড়ে এখন বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা দরে।

চাটমোহর বাজার মনিটরিং কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অসীম কুমার সরকার বলছেন, কেনাবেচায় লাভের অনুপাত ঠিক না রেখে যদি সিন্ডিকেট করে দাম বাড়ানো হয়- তবে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মঙ্গলবার চাটমোহর নতুনবাজার কাঁচাবাজারে প্রতি কেজি কাঁচামরিচ ১০০ টাকা দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে। দাম বেড়ে যাওয়ায় কম পরিমাণ মরিচ কিনছেন ক্রেতারা।

জাবরকোল এলাকার বাসিন্দা আব্দুল হাই বলছিলেন, দাম বেশি হলেও তো কিছু করার নেই। খাওয়া তো লাগবে। এখন আড়াই শ’ গ্রাম কিনছি। দাম কম থাকলে হাফ কেজি কিনতাম।
কাঁচা বাজারের দোকানি ইদ্রিস আলী বলছিলেন, আড়তেই দাম ৮০ টাকা কেজি। খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা কেজি দরে। দুইদিন আগে এর দাম ছিল ৮০ টাকা। পাইকারি দর ছিল ৬৫ টাকা।

তিনি জানান, ৫/৭দিন আগেও খুচরা দাম ছিল কেজি প্রতি ৪০-৫০ টাকা।

আড়ৎদার সিরাজুল ইসলাম বলছেন, আমদানি নেই আড়তে। বৃষ্টির কারণে কৃষক মরিচ তুলতে পারছেন না। মরিচের ফলনও কমে গেছে। আমদানি কমে যাওয়ার কারণেই মরিচের দাম বাড়ছে। আবহাওয়া ভালো হলে এবং আমদানি বেশি হলে দাম কিছুটা কমতে পারে বলে জানান তিনি।

চাটমোহর ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি কে.এম বেলাল হোসেন স্বপন বলছেন, সরবরাহ কমে যাওয়ার কারণে ব্যবসায়ীরা বেশি দামে কিনতে বাধ্য হচ্ছেন। কৃষক জমি থেকে মরিচ তুলতে পারেনি বৃষ্টির জন্য।

চাটমোহরে মরিচ আমদানি হয় সাঁথিয়া এলাকা থেকে। সেখান থেকেও মরিচ কম আসছে। ফলে মরিচের বাজার একটু অস্থিতিশীল হয়েছে। কাঁচাবাজার বরাবরই আমদানি নির্ভর উল্লেখ করে তিনি জানান, আমদানি বাড়লে ও আব আবহাওয়া ঠিক হলেই কাঁচামরিচের বাজার স্থিতিশীল হবে।
চাটমোহর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সুত্র জানায়, উপজেলায় ৭৫ ভাগ মরিচ আমদানি হয়। বগুড়া অঞ্চল থেকে এ মরিচ বেশি আসে।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads