• মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads
হাজীগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে টেন্ডারবাজির অভিযোগ

টেন্ডারবাজির বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ জমা দিচ্ছেন ঠিকাদাররা

বাংলাদেশের খবর

সারা দেশ

হাজীগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে টেন্ডারবাজির অভিযোগ

  • চাঁদপুর প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ১১ জুন ২০১৮

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার ১নং রাজারগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল হাদী মিয়ার বিরুদ্ধে সাড়ে চার কোটি টাকার টেন্ডারাবাজির অভিযোগ এনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বৈশাখী বড়ুয়ার কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন ঠিকাদাররা।

মেসার্স গাজী এন্টার প্রাইজের সত্ত্বাধীকারী গাজী নাছির উদ্দিন সোমবার দুপুরে প্রকৃত ঠিকাদারের পক্ষে এ অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগে চলমান টেন্ডার বাতিল করে রি-টেন্ডারের দাবি জানানো হয়।

লিখিত অভিযোগের অনুলিপি স্থানীয় সংসদ সদস্য (চাঁদপুর-৫) মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম, দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের প্রকল্প পরিচালক সওদাগর মুস্তাফিজুর রহমান, জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান খান, উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব অধ্যাপক আবদুর রশিদ মজুমদার ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. রেজাউল করিমের কাছে জমা দেওয়া হয়েছে।

টেন্ডারাবাজির বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগে বলা হয়েছে, দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের আওতাধীন হাজীগঞ্জ উপজেলায় ‘গ্রামীণ রাস্তায় কম-বেশী ১৫ মিটার দৈর্ঘ্যের ৪ কোটি ৫৫ লক্ষ ২৯ হাজার ৫০৪ টাকার অনুমোদন পূর্বক ১৯টি সেতুর ব্রীজ/ কালর্ভাট নির্মাণ’-প্রকল্পের জন্য স্মারক নং- ৫১.০১.০০০০.০৪১.১৪.০২০.১৬/২৭০৮ তারিখ ৮ মে ২০১৮খ্রি. এর মাধ্যমে ১০ মে ২০১৮খ্রি. প্রকাশিত আংশিক সংশোধিত দরপত্র অনুযায়ী ১০ জুন বিকাল ৩টা ৩০ পর্যন্ত দরপত্র বিক্রির শেষ তারিখ আহবান করা হয়। ওই দিন উপজেলার রাজারগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল হাদী মিয়া তার সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে সিডিউল ক্রয়-বিক্রয় বন্ধ রাখেন এবং প্রকৃত ঠিকাদারদের সিডিউল ক্রয়ে বাধা প্রদান করে।

ঠিকাদারদের দাবি, ইউপি চেয়ারম্যান তার সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে ১৯ টি কালর্ভাটের ১৫% হার নগদ বাবদ আনুমানিক ৬৮ লক্ষ ২৯ হাজার ৪২৫ টাকা হাতিয়ে নেয়। এতে সরকার সিডিউল বিক্রির প্রায় ১০লক্ষ টাকা রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হয়েছে। এতে বর্তমান সরকার তথা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করা হয়েছে। যার ফলে উক্ত কাজগুলো নিন্মমানের হবে বলে আশংকা করা হচ্ছে। যা আগামী জাতীয় নির্বাচনে সরকারের উপর প্রভাব পড়বে ফেলতে পারে।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন মো. রেজাউল করিম জানান, এমন একটি অভিযোগের অনুলিপি পেয়েছি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বৈশাখী বড়ুয়াও এই অভিযোগের কথা স্বীকার করেছেন। তিনি বিষয়টি তদন্তের আশ্বাস দিয়েছেন। 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads