• শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads
রক্তের গ্রুপ নির্ণয়ে বিশ্বরেকর্ড হচ্ছে তারাগঞ্জে

রক্তের গ্রুপ নির্ণয়

সংরক্ষিত ছবি

সারা দেশ

রক্তের গ্রুপ নির্ণয়ে বিশ্বরেকর্ড হচ্ছে তারাগঞ্জে

  • রফিকুল ইসলাম রফিক, রংপুর
  • প্রকাশিত ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

এক ঘণ্টায় আড়াই লাখ বৃক্ষরোপণের অনন্য নজির স্থাপনের পর এবার স্কুলশিক্ষার্থীদের রক্তের গ্রুপ নির্ণয় করে আরেকটি নতুন রেকর্ড গড়তে যাচ্ছে রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন। এজন্য ৭০ হাজার শিক্ষার্থীর রক্তের গ্রুপ নির্ণয় করে ডাটাবেজ তৈরি করা হয়েছে। আলোকিত তারাগঞ্জ ডাটাবেজের আওতায় উপজেলার সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের এই রক্তের গ্রুপ নির্ণয় করা হয়েছে। এর আগে কখনো বাংলাদেশে কিংবা বিশ্বে একসঙ্গে এত শিক্ষার্থীর রক্তের গ্রুপ নির্ণয় করে তা ডাটাবেজ করে রাখা হয়নি বলে দাবি সংশ্লিষ্টদের। এই প্রথম দেশে এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে তারাগঞ্জ সরকারি কলেজ মাঠে রংপুর জেলা প্রশাসক এনামুল হাবীব প্রধান অতিথি থেকে এ ডাটাবেজের উদ্বোধন করেন। এ সময় উপজলা নির্বাহী কর্মকর্তা জিলুফা সুলতানা, উপজেলা চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান লিটন, আওয়ামী লীগ সভাপতি আতিয়ার রহমানসহ স্থানীয় রাজনৈতিক ব্যক্তি, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

‘নিজের রক্তের গ্রুপ জানি, আমার গ্রুপের বন্ধুদের চিনি’- এমন স্লোগান আর হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে তারাগঞ্জ সরকারি কলেজ মাঠে অবস্থান নেয় উপজেলার ১৬৪টি স্কুলের শিক্ষার্থীরা। নিজ নিজ রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী তারা লাইনে দাঁড়িয়ে যায়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জিলুফা সুলতানা জানান, প্রতিটি স্কুলেই ‘ব্লাড ক্লাব’ খোলা হয়েছে। প্রতিটি শিক্ষার্থীর ক্লাসভিত্তিক রক্তের গ্রুপ করে চার্ট করে দেওয়া হয়েছে। যে শিক্ষার্থীর যে গ্রুপ তারা একে অপরকে চিনে নিতে পারবে। প্রতি মাসের ১ম সপ্তাহে একটি করে সমাবেশ করা হয়। ওই সমাবেশ রক্তের গ্রুপ অনুযায়ী শিক্ষার্থীরা লাইনে দাঁড়ায়। কার কোন রক্তের গ্রুপ তারা নিজ থেকেই জেনে যায়। ভবিষ্যতে রক্তের প্রয়োজন হলেই তারা নিজ থেকে সংগ্রহ করতে পারবে।

আবদুর রহিম নামের এক অভিভাবক বলেন, গত মাসেই আমার ছেলের স্ত্রীর অপারেশনে রক্তের প্রয়োজন ছিল। হাসপাতালে গিয়ে দেখি চার্ট দেওয়া। পরে ওই চার্ট অনুযায়ী খুব সহজেই রক্ত সংগ্রহ করি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জিলুফা সুলতনা বলেন, গত এক বছর থেকেই এই প্রচেষ্টা অব্যাহত ছিল। সবার সহযোগিতায় এটা করা সম্ভব হয়েছে।

উপজেলা চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান লিটন বলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার এমন উদ্যোগে আমরা মুগ্ধ। এর আগেও তিনি ‘সবুজ তারাগঞ্জ গড়ি’ কর্মসূচি নিয়ে এক ঘণ্টায় আড়াই লাখ বৃক্ষরোপণ করে বিশ্বরেকর্ড করেছেন। জেলা প্রশাসক এনামুল হাবীব বলেন, দেশে কোথাও এমন সিস্টেম চালু হয়নি। এই প্রথম রংপুরের তারাগঞ্জে এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads