• বৃহস্পতিবার, ২২ নভেম্বর ২০১৮, ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads
বজ্রপাতে ৬ জেলায় ৭ জনের মৃত্যু

দেশের বিভিন্ন স্থানে আজ বজ্রপাত হয়েছে

পুরোনো ছবি

সারা দেশ

বজ্রপাতে ৬ জেলায় ৭ জনের মৃত্যু

  • অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

দেশের বিভিন্ন স্থানে বজ্রপাতে আজ বুধবার ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে সুনামগঞ্জের ছাতকের পৃথক স্থানে ২ জন, নেত্রকোনায় ১ জন, দিনাজপুরে ১ জন,গ গাইবান্ধায় ১ জন, রাঙামাটিতে ১ জন ও বাগেরহাটে ১ জন মারা যায়। আজ সকাল থেকে দুপুরের মধ্যে বজ্রপাতে এসব মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। স্থানীয় বাসিন্দা ও সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশের বরাত দিয়ে প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর।

সুনামগঞ্জ : জেলার ছাতক উপজেলার নোয়াইব ইউনিয়নের জয়নগর গ্রামে বাড়ির পাশে দুপুরে হাওরে মাছ ধরার সময় বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় হূদয় দাস (১৫)। সে ওই গ্রামের লুলু দাসের ছেলে। একই সময় ছাতক পৌর শহরের লাফার্জ-সুরমা সিমেন্ট ফ্যাক্টরি ঘাট এলাকায় সুরমা নদী থেকে পাথর তোলার সময় বজ্রপাতে মারা যান মামুন মিয়া (২৮) নামে এক শ্রমিক। তিনি পিরোজপুর জেলার কাঁঠালবাড়ী এলাকার আইনুল হকের ছেলে। পাথর তোলার কাজ করতে পিরোজপুর থেকে ছাতকে এসেছিলেন।

কলমাকান্দা (নেত্রকোনা) : উপজেলার মুন্সীপুর শ্যামগঞ্জপাড়ায় বুধবার সকালে বজ্রপাতে মারা যায় শিশু আজিজুল হক (৮)। সে স্থানীয় রংছাতি ইউনিয়নের মুন্সীপুর শ্যামগঞ্জপাড়ার মৃত আবদুল জব্বারের ছেলে। সকালে মুষলধারে বৃষ্টিতে বাড়ির সামনে খেলার সময় বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় আজিজুল। 

শরণখোলা (বাগেরহাট) : উপজেলার হোগলপাতি গ্রামে দুপুরে আকস্মিক ঝড়ের সঙ্গে বজ্রপাতে মারা গেছেন বিপুল হালদার (৫০) নামে এক কৃষক। তিনি ওই এলাকার বিমল হালদারের ছেলে। বৃষ্টির মধ্যে নিজ গোয়ালঘরে আশ্রয় নেন বিপুল। এ সময় গোয়ালঘরের পাশে বজ্রপাতে মারাত্মক আহত হন তিনি। পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় স্থানীয়রা শরণখোলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। অপরদিকে একই দিন দুপুরে বজ্রপাতে উপজেলার দক্ষিণ রাজপুর গ্রামের মাঝের চর এলাকার কৃষক জাকির হোসেনের দুটি গরু মারা যায়।

রাঙামাটি : জেলার কাউখালী উপজেলায় বজ্রপাতে সোহেল বিকাশ চাকমা (৩৮) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। গত মঙ্গলবার রাতে উপজেলার ঘাগড়া ইউনিয়নের হাজাছড়ি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সোহেল বিকাশ চাকমা হাজাছড়ি গ্রামের ইনন্ত চাকমার ছেলে। মধ্যরাতে ভারী বৃষ্টি ও বজ্রপাত শুরু হলে গোয়ালঘরে গরু দেখতে বের হন সোহেল। সেখানেই রাত ২টার দিকে বজ্রপাতে মারা যান তিনি।

দিনাজপুর : জেলার সদর উপজেলায় বজ্রপাতে শাহাদত হোসেন নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন আরো একজন। শাহাদত হোসেন (৩৫) উপজেলার আস্করপুর ইউনিয়নের সরস্বতীপুর গ্রামের মোশাররফ হোসেনের ছেলে। একই এলাকার বাসিন্দা আহত তৈয়বুর রহমানের বাবার নাম শরিফউদ্দিন। দুপুরে বৃষ্টিপাতের সময় পুলহাট থেকে জমির আইল দিয়ে বাড়ি ফেরার সময় বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই মারা যান শাহাদত। এ সময় আহত হন তার একটু দূরে থাকা তৈয়বুর। তাকে দিনাজপুর এম আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গাইবান্ধা : জেলার পলাশবাড়ী উপজেলার জামালপুর গ্রামে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বজ্রপাতে ফয়সাল মিয়া (১৪) নামে এক স্কুলছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। সে ওই গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে এবং পলাশবাড়ী স্টুডেন্ট কেয়ার সেন্টারের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র ছিল। ঘটনার সময় ফয়সাল জমিতে ছিল।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads