• সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬
সীতাকুণ্ডে ছেলেধরার হাত থেকে অল্পের জন্য রক্ষা পেল শাওন

নিজ চেষ্টায় সাহসিকতায় ছেলেধরার হাত থেকে রক্ষা পেল মাদ্রাসা ছাত্র শাওন

ছবি : বাংলাদেশের খবর

সারা দেশ

সীতাকুণ্ডে ছেলেধরার হাত থেকে অল্পের জন্য রক্ষা পেল শাওন

  • সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ২২ জুলাই ২০১৯

সীতাকুণ্ডে ছেলে ধরার হাত থেকে সাহসিকতায় পালিয়ে রক্ষা পেল শাওন (১৩)।

আজ সোমবার সকাল ১১ টায় সীতাকুণ্ড বাসস্টান্ডে এই ঘটনা ঘটে।

শাওন ছোট কুমিরা দেলিপাড়া গ্রামের প্রবাসী আব্দুল মোতালেবের কনিষ্ট পুত্র। এবং সে কুমিরা আরবী মাদ্রাসার ৭ম শ্রেণীর ছাত্র। 

জানা যায়, প্রতিদিনের মত সোমবার সকাল ১০টায় তার নিজ গ্রাম গুল আহম্মদ জুট মিলের সামনে থেকে উত্তরমুখী সেইফ লাইন গাড়িতে উঠে। গাড়িতে উঠার সাথে সাথে মাক্স পড়া একটি লোক তার মুখে রুমাল চেপে ধরে অজ্ঞান অবস্থায় সীতাকুণ্ড চলে আসে। সীতাকুণ্ড হাইওয়ে বাসস্টান্ডে নেমে তার হাত ধরে টেনে নেয়ার সময় তার জ্ঞান ফিরে আসে এবং সে দক্ষিণমুখী দৌড় দেয়। এক পর্যায়ে বাজারে ঢুকে পড়ে একটি টেক্সীর সামনে কাঁদতে থাকে। বাজারের দোকানদার স্বপন এবং বেশ কয়েকজন দোকানী এবং পথচারী ছেলেটিকে বাজার কমিটির অফিসে নিয়ে যায়। এবং ছেলেটির দেয়া মোবাইল নং নিয়ে পরিবারের কাছে খবর দেয়। অন্যদিকে এই খবর ছড়িয়ে পড়লে খবর পেয়ে সীতাকুণ্ড থানা পুলিশের এসআই আব্দুল মজিদ বাজার কমিটির অফিসে এসে তাকে থানায় নিয়ে যায়।

শাওন কেঁদে কেঁদে বলেন, আমি মাদ্রাসা যাওয়ার জন্য সেইফ লাইনে উঠার সাথে সাথে একটি লোক আমার মুখে রুমাল দিলে আমি ঘুমিয়ে পড়ি, জেগে দেখি সীতাকুণ্ড বাসস্টান্ড, তখন আমার মাথা ব্যথা করছিল এবং একটি লোক আমার হাত ধরে উত্তর দিকে টানছিল। আমি ওর হাত থেকে ছুটে দক্ষিণ দিকে দৌড় দিলে লোকটি উত্তর দিকে দৌড় দেয়।

সীতাকুণ্ড মডেল থানার এসআই আব্দুল মজিদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, বাজার কমিটির অফিস থেকে আমরা ছেলেটিকে থানায় নিয়ে আসি এবং ছেলেটির অভিবাবক (বড়ভাই) থানায় আসলে তাকে তাদের জিম্মায় তুলে দেই।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads