• শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
সুবিধাবঞ্চিত লাকসাম গুচ্ছ গ্রামের তিন শতাধিক পরিবার

ছবি : বাংলাদেশের খবর

সারা দেশ

সুবিধাবঞ্চিত লাকসাম গুচ্ছ গ্রামের তিন শতাধিক পরিবার

  • কুদরত উল্যাহ, লাকসাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ১৭ নভেম্বর ২০১৯

ভালো নেই লাকসাম গুচ্ছ গ্রামের বাসিন্দারা। এ গুচ্ছ গ্রামে ৩০০টি পরিবার নারী-পুরুষ, বৃদ্ধা ও শিশু সহ তিন সহস্রাধিক লোকের বসবাস। এ পরিবার গুলোর মাথা গোঁজার ঠাঁই হলেও হয়নি কর্ম সংস্থানের ব্যবস্থা। ফলে জীবিকার অভাবে এ গুচ্ছ গ্রামবাসী খেয়ে না খেয়ে দিন কাটাতে হচ্ছে। সুযোগ-সুবিধা বঞ্চিত হয়ে মানবেতর দিন কাটাচ্ছেন এখানকার বাসিন্দারা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ২০১০-১১ এবং ২০১২-১৩ অর্থবছরে উপজেলার লাকসাম উপজেলার নরপাটি ও কৃষ্ণপুর গ্রামে দু’টি আশ্রয়ণ প্রকল্প নির্মাণ করা হয়। ওই দু’টি আশ্রয়ণ প্রকল্পে ১৭০টি পরিবারের বসবাসের সুযোগ থাকলেও এসব পরিবারের সদস্য সংখ্যা প্রায় ৯০০। অপর দিকে প্রায় ২০১১-১২, ২০১২-১৩, ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে উপজেলার নরপাটি, সালেপুর, কাগৈয়া গ্রামে স্থাপিত হয় তিনটি গুচ্ছ গ্রাম। ওই গুচ্ছ গ্রামে ১৫০ পরিবার মাথা গোঁজার ঠাঁই পেলেও এখানে প্রায় ৮০০ লোকের বসবাস।

সরেজমিনে আশ্রয়ণ প্রকল্প ও গুচ্ছ গ্রাম ঘুরে বাসিন্দাদের দুঃখ-দুর্দশার চিত্র চোখে পড়ে বাংলাদেশের খবরের। গুচ্ছ গ্রামবাসীদের অভিযোগ নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করে দায়সারা ভাবে নির্মাণ করা হয়েছে ঘরগুলো। গ্রামে রয়েছে বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট। কর্মসংস্থানে অভাবে কয়েকটি পরিবার পাড়ি জমিয়েছে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। এ গুচ্ছ গ্রামে বিদ্যুৎ সংযোগ থাকলেও প্রতিবছর সরকারের স্যোলার প্যানেল প্রকল্পের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সোলার প্যানেল অনেক গ্রামে বিনা মূল্যে বিতরণ করা হয়ে থাকে। কিন্তু এ গুচ্ছ গ্রামের ভাগ্যে জোটেনি কোন সোলার প্যানেল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গ্রামের বিধবা আক্ষেপ করে বললেন, সরকারের দেওয়া সোলার প্যানেল উপজেলার বিভিন্ন গ্রামগঞ্জে প্রভাবশালীদের বাড়িতে শোভা পাচ্ছে। কিন্তু আমাদের দিকে কারো নজর নাই।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে আশ্রয়ণ প্রকল্পের সভাপতি আব্দুর রহামন বলেন, সরকার ভূমিহীনদরে আশ্রয়ের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। তবে এখানকার বাসিন্দারা বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত। লাকসাম (পূর্ব) নরপাটি ইউপি চেয়ার আলী আহাম্মদ বলেন, প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করেছি। লাকসামের উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে কথা হলে তিনি জানান আশ্রয়ণ ও গুচ্ছ গ্রামের কোন বাসিন্দা বঞ্চিত থাকেলে তাদের সুযোগ-সুবিধা আনা হবে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads