• রবিবার, ৭ জুন ২০২০, ২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
ads
হিলি স্থলবন্দর দিয়ে যাত্রী পারাপার বন্ধ

ফাইল ছবি

সারা দেশ

হিলি স্থলবন্দর দিয়ে যাত্রী পারাপার বন্ধ

  • মো. শাহাদৎ হোসেন শাহ, দিনাজপুর
  • প্রকাশিত ১৫ মার্চ ২০২০

করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় ট্যুরিস্ট ভিসাসহ বিভিন্ন দেশের সব ভিসা স্থগিতের পর হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে গতকাল শনিবার সকাল থেকে দুই দেশের পাসপোর্টধারী যাত্রী পারাপার সাময়িক বন্ধ থাকবে এমন কথাই জানিয়েছে ভারতীয় ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ।  হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে গড়ে প্রতিদিন ৫০০ থেকে ৬০০ যাত্রী চিকিৎসা, ভ্রমণ, ব্যবসা, শিক্ষাসহ নানা কাজে ভারত-বাংলাদেশে যাতায়াত করে থাকেন।

সম্প্রতি ভারত সরকার ট্যুরিস্ট ভিসা বন্ধ করে দিয়েছে, এরপর যাত্রী পারাপারেও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। এদিকে হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে গতকাল সকাল থেকে আগমন ও বহির্গমন দুটোই মৌখিকভাবে সাময়িক বন্ধ রাখবে।

ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের ওসি সেকেন্দার আলী বলেন, শুক্রবার সকাল থেকে বিকেল সাড়ে ছয়টা পর্যন্ত যাত্রী পারাপার স্বাভাবিক ছিল। বিকেল সাড়ে ছয়টা পর্যন্ত আগমন করে বাংলাদেশি ৩১৫ জন, ভারতীয় ৯১ ও বিদেশি নাগরিক ১ জন। বহির্গমন করে বাংলাদেশি ৩২৩ জন, ভারতীয় ১০৩ জন, পাসপোর্টধারী যাত্রী। তিনি আরও জানান, ওপারে ভারতীয় ইমিগ্রেশন ওসির সঙ্গে মোবাইল ফোনে তথা হয়েছে তাদের কাছে এখন পর্যন্ত কোনো নির্দেশনা আসেনি। তবে তারা সকাল থেকে আগমন ও বহির্গমন যাত্রী পারাপার সাময়িক বন্ধ রাখবেন। এবং ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা মোতাবেক পরবর্তী কার্যক্রম চালাবেন। ভারতে আটকা পড়া বাংলাদেশি ও বাংলাদেশে আটকে পড়া ভারতীয় নাগরিকদের প্রবেশে অনুমতির ব্যাপারে ভারতীয় ইমিগ্রেশমন ওসি জানান পরবর্তী নিদেশনার ওপর নির্ভর সবকিছু নির্ভর করছে।

সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন জানান, পাসপোর্টধারী যাত্রীদের কাছ থেকে প্রতিদিন দেড় থেকে দুই লাখ টাকা রাজস্ব আয় হয়। যাত্রী পারাপার বন্ধ হলে এই পরিমাণ রাজস্ব হারাবে সরকার। তবে আমদানি-রপ্তানি বন্ধের কোনো নির্দেশনা আসেনি।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads