• বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭
ads
একযুগ পর লক্ষ্মীপুর মজুচৌধুরীর হাট ফেরীঘাটের নতুন ইজারাদার 

প্রতিনিধির পাঠানো ছবি

সারা দেশ

একযুগ পর লক্ষ্মীপুর মজুচৌধুরীর হাট ফেরীঘাটের নতুন ইজারাদার 

  • লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ০২ জুলাই ২০২০

লক্ষ্মীপুর মজুচৌধুরী হাট ফেরীঘাট ইজারার কাগজপত্র নতুন ইজারাদারকে হস্তান্তরের মাধ্যমে দীর্ঘ একযুগের অবসান ঘটল।

এর আগে, এ ঘাটের দায়িত্বে ছিলেন আলমগীর হোসেন ওরফে আলমগীর মেম্বার। প্রায় ১২ বছর এ ঘাট তার নিয়ন্ত্রণে ছিল।

চলতি অর্থ বছরে লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদ থেকে ফেরীঘাটের ইজারা পান চররমনী ইউনিয়নের বাসিন্দা বাবুলমিয়া। তিনি ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো: আবু ইউসুফের ভাতিজা।

বুধবার চেয়ারম্যান মো. আবু ইউসুফের উপস্থিতিতে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার মজুচৌধুরীরর হাট ফেরীঘাটের দায়িত্ব বুঝে নিয়েছেন ইজাড়া গ্রহিতা বাবুলমিয়া। 

ব্যাপক নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে বিপুল সংখ্যক অাইনশৃঙ্খলাবাহিনির উপস্থতিতে জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে সামাজিক দুরত্ববজায় রেখে আনুষ্ঠানিক ভাবে ইজাড়াগ্রহিতাকে ঘাটের দায়িত্ব বুঝিয়ে দেন সার্ভেয়ার মো. মিজানুর রহমান।

এ সময় স্থানীয় লোকজন ও লঞ্চযোগে ভোলা-বরিশাল থেকে আগত এবং লক্ষ্মীপুর থেকে ভোলা-বরিশালে গমনের উদ্দেশ্য লঞ্চ অপেক্ষামান যাত্রীদের উপস্থিতি দেখা যায়।


জানা গেছে, ২০২০-২১ অর্থ বছরের জন্য মজু চৌধুরীহাট ঘাটের ইজাড়া পান স্থানীয় চেয়ারম্যান আবু ইউসুফের ভাতিজা বাবুল মিয়া। 


এর আগে ঘাটের দায়িত্বে ছিলেন চেয়ারম্যান আবু ইউসুফের প্রতিদ্বন্ধী ও জেলা পরিষদের সদস্য মো. আলমগীর। 


অভিযোগ রয়েছে, বিগত ১০-১২ বছর ধরে ইজারা ছাড়া ঘাটের অবৈধ দখলদার ছিলেন আলমগীর হোসেন ওরফে আলমগীর মেম্বার। কিন্ত চলতি অর্থ বছরে ইউসুফের ভাতিজা বাবুল মিয়া ঘটের ইজারা নেওয়ায় সরে যেতে হলো আলমগীর মেম্বারকে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads