• বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৯ আশ্বিন ১৪২৭
ads
‘লৌহজং টার্নিং খুলে দেওয়ার চেষ্টা চলছে’

প্রতিনিধির পাঠানো ছবি

সারা দেশ

‘লৌহজং টার্নিং খুলে দেওয়ার চেষ্টা চলছে’

  • মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০

দক্ষিণবঙ্গের শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটের ফেরী পারাপারের চ্যানেলের মুন্সীগঞ্জের লৌহজং টার্নিং পয়েন্ট আগামী দুই দিনের মধ্যে খুলে দেওয়ার চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে পদ্মা অববাহিকার নতুন ও পুরাতন কয়েকটি নৌ-চ্যানেল পরিদর্শনে এসে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার শিমুলিয়া ঘাটে তিনি এ কথা জানান।

তিনি বলেছেন, ৮ দিন এক টানা নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ ছিল। বিআইডব্লিউটিএর কর্মীরা অক্লান্ত পরিশ্রম করে নৌরুটে ফেরি চলাচল চালু করে। কিন্তু দুর্ভাগ্য যে এক রাতের মধ্যে চর ভেঙ্গে নৌ-চ্যানেল বন্ধ হয়ে গেছে।

এ সময় তিনি কয়েকটি বিকল্প চ্যানেল পরিদর্শনের কথা উল্লেখ করেন জানিয়েছেন, পরিকল্পনা চলছে এ চ্যানেলটিকে অক্ষত রাখার জন্য কি করা যায়। লৌহজং টার্নিং দুইদিনের মধ্যে খুলে দেওয়ার চেষ্টা চলছে। ইতোমধ্যে সেখানে ড্রেজার কাজ করছে। এছাড়া প্রায় এক কিলোমিটার দীর্ঘ হাজরারচর একটি বিকল্প চ্যানেল রয়েছে। সেখানে ড্রেজিং করার পরিকল্পনা আছে। যা ড্রেজিং করলে চালু করতে পারবো। কিন্তু এগুলো করতে সময় লাগবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, নৌ-পরিবহন মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব অনল চন্দ্র রায়, বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেক, বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যান খাঁজা মিয়া, বিআইডব্লিউটি’র চিফ ইঞ্জিনিয়ার (ড্রেজিং) আব্দুল মতিন, পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান আব্দুল কাদের প্রমুখ।

নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, লৌহজং চ্যানেল কিন্তু অনিশ্চিত। কেননা পাশেই ভাঙ্গন চলছে। যে কোনো সময় বন্ধ হয়েও যেতে পারে। তাই ২৮ কিলোমিটার দীর্ঘ পালেরচর চ্যানেল হয়ে জনগণের জরুরি প্রয়োজনের জন্য ফেরি চালুর ব্যবস্থা করা হয়েছে। অ্যাম্বুলেন্সের মতো জরুরি যানবাহন ছাড়া অন্যদের এ নৌপথ ব্যবহার করতে নিরুৎসাহিত করবো। অনুরোধ করা হচ্ছে পাটুরিয়া নৌরুট ব্যবহার করার।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads