• বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১২ ফাল্গুন ১৪২৭
আখাউড়া জমজমাট মাইক ব্যবসা

প্রতিনিধির পাঠানো ছবি

সারা দেশ

পৌরসভা নির্বাচন

আখাউড়া জমজমাট মাইক ব্যবসা

  • আখাউড়া (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ২৭ জানুয়ারি ২০২১

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া  পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে প্রার্থীদের প্রচারণা এখন তুঙ্গে। পাড়া মহল্লা আর মোড়ে মোড়ে চলছে মাইকিং। ভোট প্রচারণায় মাইকের স্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠেছে চারপাশ। তাই মাইকের দোকানগুলোতে বেশ ব্যস্ততা লক্ষ্য করা যায়। প্রার্থীরা দুপুর ২টা থেকে মাইকযোগে চালিয়ে যাচ্ছে তাদের প্রচারণা। এতে ব্যবসা বেড়েছে মাইকের দোকান দানদের। পাশাপাশি ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রচারকর্মী ও অটোরিকশা চালকরা। বুধবার প্রার্থীরা প্রতীক পাওয়ার পর দুপুর থেকে শুরু হয়েছে তাদের মাইকে প্রচারনা।

ওইসব প্রচারনায় আর স্লোগানে স্থান পেয়েছে ‘উড়ছে পাখি দিচ্ছে ডাক, অমুক ভাই জিতে যাক,’‘মা বোনদের বলে যাই মার্কায় ভোট চাই ‘অমুক ভাইয়ের সালাম নিন, তমুক মার্কায় ভোট দিন’ আরও কতো বাহারি স্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠেছে চারপাশ। শহর পাড়া কিংবা মহল্লা সব জায়গায় মাইকের প্রচারণা এখন তুঙ্গে চলছে। পাশাপাশি  মাইকের কদর ও বাড়ছে বেশ। অধিক চাহিদার কারনে কোন কোন জায়গায় মাইকের বর্ধিত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে।

সড়ক বাজার মহসীন ইলেকট্রনিক্সের মালিক মো. মহসীন মিয়া বলেন, উন্নত প্রযুক্তির ডিজিটাল সাউন্ড সিষ্টেমের কারণে প্রার্থীদের কাছে মাইকের চাহিদা বেশ ভালো রয়েছে। প্রতীক পাওয়ার আগেই প্রার্থীরা তার দোকানের মাইকগুলো বুকিং করেছে।  তাই প্রতীক পাওয়ার পর শুরু হয়েছে প্রার্থীদের মাইকিং। তবে নির্বাচন উপলক্ষে মাইক ভাড়া ভালই চলছে। আগে যেখানে এক সেট মাইক ভাড়া হতো ৬০০ টাকায়। এখন ৮শ টাকায় ভাড়া হচ্ছে। নির্বাচন ছাড়া ইসলামী ওয়াজ মাহফিল, সভা সমাবেশ ও মৃত্যুর প্রচার কিংবা সনাতন ধর্মীয় অনুষ্ঠান ছাড়া বছরের অন্যান্য সময়ে মাইকের তেমন চাহিদা থাকে না। সারা বছর প্রায় বসেই থাকতে হয়। নির্বাচনকে ঘিরে বর্তমানে মাইকের ভালো চাহিদা রয়েছে। এ কারণে নির্বাচনের আগেই মাইকগুলো ঠিকঠাক করে প্রস্তুত রেখেছি। আশা করছি এবার ব্যবসা ভালো হবে।

প্রার্থীদের প্রচারকর্মীরা প্রচারণার কাজে ব্যবহার করছেন ইঞ্জিনচালিত অটো রিকশা ও ইজিবাইক। তারা ও বাড়তি আয় করছেন। প্রচারকর্মী মো. ফারুক বলেন, দুপুর থেকে সন্ধ্যা পযর্ন্ত কোন প্রার্থীর মাইকিং করলে  ৬-৭শ টাকা পাওয়া যায়। তাই অন্য কাজ ছেড়ে নির্বাচনী প্রচার প্রচারনার কাজ করছি। অন্য সময় এ কাজ করলে ৩-৪শ টাকা পাওয়া যেতো।

প্রচারকর্মী বাবু বলেন, প্রায় সময় খেলাধুলাসহ রাজনৈতিক বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাইকিং করা হয়। কিন্তু এই পৌরসভা নির্বাচনে অনেক প্রার্থী আগ থেকেই বলে রেখেছেন। তাই প্রচারের কাজ করছি।

 

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads