• মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads

মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত

ক্রিকেট

টেস্টে ফিরলেন সৈকত, চমক নাঈম

  • ক্রীড়া প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ২৬ জানুয়ারি ২০১৮

ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালের ডামাডোলের মাঝেই শুক্রবার সকালে প্রথম টেস্টের দল ঘোষণা করেছে বিসিবি। দলে একমাত্র নতুন মুখ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে নিউজিল্যান্ডে থাকা নাঈম। ১৪ সদস্যের দলে ফিরেছেন মোসাদ্দেক হোসেন ও কামরুল ইসলাম রাব্বি। ছুটিতে থাকা সাকিব আল হাসানের ফেরা অবধারিতই ছিল। এই সিরিজ দিয়েই শুরু হচ্ছে টেস্ট নেতৃত্বে তার নতুন অধ্যায়।

সবশেষ দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের ১৫ সদস্যের টেস্ট দল থেকে বাদ পড়েছেন তাসকিন আহমেদ, শফিউল ইসলাম, শুভাশিস রায় চৌধুরী, সৌম্য সরকার ও সাব্বির রহমান।

নিজে ভালো বোলিং করেছেন। তবে যুব বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে হেরে গেছে দল। নিউজিল্যান্ডের কুইন্সটাউনে নিশ্চয়ই মন খারাপ করেই ছিলেন নাঈম হাসান। এর মধ্যেই পেলেন চমক জাগানিয়া খবর। বাংলাদেশের ক্রিকেট আঙিনাতেও যেটি এসেছে বড় চমক হয়ে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম টেস্টের বাংলাদেশ দলে জায়গা পেয়েছেন ১৭ বছর বয়সী এই অফ স্পিনার।

নাঈম ইসলাম
নাঈম ইসলাম

নাঈম প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে খেলেছেন মাত্র ৪টি ম্যাচ। উইকেট ৯টি। তবে দীর্ঘদেহী অফ স্পিনারের দিকে বেশ কিছুদিন থেকেই চোখ ছিল নির্বাচকদের। অস্ট্রেলিয়া সফরের আগে চট্টগ্রামে জাতীয় দলের প্রস্তুতি ক্যাম্পেও রাখা হয়েছিল তাকে। সেখানে তার বোলিং মুগ্ধ করেছিল নির্বাচকদের। যদিও এখনই সর্বোচ্চ পর্যায়ে খেলার সামর্থ্য নিয়ে প্রশ্ন থাকছেই। নির্বাচকদের বিশ্বাস, সেই সামর্থ্য নাঈমের আছে।

দলে ফেরা কামরুল সবশেষ টেস্ট খেলেছেন ভারতের বিপক্ষে হায়দরাবাদে। ৫ টেস্ট খেলে তার উইকেট ৭টি। গত মার্চে শ্রীলঙ্কা সফরে টেস্ট অভিষেকে ৭৫ রানের ইনিংসটি খেলার পর আর সুযোগ পাননি মোসাদ্দেক। চোখের সংক্রমণের কারণে খেলতে পারেনি অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজে, যেতে পারেননি দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে। বিপিএলে খেললেও চোখের সমস্যার কারণ দেখিয়েই রাখা হয়নি চলতি ত্রিদেশীয় সিরিজের দলে। এই সময়টায় খেলেছেন বিসিএলের তিন রাউন্ডে। সেঞ্চুরি করেছেন প্রথম রাউন্ডে। এখন তার উন্নতিতে সন্তুষ্ট নির্বাচকেরা।

অনেক আশা নিয়ে টেস্টে নামিয়ে দেওয়া তাসকিন প্রত্যাশা পূরণ করতে পেরেছেন সামান্যই। ৫ টেস্টে নিয়েছেন ৭ উইকেট। সবশেষ দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে একমাত্র টেস্টে ছিলেন উইকেটশূন্য আর খরুচে। তাই হারাতে হলো জায়গা।

টেস্টে সাব্বিরের শুরুটাও ছিল আশ জাগানিয়া। প্রথম তিন টেস্টে পঞ্চাশ ছুঁয়েছিলেন তিনবার। তবে পরের ৭ টেস্টে ফিফটি করেছেন মোটে আর একটি। বারবার আউট হয়েছেন থিতু হয়ে। সবশেষ দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে দুই টেস্টে রান ছিল ৩০, ৪, ০ ও ৪। খেসারত দিলেন জায়গা হারিয়ে।

সৌম্য সরকার গত বছর টেস্ট দলে ফেরার পর দারুণ শুরু করেছিলেন। ক্রাইস্টচার্চে ফেরার টেস্টে করেছিলেন ৮৬ ও ৩৬। পরে শ্রীলঙ্কা সফরে করেছিলেন ২ টেস্টে তিন ফিফটি। তবে বছরের শেষ ভাগে ভালো করতে পারেনি। সবশেষ ৭ ইনিংসে নেই কোনো ফিফটি। অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে তাকে মনে হয়েছে ছন্নছাড়া। ত্রিদেশীয় সিরিজ দিয়ে জায়গা হারিয়েছেন ওয়ানডে দলে। এবার হারালেন টেস্টেও।

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ব্লুমফন্টেইন টেস্টে ৩ উইকেট নিয়েছিলেন শুভাশিস রায়, দুটি শফিউল। তবে দুজনই ছিলেন খরুচে। দুজনকেই বাইরে রেখেছেন নির্বাচকেরা। কামরুল ইসলাম রাব্বি দল থেকে বাদ পড়ার পর আহামরি কিছু করেননি। তবে দেশের উইকেটে তার পেস বোলিং বেশি কার্যকর হবে বলে মনে করছেন নির্বাচকেরা। চট্টগ্রামে প্রথম টেস্ট শুরু আগামী বুধবার।

বাংলাদেশ দল: সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), মাহমুদউল্লাহ (সহ-অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, লিটন কুমার দাস, মুশফিকুর রহিম, মুমিনুল হক, মোসাদ্দেক হোসেন, তাইজুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান, কামরুল ইসলাম রাব্বি, মেহেদী হাসান মিরাজ, রুবেল হোসেন, নাঈম হাসান।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads