• শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২০১৮

‘ফাইনালের এখনো সুযোগ আছে’

মাশরাফি বিন মর্তুজা

সংগৃহীত ছবি

ক্রিকেট

‘ফাইনালের এখনো সুযোগ আছে’

ভারতের কাছে ৭ উইকেটে হার বাংলাদেশের

  • স্পোর্টস রিপোর্টার
  • প্রকাশিত ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮

কী দারুণ শুরু। ফেভারিট শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ১৩৭ রানের দাপুটে জয়। অথচ পরের দুই ম্যাচেই বিধ্বস্ত, যেন অসহায় আত্মসমর্পণ। টিম বাংলাদেশ নিয়ে এমন দুর্দশাগ্রস্ত চিত্র কেউ কল্পনা করেনি। গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে আফগানিস্তানের সঙ্গে ১৩৬ রানের হার। সান্ত্বনা- এই ম্যাচের গুরুত্ব তেমন ছিল না। ফলে বিশ্রামে ছিলেন মুশফিক ও মোস্তাফিজ। কিন্তু সুপার ফোরের প্রথম ম্যাচে ভারতের কাছে সাত উইকেটের হারে টাইগারদের আত্মবিশ্বাস এখন তলানিতে। এশিয়া কাপের ফাইনাল এখনই যেন দূরের বাতিঘর। ফাইনাল খেলতে হলে ঝকঝকে পারফরম্যান্সের বিকল্প নেই। সে জন্য হারাতে হবে পরের দুই ম্যাচে আফগানিস্তান ও পাকিস্তানকে। কতটা বন্ধুর এই পথ, তা বলাই বাহুল্য।

সুপার ফোর পর্বে ভারত ও পাকিস্তান নিজ নিজ ম্যাচে জয় পেয়েছে। আজ বাংলাদেশ মোকাবেলা করবে আফগানিস্তানের। এই ম্যাচে জয়ী দল ফাইনালের আশা জিইয়ে রাখবে। তবে পরাজিত দলের বিদায়ঘণ্টা বাজবে এক ম্যাচ হাতে রেখেই। অন্যদিকে আজ আরেকটি পাক-ভারত মহারণের অপেক্ষায়। ম্যাচটি হবে দুবাইয়ে। বাংলাদেশ-আফগানিস্তান ম্যাচ আবুধাবিতে। দুটো ম্যাচই শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৫টায়।

টানা দুই হারে রীতিমতো বিপর্যস্ত এখন বাংলাদেশ দল। ফাইনালের আশা জিইয়ে রাখতে আজ আফগানদের বিরুদ্ধে জয়ের বিকল্প নেই। তবে এই মুহূর্তে আফগানরা রয়েছে বেশ ফর্মে। বাংলাদেশের সঙ্গে দাপুটে জয়ের পর যদিও পাকিস্তানের সঙ্গে লড়াই করে হেরেছে তারা। তবে বাংলাদেশকে নিয়ে এখনো ফাইনালের সুযোগ দেখছেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। তিনি মনে করেন, ভালো খেললে এখনো ফাইনাল খেলা সম্ভব।

ভারতের বিপক্ষে হারের পর সংবাদ সম্মেলনে সেই আশার কথা শুনিয়েছেন নড়াইল এক্সপ্রেস, ‘আমরা টুর্নামেন্ট থেকে এখনো ছিটকে যাইনি। ভালো করে ঘুরে দাঁড়ানোর এখনো সুযোগ আছে। একটা দিন সময় আছে পরের ম্যাচের আগে। নিজেদের একটু গুছিয়ে নিয়ে পরের ম্যাচে নামতে হবে।’ দুবাইয়ের তুলনায় আবুধাবির উইকেট কঠিন। তবু মাশরাফি আছেন ভালো দিনের আশায়, ‘আমার কাছে মনে হয় এখনো সম্ভব (ফাইনাল)। আমার কাছে মনে হয় এত হতাশ হওয়ার কিছু নেই। অবশ্যই দুটি ম্যাচে হার হতাশার। এটা কেউই চায়নি। বিশেষ করে এই ম্যাচের ফলাফলটা একটু বেশি হতাশার। কারণ গত ম্যাচের তুলনায় আজকের ম্যাচটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ ছিল। কিন্তু আজকেও আমাদের ব্যাটিংয়ে ধস নেমেছে। অবশ্যই হতাশার।’

তিনি আরো বলেন, ‘তবে আমাদের এখনো টুর্নামেন্টে ফেরার সুযোগ আছে। একটা ভালো দিনই সব বদলে যেতে পারে। আফগানিস্তানের সঙ্গে ম্যাচে যদি আমরা জিততে পারি, তাহলে ৫০-৫০ চান্স চলে আসবে। এরপর পাকিস্তানের সঙ্গে ম্যাচে জিতলে ভালো সুযোগ থাকবে (ফাইনালের)।’

সুপার ফোরের প্রথম ম্যাচে ভারতের কাছে এক প্রকার উড়েই গেছে বাংলাদেশ। আগে ব্যাট করতে নেমে ৪৯.১ ওভারে বাংলাদেশ অলআউট ১৭৩ রানে। দুই ওপেনার শান্ত (৭) ও লিটন (৭) যথারীতি ব্যর্থ। লঙ্কানদের বিরুদ্ধে সেঞ্চুরিয়ান মুশফিক এদিন ফিরলেন ২১ রান করে। সাকিবের সংগ্রহ ১৭। পারেননি মিঠুন (৯)। মাহমুদউল্লাহ (২৫) চেষ্টা করেছেন। তবে শেষের দিকে মাশরাফি ও মিরাজের ব্যাটেই দেড়শ রান অতিক্রম করতে পারে বাংলাদেশ। না হলে লজ্জাটা আরো বাড়ত। মাশরাফি করেন ২৬ রান। মিরাজের ব্যাটে আসে সর্বোচ্চ ৪২ রানের ইনিংস। জবাবে ভারত জয়ের বন্দরে পৌঁছায় ৩৬.২ ওভারে তিন উইকেট হারিয়ে (১৭৪)। সর্বোচ্চ ৮৩ রান করে অপরাজিত ছিলেন অধিনায়ক রোহিত শর্মা। ধাওয়ান ৪০, ধোনি ৩৩ রান করেন। বল হাতে বাংলাদেশের হয়ে সাকিব, রুবেল ও মাশরাফি নেন একটি করে উইকেট।

আজ বাংলাদেশের বাঁচামরার লড়াই আফগানদের বিরুদ্ধে। উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতার রেশ ধরে বাংলাদেশ থেকে উড়িয়ে নেওয়া হয়েছে অফ ফর্মে থাকা ইমরুল কায়েস ও সৌম্য সরকারকে। কতটা জ্বলে উঠতে পারবেন এই দুজন, তা বলা মুশকিল। তবে টাইগারদের সতেজ চেহারা দেখতে মুখিয়ে আছে অনেকেই।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads