• বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯, ৯ শ্রাবণ ১৪২৫
ads
আয়াক্সে ভূপাতিত রোনালদোরা

রোনালদো

ছবি : সংগৃহীত

ক্রিকেট

আয়াক্সে ভূপাতিত রোনালদোরা

  • স্পোর্টস ডেস্ক
  • প্রকাশিত ১৮ এপ্রিল ২০১৯

প্রথম লেগে আয়াক্সের মাঠে ড্র করতে ঘাম ছুটে গিয়েছিল জুভেন্টাসের। তবে নিজেদের আঙিনায় ফিরে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর গোলে সেমিফাইনালের স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছিল দলটি। কিন্তু দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ানো আয়াক্সের সঙ্গে শেষ পর্যন্ত পেরে ওঠেননি মাসিমিলিয়ানো অ্যালেগ্রির শিষ্যরা। জুভেন্টাসকে তাদের মাঠে হারিয়েই চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেরা চারে উঠেছে নেদারল্যান্ডসের দলটি।

জুভেন্টাস স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার রাতে কোয়ার্টার ফাইনালের ফিরতি লেগে ২-১ গোলে জিতে আয়াক্স। দুই লেগ মিলিয়ে ৩-২ অগ্রগামিতায় ১৯৯৬-৯৭ মৌসুমের পর এই প্রথম সেরা চারে জায়গা করে নিল দলটি।

দারুণ এই জয়ে ব্যর্থতার এক বৃত্ত থেকেও বেরিয়ে এলো আয়াক্স। আগের দশ দেখায় ইতালির দলটিকে কখনো হারাতে পারেনি তারা। ইয়োহান ক্রুইফ অ্যারেনায় দুই দলের প্রথম লেগের ম্যাচটি ১-১ ড্র হয়েছিল।

২১ মিনিটে দনি ফন দে বেকের শট ক্রসবারের ওপর দিয়ে গেলে আয়াক্সের ভালো একটি সুযোগ নষ্ট হয়। পরের মিনিটে পাওলো দিবালার ভলি গোলরক্ষক ফেরালে এগিয়ে যাওয়া হয়নি জুভেন্টাসেরও।

ছয় মিনিট পর রোনালদোর গোলে এগিয়ে যায় ১৯৯৫-৯৬ মৌসুমে সবশেষ চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জেতা জুভেন্টাস। মিরালেম পিয়ানিচের কর্নারে পর্তুগিজ ফরোয়ার্ডের হেড এক ড্রপ খেয়ে জালে জড়ায়। ডি-বক্সের মধ্যে আয়াক্সের এক খেলোয়াড় পড়ে যাওয়ায় রেফারি ভিএআর প্রযুক্তির সাহায্য নিলেও সিদ্ধান্ত বদলাননি।

প্রতিযোগিতায় টানা তৃতীয় ম্যাচে জালের দেখা পেলেন রোনালদো। আসরে পর্তুগিজ ফরোয়ার্ডের এটি ষষ্ঠ গোল। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসের রেকর্ড গোলদাতার মোট গোল হলো ১২৬টি।

৩৪ মিনিটে জুভেন্টাসের স্বস্তি কেড়ে নেয় নেদারল্যান্ডসের দলটি। ডি-বক্সের বাইরে থেকে হাকিমের জোরালো শট ডিফেন্ডারদের গায়ে লেগে পেয়ে যান ফন দে বেক; ঠান্ডা মাথায় লক্ষ্যভেদ করেন ২১ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড। আবারো ভিএআরের সাহায্য নেন রেফারি, কিন্তু গোলের সিদ্ধান্ত অটুট থাকায় দুই লেগ মিলিয়ে ২-২ সমতা ফেরে।

দ্বিতীয়ার্ধে একের পর এক আক্রমণে জুভেন্টাসকে কোণঠাসা করে রাখে আয়াক্স। ৫২ মিনিটে সতীর্থের ছোট পাস ধরে হাকিমের নেওয়া জোরালো শট ফেরান ভয়চেখ স্ট্যাসনি। পাঁচ মিনিট পর ফন দে বেকের শট বাঁক খেয়ে দূরের পোস্ট দিয়ে ঢোকার আগ মুহূর্তে ফিস্ট করে আবারো জুভেন্টাসের ত্রাতা পোল্যান্ডের এই গোলরক্ষক।

৬১ মিনিটে রোনালদোর তৈরি করে দেওয়া সুযোগ ময়জে কেন লক্ষ্যে রাখতে ব্যর্থ হন। এরপর দুইবার বেঁচে যায় জুভেন্টাস। তেদিচের বাড়ানো ক্রস হাকিমের কাছে পৌঁছানোর আগে বিপদমুক্ত করেন পিয়ানিচ। ৬৫ মিনিটে ডি-বক্সের মধ্যে তালগোল পাকিয়ে সুযোগ নষ্ট করেন ডি ইয়ং।

জুভেন্টাসের রক্ষণে চাপ ধরে রেখে ৬৭ মিনিটে এগিয়ে যায় ১৯৯৪-৯৫ মৌসুমের সবশেষ চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জেতা আয়াক্স। সতীর্থের কর্নার থেকে হেডে জাল খুঁজে নেন মাতাইস দি লিট। বাকিটা সময়ে কঠিন হয়ে যাওয়া সমীকরণ আর মেলাতে পারেনি জুভেন্টাস।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads