• বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৫
ads
প্রত্যাশিত জয়ের ম্যাচে বৃষ্টি শঙ্কা

ছবি : সংগৃহীত

ক্রিকেট

ব্রিস্টলে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা মুখোমুখি আজ

প্রত্যাশিত জয়ের ম্যাচে বৃষ্টি শঙ্কা

  • মাহমুদুন্নবী চঞ্চল
  • প্রকাশিত ১১ জুন ২০১৯

তিন ম্যাচে এক জয়। বাকি ছয় ম্যাচের মধ্যে চারটিতে জিততে পারলে টিকেট মিলবে সেমিফাইনালের। এই ছয় ম্যাচের মধ্যে সম্ভাব্য জয়ের তালিকায় বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ হিসেবে আছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান। অস্ট্রেলিয়া কিংবা ভারতের বিরুদ্ধে জয় কিংবা পয়েন্ট যোগ হলে তা বোনাস। জয়ের টার্গেট নির্দিষ্ট চারটি দলের ওপর। এর ব্যত্যয় হলে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে যাওয়ার প্রবল শঙ্কা। বিশ্বকাপে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে আজ মাঠে নামছে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষ এশিয়ারই দেশ শ্রীলঙ্কা। ব্রিস্টলে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বেলা সাড়ে তিনটায়।

প্রতিপক্ষ লঙ্কান শিবির। এই ম্যাচে জয়টা খুবই প্রত্যাশিত। আর সেটা শুধু ক্রিকেটার না, গোটা বাংলাদেশের আমজনতার। কিন্তু এমন ম্যাচে বড় শঙ্কা আর ভয়ের নাম বৃষ্টি। যা বাগড়া দিলে ক্ষতি হবে বাংলাদেশের। পূর্ণ দুটি পয়েন্ট খুবই দরকার। বৃষ্টির কারণে ম্যাচ পরিত্যক্ত হলে আসবে এক পয়েন্ট, যা টাইগারদের স্বপ্নে লাগবে ধাক্কা। 

বিশ্বকাপের আগে থেকেই বৃষ্টি বড় শঙ্কার নাম। কারণ বৃষ্টিরই মৌসুম এখন ইংল্যান্ডে। সব ভেন্যুতেই হচ্ছে কম-বেশি বৃষ্টি। তবে ব্রিস্টলের চিত্র ভিন্ন, বলা ভালো ভয়ংকর। কার্ডিফ কিংবা লন্ডনে যেখানে বৃষ্টি হয় গুঁড়িগুঁড়ি কিংবা ধীরে, সেখানে ব্রিস্টলে প্রবল বর্ষণ। যাকে বাংলায় বলে কুকুর-বিড়ালের লড়াই। ইতোমধ্যে এই ঝুম বৃষ্টির কারণে এই মাঠে পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ ধুয়ে গেছে। ম্যাচ পরিত্যক্ত। হয়েছে পয়েন্ট ভাগাভাগি। প্রকারান্তরে লাভ হয়েছে শ্রীলঙ্কার। আফগানিস্তানের সঙ্গে এক জয়, নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে হার; সব মিলিয়ে তিন পয়েন্ট নিয়ে তালিকায় পঞ্চম স্থানে লঙ্কান শিবির।

আবহাওয়ার পূর্বাভাস বলছে ব্রিস্টলে আজ বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা শতকরা ৮০ ভাগ। সঙ্গে থাকতে পারে শিলাবৃষ্টিও। আর যদি এমন হয়, তবে সেটি বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য মোটেই সুখকর নয়। আজকের ম্যাচে শুধু শ্রীলঙ্কা নয়, বাংলাদেশের মূল প্রতিপক্ষ যেন বৃষ্টিও।

হেড টু হেডের পরিসংখ্যানে শ্রীলঙ্কার পাল্লা ভারী। ৪৫ ম্যাচে বাংলাদেশের জয় মাত্র সাতটিতে। হার ৩৬টি। পরিত্যক্ত দুটি। বিশ্বকাপের পরিসংখ্যান আরো তিক্ততার। বৈশ্বিক মঞ্চে দুই দল পরস্পরের মোকাবেলা করেছে তিনবার। যেখানে তিনটিতেই জয় শ্রীলঙ্কার। প্রথম সাক্ষাৎ ২০০৩ বিশ্বকাপে, হার ১০ উইকেটে। দ্বিতীয় মোকাবেলা ২০০৭ বিশ্বকাপে, হারের ব্যবধান ১৯৮ রানে। ২০১৫ বিশ্বকাপে ৯২ রানের হার। প্রত্যাশিত জয় কীভাবে আসবে বাংলাদেশের?

প্রশ্নটা অমূলক নয়। তবে এর পেছনে আছে সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সের হিসাব-নিকাশ। সর্বশেষ পাঁচ লড়াইয়ে দুটিতেই জয় বাংলাদেশের। জয়ের ব্যবধান ১৬৩ ও ১৩৭ রানে। সর্বশেষ দুই দলের লড়াই গত বছর দুবাইয়ে এশিয়া কাপে। যেখানে লঙ্কানদের ১৩৭ রানে উড়িয়ে দিয়েছিল বাংলাদেশ। এমন সুখস্মৃতি আজ কাজে দেবে ব্রিস্টলে।

টাইগারদের আশা জাগানোর জন্য পরিসংখ্যান আরো আছে। আর সেটা হলো লঙ্কানদের সাম্প্রতিক ম্যাড়ম্যাড়ে পারফরম্যান্স। বিশ্বকাপে তাদের শুরু হয়েছে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ১০ উইকেটে হার দিয়ে। দ্বিতীয় ম্যাচে আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে ৩৪ রানে জয়, তাও বৃষ্টি আইনে। বিশ্বকাপের আগের ইতিহাসও খুব সুবিধার নয় লঙ্কানদের। 

পরিসংখ্যান জানাচ্ছে গত বিশ্বকাপের (২০১৫) পর থেকে সংক্ষিপ্ত ওভারের ক্রিকেটে (ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি) লঙ্কানদের বিপক্ষে ১৩ ম্যাচ খেলে ৭টিতেই জয়ী দলের নাম বাংলাদেশ। এছাড়া বিগত দিনগুলোতে খুব ভালো অবস্থানে নেই লঙ্কানরা। গত বিশ্বকাপের পর চার বছরে (চলমান বিশ্বকাপ বাদে) ৮৫ ওয়ানডে খেলায় শ্রীলঙ্কা জিতেছে ২৪টিতে। হার ৫৫টি। এক ম্যাচ টাই, পাঁচটি পরিত্যক্ত।

ক্রিকেটে এমন কথাও আছে, পরিসংখ্যান সব সময় কাগজেই সীমাবদ্ধ। নির্দিষ্ট দিনে ভালো খেলতে না পারলে জেতা যাবে না। ফলে বৃষ্টি বাগড়া না দিলে জয়ের জন্য লড়াইটা ভালো করতে হবে টাইগারদের সাবেক গুরু হাথুরুর বিরুদ্ধে। বাংলাদেশ স্কোয়াডে আজ পরিবর্তন আসতে পারে। দলের বাইরে চলে যেতে পারে মোহাম্মদ মিঠুন। অন্তর্ভুক্তি হতে পারেন গত এশিয়া কাপে দারুণ খেলা লিটন দাস।

ব্রিস্টলে ঝলমলে রোদের প্রত্যাশায় সবাই। গ্যালারিতে থাকবে প্রায় আট হাজার বাংলাদেশির সমর্থন। লাল-সবুজ পতাকা আর বাঘের প্রতিকৃতি নিয়ে মেতে উঠবে সবাই। প্রত্যাশিত জয় এলে ব্রিস্টলের প্রবাসী বাংলাদেশিদের উল্লাস-উল্লম্ফন রোমাঞ্চ জাগাবে সুদূর ৫৬ হাজার বর্গমাইলেও। 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads