• শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads
ভারত-কিউই ম্যাচ রিজার্ভ ডে’তে 

সংগৃহীত ছবি

ক্রিকেট

ভারত-কিউই ম্যাচ রিজার্ভ ডে’তে 

  • স্পোর্টস রিপোর্টার
  • প্রকাশিত ১০ জুলাই ২০১৯

ম্যাচের কয়েকদন আগে থেকেই শোনা যাচ্ছিল ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্র্যাফোর্ডের প্রথম সেমিফাইনাল বৃষ্টির কবলে পড়তে পারে। গতকাল মঙ্গলবার ম্যাচ শুরু হলে তা খুব একটা বোঝাও যায়নি। কিন্তু বৃষ্টি শুরু হয় নিউজিল্যান্ডের ইনিংস চলাকালে। টস জিতে ব্যাট করতে নামা নিউজিল্যান্ডের ইনিংসের ৪৭তম ওভারেই বৃষ্টি নামলে বন্ধ হয়ে যায় গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচটি। বৃষ্টির আগ মুহূর্ত পর্যন্ত ৪৬.১ ওভারে নিউজিল্যান্ড ৫ উইকেট হারিয়ে ২১১ রান করে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বৃষ্টি না কমায় খেলা রিজার্ভ ডেতে গড়াল। গতকাল যে অবস্থায় ম্যাচ শেষ হয়েছে, আজ বুধবার সেখান থেকেই তা শুরু হবে। টস জিতে স্কোর বোর্ডে একটা চ্যালেঞ্জিং স্কোর তোলার লক্ষ্যে শুরুতেই ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন কিউই অধিনায়ক। কিন্তু ভারতীয় বোলারদের সামনে যে গতিতে রান তুলেছেন তারা, তাকে কচ্ছপ গতির সঙ্গে তুলনা করলেও যেন কম করা হয়। শুরুতেই নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যানদের চেপে ধরেন ভারতীয় বোলাররা। বিশেষ করে দুই ওপেনিং বোলার ভুবনেশ্বর কুমার আর জসপ্রিত বুমরাহ। কিউইরা রানের খাতাই খোলেন প্রথম দুই ওভার মেডেন দিয়ে ইনিংসের ১৭তম বলে গিয়ে। তিন ওভার শেষে ১ রান। চতুর্থ ওভারে গিয়ে বুমরাহর বলে ব্যাটের কানায় লাগিয়ে থার্ড স্লিপে ক্যাচ দেন মার্টিন গাপটিল। বিরাট কোহলির হাতে ধরা পড়ে বিদায় নেন গাপটিল। ভারতীয় বোলাররা শুরু থেকেই যেভাবে চাপের মুখে রেখেছিল কিউইদের, সেটা ধরে রাখল তারা প্রায় শেষ পর্যন্ত।

৮৫ বলে ৬৭ রানে অপরাজিত আছেন রস টেলর। তার সঙ্গী ৪ বলে ৩ রান করা টম ল্যাথাম। ৯৬ বল খেলে ৬৭ রান করে আউট হন অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। এছাড়া হেনরি নিকোলস আউট হন ৫১ বলে ২৮ রান করে। আর নিশাম ১২ ও গ্র্যান্ডহোম ১৬ রান করেন।

ভারতের ভুবনেশ্বর ৩০ রানে, পান্ডিয়া ৫৫ রানে, চাহাল ৬৩ রানে, জাদেজা ৩৪ রানে ও বুমরাহ ২৫ রানে ১টি করে উইকেট লাভ করেন।

বৃষ্টির জন্য নিয়ম : লিগ পর্বে বেশ কয়েকটি ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেসে গেছে। বিশ্বকাপের নিয়ম অনুযায়ী, সেখানে মুখোমুখি দল দুটি ১ পয়েন্ট করে ভাগাভাগি করে নিয়েছে। কিন্তু সেমিফাইনাল ও ফাইনালে স্বাভাবিকভাবেই পয়েন্টের কোনো বিষয় নেই। সেজন্য সেমিফাইনাল ও ফাইনালের জন্য আছে রিজার্ভ ডে ও সুপার ওভার। নির্ধারিত দিনে খেলা শেষ না হলে ম্যাচ গড়াবে রিজার্ভ ডেতে। আইসিসি তাই দুই সেমিফাইনাল ও ফাইনালের মাঝে বিরতি রেখেছে। শেষ চারের নির্ধারিত দিনের সঙ্গে রিজার্ভ ডেতেও ফল নিষ্পত্তি না করা গেলে ম্যাচ গড়াবে সুপার ওভারে। এক ওভার করে লড়াইয়ে জয়ী দল চলে যাবে ফাইনালে। শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচেও চ্যাম্পিয়ন নির্বাচনে আছে সুপার ওভারের নিয়ম। কিন্তু সেমিফাইনালের লড়াইয়ে যদি সুপার ওভারও না হয়, তাহলে লিগ পর্বে পয়েন্টে এগিয়ে থাকা দল চলে যাবে ফাইনালে। বৃষ্টির কারণে রিজার্ভ ডে ও সুপার ওভারে ফল নিষ্পত্তি না করা গেলে দুই ফাইনালিস্ট ভাগাভাগি করে নেবে ট্রফি।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads