• রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ইংল্যান্ড না নিউজিল্যান্ড?

ছবি : সংগৃহীত

ক্রিকেট

বিশ্বকাপের ফাইনাল আজ

ইংল্যান্ড না নিউজিল্যান্ড?

  • ক্রীড়া প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১৪ জুলাই ২০১৯

এর আগে তিনবার হূদয় ভেঙেছে ইংলিশদের। ফাইনালে উঠেও হয়নি শিরোপায় চুমু আঁকা। চেয়ে চেয়ে দেখতে হয়েছে প্রতিপক্ষের উল্লাস। ২৭ বছর পর আবারো ফাইনালের মঞ্চে ইংল্যান্ড। শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচের ভেন্যু ঘরের মাঠ ক্রিকেটের তীর্থভূমি খ্যাত লর্ডস। আবারো স্বপ্নভঙ্গ নাকি স্বপ্নপূরণ? সব ফয়সালা হবে আজ। বিশ্বকাপের ফাইনালে আজ শিরোপার জন্য পাখির চোখ করে আছে মরগ্যান শিবির। প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড। প্রথমবারের মতো দুই ল্যান্ডের লড়াই। দুই দলের সামনেই প্রথম শিরোপা করায়ত্ত করার অপূর্ব সুযোগ। ফাইনালের আগে কথা হয়েছে বেশ। এবার দুই দলের ময়দানী লড়াইয়ের অপেক্ষা। বাংলাদেশ সময় বেলা সাড়ে ৩টায় শুরু হবে ইংল্যান্ড-নিউজিল্যান্ড মধ্যকার তুঙ্গস্পর্শী ফাইনাল।

বিশ্বকাপ ট্রফি ইংল্যান্ডের জন্য হাঁ-হুতাশের হলেও নিউজিল্যান্ডের জন্যও কম না। আজীবন সেমিফাইনালিস্ট দলের তকমা একটা সময় গায়ে লেপ্টে গিয়েছিল। গত বিশ্বকাপ থেকে সেই অপবাদ কিছুটা ঘুচেছে। ২০১৫ বিশ্বকাপের সহআয়োজক নিউজিল্যান্ড প্রথমবারের মতো উঠেছিল সেবার ফাইনালে। কিন্তু হূদয় ভাঙে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে। টানা দ্বিতীয়বারের মতো এবার ইংল্যান্ডের মাটিতে আবারো ফাইনালে কেন উইলিয়ামসনের দল। শিরোপায় চুমু খেতে তর সইছে না তাদেরও। শিরোপা যেই জিতুক, এবারের বিশ্বকাপে নতুন চ্যাম্পিয়ন পেতে যাচ্ছে ক্রিকেট বিশ্বকাপ, তা নিশ্চিত। দলটি নিউজিল্যান্ড না ইংল্যান্ড, তা জানা যাবে আজই। সেই সঙ্গে পর্দা নামবে ১২তম ওয়ানডে ক্রিকেট বিশ্বকাপেরও।

ধারে-ভারে আজকের ফাইনালে অনেকেই এগিয়ে রাখছেন ইংল্যান্ডকে। তার সুস্পষ্ট কিছু কারণও আছে। রাউন্ড রবিন লিগ পর্বে শুরুটা ভালো হলেও মাঝে ছন্দ হারিয়ে ফেলে ইংলিশরা। শেষদিকের ম্যাচগুলো তাদের জন্য ছিল ডু অর ডাইয়ের মতো। তেমন দুটি ম্যাচেই ভারত ও নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে সেমির টিকিট নিশ্চিত করে মরগানরা। দারুণ ধারাবাহিকতায় সেমিতেও দুরন্ত ইংল্যান্ড। হারিয়ে দেয় প্রবল প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়াকে।

তাই বলে নিউজিল্যান্ডকে বাতিলের খাতায় ফেললে তা হবে বোকামিই। দারুণ কিছু জয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু তাদেরও। পয়েন্ট তালিকায় চতুর্থ স্থানে থেকে সেমির খেলা নিশ্চিত হলেও শেষ চারের লড়াইয়েই নিউজিল্যান্ড দেখিয়েছে তাদের শক্তি, কৌশল। ভারতকে যারা আগাম ফাইনালের টিকিট দিয়েছিল, তাদের মুখে কালি মেখে কিউইদের উৎসব দেখা যায় ওল্ডট্রাফোর্ডে। রিজার্ভ ডেতে গড়ানো ম্যাচে ভারতকে ১৮ রানে হারিয়ে ফাইনালে উঠে আসে উইলিয়ামসন শিবির। আজকের ফাইনালে তাই নিউজিল্যান্ডও ফেভারিট। ক্রীড়া বিশ্লেষকদের মতে, ফাইনালে শিরোপা জেতার সম্ভাবনা দুই দলেরই ফিফটি ফিফটি।

কিন্তু হেড টু হেড বলছে ভিন্ন কথা। যেখানে এগিয়ে থাকছে নিউজিল্যান্ডই। ওয়ানডে ক্রিকেটে দুই দল মোকাবেলা করেছে ৯০টি ম্যাচে। যেখানে নিউজিল্যান্ডের জয় ৪৩টি। ইংল্যান্ডের জয় ৪১টি। বিশ্বকাপের পরিসংখ্যান থেকেও অনুপ্রেরণা পেতে পারে নিউজিল্যান্ড। নয়বারের দেখায় পাঁচ জয় কিউইদের। বাকি চার জয় ইংল্যান্ডের। বিশ্বকাপে দুই দলের শেষ দেখা চলমান টুর্নামেন্টেই। লিগ পর্বে বাঁচা-মরার ম্যাচে লড়াইয়ে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়েছিল ইংল্যান্ড। যা ছিল ১৯৮৩ বিশ্বকাপের পর কিউইদের বিরুদ্ধে প্রথম জয় ইংলিশদের। তার মানে এই ম্যাচের আগে বিশ্বকাপে টানা পাঁচ ম্যাচ নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে জয়ের স্মৃতি ছিল না ইংল্যান্ডের।

ক্রিকেট বোদ্ধাদের মতে, পরিসংখ্যান খাতা-কলমেই সীমাবদ্ধ। তার প্রভাব ম্যাচে কমই পরে। উল্টো পরিসংখ্যানের বাইরেও নির্দিষ্ট দিনে অনেক কিছুই ঘটতে পারে। বিশ্বকাপের ফাইনালও তার বাইরে নয়। তবে চমক লাগানো বিশ্বকাপে শেষ হাসিটা কে হাসবে, মরগ্যান না উইলিয়ামসন? সেটি দেখতেই উন্মুখ হয়েছে কোটি কোটি ক্রিকেট সমর্থক-ভক্ত-অনুরাগীরা।   

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads