• রবিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৫
ads
তামিমদের অনুশীলন শুরু

সংগৃহীত ছবি

ক্রিকেট

তামিমদের অনুশীলন শুরু

  • ক্রীড়া প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ২২ জুলাই ২০১৯

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের পর বাংলাদেশ ও স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা, উভয় দলের জন্যই প্রথম ওয়ানডে সিরিজ। তিন ম্যাচের সিরিজ খেলতে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোয় পৌঁছানো শুরু হয়েছে। গত শনিবার মূল অংশ নতুন অধিনায়ক তামিম ইকবালের নেতৃত্বে কলম্বোয় গিয়েছে। আজ সোমবারের মধ্যে বাকিদের কলম্বো পৌঁছানো শেষ হবে। গতকাল হালকা মেজাজে অনুশীলনও করেছেন তামিমরা। যেখানে ক্যাচ প্র্যাকটিসটাই ছিল বেশি।

শ্রীলঙ্কার স্থানীয় সময় শনিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে তামিমের নেতৃত্বে দলের সাতজন কলম্বো পৌঁছেন। এর আগে একই দিন দুপুরে শ্রীলঙ্কার উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেন তারা। তামিমের সঙ্গে শ্রীলঙ্কা যান উইকেটকিপার কাম ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম, ব্যাটসম্যান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ, ওপেনার সৌম্য সরকার, অলরাউন্ডার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও পেসার মোস্তাফিজুর রহমান। দলের বাকি সদস্যদের মধ্যে গতকাল রোববার শ্রীলঙ্কায় যান পেসার রুবেল হোসেন। এ ছাড়াও আজ সোমবার যাবেন ওপেনার এনামুল হক বিজয়, অলরাউন্ডার ফরহাদ রেজা, ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ মিঠুন ও সাব্বির রহমান। অন্যদিকে ভারত থেকে সরাসরি দলের সঙ্গে যোগ দেন পেসার তাসকিন আহমেদ ও স্পিনার তাইজুল ইসলাম। তাসকিন ও তাইজুল বাংলাদেশ সময় শনিবার রাত ১২টায় কলম্বো পৌঁছান। মিনি রঞ্জি ট্রফিতে বিসিবি একাদশের হয়ে খেলতে খেলতে তারা সেখানে গিয়েছিলেন।

শ্রীলঙ্কা সফরে দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশের ওয়ানডে দলের নিয়মিত অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার। কিন্তু হ্যামস্ট্রিংয়ের ইনজুরিতে পড়ায় মাশরাফির পরিবর্তে অধিনায়ক হিসেবে তামিম ইকবালকে বেছে নিতে হয় বোর্ডকে। আগামী ২৬ জুলাই শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশের মধ্যে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ওয়ানডে অনুষ্ঠিত হবে। এরপর ২৮ ও ৩১ জুলাই দ্বিতীয় ও তৃতীয় ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। সবগুলো ম্যাচই কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের জন্য দ্বীপ রাষ্ট্রে মজুত করা হয়েছে সর্বোচ্চ পর্যায়ের নিরাপত্তা। হোটেলে বাংলাদেশ দলের জন্য মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত নিরাপত্তা। পাশাপাশি মোটরক্যাডের জন্য মজুত করা হয়েছে সশস্ত্র নিরাপত্তারক্ষী বাহিনী। এক পুলিশ অধিকারীকের কথায়, ‘ম্যাচ ভেন্যুতেও বিশেষ নিরাপত্তার বন্দোবস্ত করা হয়েছে।’

কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা: এপ্রিলে দ্বীপ রাষ্ট্রে সন্ত্রাসবাদী হামলার কারণেই এবার বাংলাদেশ দলের জন্য কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেয় শ্রীলঙ্কা। এর আগে গত মার্চে নিউজিল্যান্ড সফরে গিয়ে জঙ্গি নাশকতার মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। ক্রাইস্টচার্চের এক মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়ে দুঃসহ অভিজ্ঞতার সাক্ষী হয়েছিলেন বাংলাদেশের বেশ কিছু ক্রিকেটার। তাই শ্রীলঙ্কা সফরে দল পাঠানোর আগে দ্বীপ রাষ্ট্রের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে প্রতিনিধিদল পাঠায় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। নিরাপত্তা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখে আশ্বস্ত হয় বিসিবি। এরপর শ্রীলঙ্কার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও সেদেশে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনারের সঙ্গে আলোচনা করে দল পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয় বিসিবি। এপ্রিলে ইস্টার সানডেতে ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসী হামলায় কেঁপে উঠেছিল শ্রীলঙ্কা। বিভিন্ন হোটেল ও চার্চে ভয়ঙ্কর সে হামলায় জীবন হারিয়েছিলেন ২৫০-এর বেশি মানুষ। এমন অবস্থায় হুমকির মুখে পড়েছিল দেশটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আয়োজন।

সাধারণত বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রীয় প্রতিনিধিদের জন্য যে নিরাপত্তা ব্যবস্থা রাখা হয়, সেটাই বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। দলের সঙ্গে বাড়তি নিরাপত্তাকর্মীও দেওয়া হয়েছে পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে। শুধু টিম হোটেলেই নয়, পুরো সিরিজকেই নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দিচ্ছে শ্রীলঙ্কা। হোটেল থেকে মাঠে যাওয়া এবং মাঠ থেকে হোটেলে ফেরার রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হবে। নিয়ন্ত্রিত থাকবে পথচারীদের চলাচলও।

আর বাংলাদেশ দল যে হোটেলে থাকবে, সেখানেও থাকবে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। এক কর্মরত পুলিশ কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানিয়েছেন, ম্যাচের ভেন্যুগুলোতেও নিরাপত্তার বিশেষ ব্যবস্থা করছি আমরা।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads