• শনিবার, ১৭ আগস্ট ২০১৯, ২ ভাদ্র ১৪২৫
ads
তামিমের বিব্রতকর রেকর্ড!

সংগৃহীত ছবি

ক্রিকেট

তামিমের বিব্রতকর রেকর্ড!

  • ক্রীড়া প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ৩০ জুলাই ২০১৯

বিশ্বকাপ থেকে শুরু বাংলাদেশের ‘ড্যাশিং ওপেনার’খ্যাত তামিম ইকবালের ব্যাটিং ব্যর্থতা। ব্যর্থতাকে ঝেড়ে ফেলতেই পারছেন না তামিম। বারবার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করার পরও ব্যাট হাতে বিপর্যস্ত চেহারা দেখা যাচ্ছে তার। প্রথম ওয়ানডেতে লাসিথ মালিঙ্গার ইয়র্কারে নিজে ভূপাতিত হয়েছিলেন এবং স্টাম্প উপড়ে গিয়েছিল তার। রোববার সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে আরেক শ্রীলঙ্কান পেসার ইসুরু উদানার বলেও বোল্ড হয়ে গেছেন। প্রথম ম্যাচে ০ আর দ্বিতীয় ম্যাচে ১৯ রানেই সাজঘরে ফিরেছেন। টানা পঞ্চম ম্যাচে অপরিহার্য এ ওপেনারের ব্যাট থেকে বাংলাদেশ দল বড় কোনো ইনিংস পেল না। তার চেয়েও আশ্চর্যের বিষয় হচ্ছে, টানা ৬ ম্যাচে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরার বাজে এক রেকর্ডের মালিক এখন তিনি। আবার ওয়ানডেতে সর্বাধিক ৩১ বার বোল্ড আউট হওয়ার আরেক বাজে রেকর্ডও তামিমের দখলে।

বিশ্বকাপে টানা ব্যর্থতার কারণে দারুণভাবে সমালোচিত হয়েছেন তামিম। বাঁহাতি এ ওপেনার এখন অভিজ্ঞতম ক্রিকেটার বাংলাদেশ দলের। গত ১২ বছরে দেশের পক্ষে চতুর্থ সর্বাধিক ২০৩ ম্যাচ খেলেছেন। আর হয়ে উঠেছেন অন্যতম ভরসার নাম। সে কারণেই তামিম তার জায়গা দিনের পর দিন অটুট রেখেছেন, কিন্তু সঙ্গী বদল হয়েছে তার বারবারই। তাই বিশ্বকাপের মতো মর্যাদার মঞ্চে তামিমকে নিয়ে দলের আশা-ভরসা ছিল আকাশছোঁয়া। কিন্তু তিনি পুরোপুরি হতাশ করেন। ৮ ম্যাচে মাত্র ২৩৫ রান করেন একটি ফিফটি হাঁকিয়ে। অপরিহার্য ওপেনারের এমন ব্যর্থতাতেই প্রত্যাশিত ফল নিয়ে বিশ্বকাপ শেষ করতে পারেনি বাংলাদেশ দলও। কিন্তু এবার বাড়তি এক দায়িত্ব নিয়ে শ্রীলঙ্কা সফরে গেছেন। প্রথমবার কোনো সিরিজে ওয়ানডেতে অধিনায়কত্ব পেয়েছেন। নিজে রানে ফিরে দলের বাকিদের জন্য উদাহরণ সৃষ্টি করার প্রত্যয় জানিয়েছিলেন সিরিজ শুরুর আগে। কিন্তু তা শুধু কথাতেই সীমাবদ্ধ, মাঠের ভেতর কাজে তার প্রতিফলন ঘটাতে পারেননি।

প্রথম ম্যাচে মালিঙ্গার ইয়র্কার সামলাতে গিয়ে মাটিতে পড়ে গিয়েছিলেন, তবু শেষ রক্ষা হয়নি। ইনিংসের পঞ্চম বলেই বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন শূন্য রানে। দ্বিতীয় ম্যাচেও তার ওপর আস্থা। এবার দেখেশুনেই খেলেছেন। ৩১টি বল খেলার পর উদানার পেসের কাছে নতি স্বীকার করলেন ধীরস্থির তামিম। এবার অফস্টাম্পের বলে ড্রাইভ করতে গিয়ে বোল্ড হয়ে গেলেন।

বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে নটিংহ্যামে গত ২০ জুন মিচেল স্টার্কের পেসে বোল্ড হয়েছিলেন ৬২ রান করে। পরের ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে সাউদাম্পটনে ৩৬ রানে বোল্ড হন অফস্পিনার মোহাম্মদ নবির বলে। ভারতের বিপক্ষে মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে বার্মিংহামের এজবাস্টনে ২২ রানে বোল্ড হন পেসার মোহাম্মদ শামির বলে। ঐতিহাসিক লর্ডসে পাকিস্তানের বিপক্ষে পরের ম্যাচেও বোল্ড। এবার মাত্র ৮ রানেই তার স্টাম্প উপড়ে ফেলেন পাক পেসার শাহিন শাহ আফ্রিদি। বিশ্বকাপ শেষে শ্রীলঙ্কায় আবার টানা দুই ম্যাচে বোল্ড হলেন। টানা ৬ ম্যাচে বোল্ড এর আগে কোনো স্বীকৃত বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান হননি। এমনকি ওয়ানডে ইতিহাসেও স্বীকৃত কোনো ব্যাটসম্যানের টানা বোল্ড হওয়ার এমন রেকর্ড বিরল। আর সে কারণেই এখন ওয়ানডেতে দেশের পক্ষে সবচেয়ে বেশি ৩১ বার বোল্ড হলেন তিনি।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads