• বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬
ads
‘বিপিএলের আকর্ষণ কমবে’

সংগৃহীত ছবি

ক্রিকেট

‘বিপিএলের আকর্ষণ কমবে’

  • ক্রীড়া প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯

খেলার মূল প্রাণ হলো দর্শক। যত বেশি দর্শক উন্মাদনা, খেলোয়াড়দের মধ্যে তত বেশি ছড়ায় উত্তেজনা। বাংলাদেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজন বিপিএল এই দর্শক-সমর্থনকে কয়েক ভাগে বিভক্ত করে দেয়। সামনের আসরে সেই উন্মাদনা থাকবে তো? ফ্র্যাঞ্চাইজি বাতিল করে গোটা ব্যবস্থাপনার নিয়ন্ত্রণ নেওয়া বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ভালো মানের বিদেশি খেলোয়াড় আনতে না পারলে বিপিএলের আকর্ষণ কমে যাওয়ার আশঙ্কা করছে খুলনা টাইটানস।

গত বছর ফ্র্যাঞ্চাইজিদের সঙ্গে ৬ বছরের চুক্তি শেষ হয়ে গিয়েছে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের। নতুন চুক্তি নিয়ে সমঝোতায় পৌঁছতে না পেরে এবং মালিক পক্ষদের লভ্যাংশ দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান ফ্র্যাঞ্চাইজি বাতিল করে নিজেরাই বিপিএল আয়োজনের ঘোষণা দেন। বিসিবির এই সিদ্ধান্ত নিয়ে বেশ কয়েকটি ফ্র্যাঞ্চাইজি তাদের হতাশা ও ক্ষোভ ঝেরেছে। এবার কথা বলেছেন খুলনা টাইটানসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী ইনাম আহমেদ, যেখানে ফ্র্যাঞ্চাইজির চেয়ে বিপিএলের ভবিষ্যৎ নিয়েই বেশি উদ্বিগ্ন ছিলেন তিনি।

প্রত্যেকটি ফ্র্যাঞ্চাইজি মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে বিদেশি খেলোয়াড় দলে নিয়ে আসে। আর্থিক লেনদেনে কোনো ঝামেলা না থাকায় বিশ্বসেরা খেলোয়াড়দের বিপিএলে পাওয়া যায় বলে মন্তব্য করেছেন কাজী ইনাম। আর এজন্য ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর কৃতিত্বও দেখছেন তিনি, ‘বিভিন্ন দেশে বহু ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ হচ্ছে। সেগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের বিপিএল ভালো অবস্থান করে নিয়েছে। এটার মূল কারণ, আমাদের পেমেন্ট স্ট্রাকচার নিয়ে কোনো অভিযোগ নেই বিদেশি ক্রিকেটারদের। ভালো মানের বিদেশি ক্রিকেটারদের বিপিএলে খেলানোর পেছনে ফ্র্যাঞ্চাইজিদের একটা ক্রেডিট তো দিতেই হবে।’ সঙ্গে যোগ করেছেন, ‘ক্রিস গেইল বলেন, সুনিল নারিন, এবি ডি ভিলিয়ার্স, আন্দ্রে রাসেল, শহীদ আফ্রিদি কিংবা জস বাটলাররা কিন্তু এখানে এসেছে বিপিএলের কাঠামোতে সরাসরি সাইন করার বিষয় থাকার কারণেই। এখানে ফ্র্যাঞ্চাইজিদের বিশাল কৃতিত্ব, তারা ভালো বিদেশি ক্রিকেটারদের দলে ভেড়াতে পেরেছে। ড্রাফটের মাধ্যমে অনেক বড় খেলোয়াড় কিন্তু এখানে আসেনি। এসেছে রবি বোপারা কিংবা অন্যরা। এটা একটি সফল মডেল, একই সঙ্গে এই মডেলে মালিকপক্ষের এক ধরনের প্যাশন ছিল।’

এবার হতে যাচ্ছে বিপিএলের সপ্তম আসর। আগের ছয় প্রতিযোগিতায় প্রত্যেকটি ফ্র্যাঞ্চাইজি যেভাবে ‘হাইপ’ তুলেছে, সমর্থক গোষ্ঠী নিয়ে মাঠে গেছে, সেটা কতটা থাকবে, তা নিয়ে শঙ্কিত কাজী ইনাম। তিনি বলেছেন, ‘আমার কথা হচ্ছে বিপিএল যেভাবে চলছিল, সেভাবেই কিন্তু হতে পারত। বোর্ডের তত্ত্বাবধানে যদি বিপিএল হয়, তাহলে কিছু সমস্যা আছে। ফ্র্যাঞ্চাইজিরা যেভাবে হাইপ তুলত, প্যাশন নিয়ে ফ্যানদের নিয়ে যেভাবে মাঠে যেত, সেই চার্মটা কোনো কারণে লুজ হয়ে গেলে বিপিএল কিন্তু পড়ে যাবে।’

তাছাড়া ইতোমধ্যে সাইন করা বিদেশি খেলোয়াড়দের অংশগ্রহণ নিয়েও শঙ্কা আছে কাজী ইনামের, ‘কোনো কারণে যেসব বিদেশি ক্রিকেটারের সঙ্গে সাইন ছিল, তারা যদি না আসে, তাহলে বদনাম হয়ে যাবে। বিপিএলের অবিশ্বাস্য একটা ব্র্যান্ড ভ্যালু আছে। এটা যেন কোনো ভাবে না কমে। আমি আশা করব বিসিবি যদি নিজেরাই বিপিএল করে, তাহলে এই জায়গাটাতে তারা খেয়াল রাখবে।’

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads