• শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ads
সাকিবের শাস্তিতে তোলপাড় বাংলাদেশ

সাকিব আল হাসান

সংগৃহীত ছবি

ক্রিকেট

সাকিবের শাস্তিতে তোলপাড় বাংলাদেশ

  • ক্রীড়া প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ৩১ অক্টোবর ২০১৯

মাত্র কিছুদিন হলো, সাকিব আল হাসানের নেতৃত্বে ক্রিকেটাররা আন্দোলনে মাঠে নামে। তাদের দাবি-দাওয়া প্রায় সবগুলোই মেনে নেয় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। এরপর হঠাৎ করেই সাকিবকে এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ করে আইসিসি। আচমকা এমন সিদ্ধান্তে তোলপাড় সারা  বাংলাদেশ। শুধু বাংলাদেশই নয়, বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে বসবাসকারী বাংলাদেশিরাও ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে। বাংলাদেশে বিভিন্ন স্থানে সাকিবের শাস্তি প্রত্যাহারের দাবিতে মিছিল-সমাবেশ হচ্ছে। এদিকে, গতকাল বুধবার সাকিবকে ছাড়াই বাংলাদেশ জাতীয় দল ভারতে গেছে। সাকিব ছিলেন টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক। এখন তার পরিবর্তে মুমিনুল হক টেস্টে এবং মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ টি- টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক নিযুক্ত হয়েছেন।

যেসব সিরিজে খেলা হবে না : প্রথমবারের মতো ভারতের মাটিতে পূর্ণাঙ্গ ক্রিকেট সিরিজ খেলতে ভারতে গেছে বাংলাদেশ দল। নিষেধাজ্ঞার কারণে এই সিরিজে নেই সাকিব। ভারতের বিপক্ষে তিনটি টি-টোয়েন্টি ও দুটি টেস্ট খেলবে টাইগাররা। বিসিবির উদ্যোগে ডিসেম্বরে হওয়ার কথা বঙ্গবন্ধু বিপিএল। এই আসরে খেলতে পারছেন না সাকিব। ২০০৮ সালের এশিয়া কাপের পর আবারো পাকিস্তান সফর করার কথা বাংলাদেশের। ২০২০ সালের জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে দ্বিপক্ষীয় এই সিরিজেও থাকছেন না সাকিব। ২০২০ সালের মার্চ ও এপ্রিলে ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে অনুষ্ঠেয় সিরিজেও থাকছেন না তিনি। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) সানরাইজার্স হায়দরাবাদে গত মৌসুমে খেলেছিলেন সাকিব। ২০২০ সালের এপ্রিলে অনুষ্ঠেয় আইপিএলের পরের আসরে খেলা হচ্ছে না তার। ২০২০ সালের মে মাসে আয়ারল্যান্ডে সিরিজ খেলতে যাবে বাংলাদেশ। ২০২০ সালের জুন-জুলাই বাংলাদেশে আসার কথা অস্ট্রেলিয়ার। ২০২০ সালের অক্টোবরে অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। এর কোনোটাতেই থাকছেন না সাকিব।

সতীর্থরা কে কী বলেছেন : কঠিন এই সময়ে সতীর্থদের পাশেই পাচ্ছেন বাংলাদেশের অলরাউন্ডার। ম্যাচের সময় সাকিবের মাথায় হাত রাখা একটি ছবি পোস্ট করে ফেসবুকে মাশরাফি বিন মুর্তজা লিখেছেন, ‘দীর্ঘ ১৩ বছরের সহযোদ্ধার আজকের ঘটনায় নিশ্চিতভাবেই কিছু বিনিদ্র রাত কাটবে আমার। তবে কিছুদিন পর এটা ভেবেও শান্তিতে ঘুমাতে পারব যে, তার নেতৃত্বেই ২০২৩ সালে আমরা বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলব। কারণ নামটি তো সাকিব আল হাসান...!!!।’ মুশফিক লিখেছেন, ‘বয়সভিত্তিক, আন্তর্জাতিক সহ ১৮ বছরেরও বেশি সময় ধরে একসঙ্গে ক্রিকেট খেলছি। তোমাকে ছাড়া মাঠে নামার কথা ভাবলেও কষ্ট হয়। আশা করি, দ্রুত চ্যাম্পিয়নের মতোই তুমি ফিরে আসবে। আমার সমর্থন সব সময়ই তোমার পাশে থাকবে। গোটা বাংলাদেশের সমর্থনও। শক্ত থাকো, ইনশাআল্লাহ।’ তামিম ইকবাল লিখেছেন, ‘১২ মাস তোমাকে আমাদের দলে পাব না, এটা কল্পনা করতেই কষ্ট হয়। তবে সাকিব আল হাসান, আমি আশা করি, তুমি ভালোভাবে ফিরে আসবে এবং সেই দিনটা সামনের বছরই আসুক। আমরা একসঙ্গে অনুশীলন করব এবং খেলব।’ ভারত সফরে টেস্ট অধিনায়কের দায়িত্ব পাওয়া মুমিনুল হক ফেসবুকে লিখেছেন, ‘খবরটা শুনে হূদয় ভেঙে গিয়েছে। তুমি একজনই... ভালোবাসি ভাই।’ মাহমুদউল্লাহ লিখেছেন, ‘তুমি এখনো আমাদের মধ্যে সেরা এবং সেরাই থাকবে। আমাদের সমর্থন তোমার সঙ্গে আছে। আল্লাহ তোমার সহায় হোন। ভালোভাবে ফিরে আসো চ্যাম্প!’ মোসাদ্দেক হোসেন লিখেছেন, ‘আমরা আপনাকে মিস করব ভাই। আশা করি, আপনি আগের চেয়ে আরো শক্তিশালী হয়ে ফিরে আসবেন।’  সাব্বির রহমান লিখেছেন, ‘ভাই, আপনাকে ছাড়া বাংলাদেশ ক্রিকেট ভাবতেও কষ্ট হয়। আশা করি, আগের চেয়ে আরো ভালোভাবে ফিরে আসবেন। আমার দোয়া সব সময় আপনার সঙ্গে আছে।’ লিটন দাস লিখেছেন, ‘আপনিই সেরা। আরো ভালোভাবে ফিরে আসবেন আপনি।’ তাসকিন আহমেদ লিখেছেন, ‘চিন্তা করবেন না ভাই। আগের চেয়েও ভালোভাবে ফিরবেন আপনি।’ সৌম্য সরকার লিখেছেন, ‘২২ গজের উইকেটে, ড্রেসিং রুমে, টিম বাসে, টিম হোটেলে আপনার শূন্যতা আমাদের জন্য কোনোভাবেই কাম্য নয়। আমি জানি না এই পরিস্থিতিতে কী বলতে হয় বা লিখতে হয়। শুধু এইটুকু বিশ্বাস করি, আপনি ফিরে আসবেন, আগের থেকে আরো পরিণত হয়ে। কারণ আপনি সাকিব আল হাসান।’ মোস্তাফিজুর রহমান লিখেছেন, ‘বুঝতে পারছি না কী বলব! এখনো আমি এটি বিশ্বাস করতে পারছি না। তবে আমি একটি ব্যাপার জানি এবং বিশ্বাস করি, আপনি অবশ্যই ভালোভাবে ফিরে আসবেন।’ মেহেদী হাসান মিরাজ লিখেছেন, ‘যাই হোক না কেন, আমরা সব সময় আপনার সঙ্গে আছি সাকিব ভাই। আপনি আগের চেয়েও শক্তিশালী হয়ে ফিরে আসবেন ইনশা আল্লাহ। আমরা আপনাকে খুব মিস করব।’ সাইফউদ্দিন লিখেছেন, ‘বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য এমন বিধ্বংসী খবর! সাকিব আল হাসান ভাই আমরা আমাদের সমস্ত ভালোবাসা পাঠাচ্ছি আপনার জন্য। আমরা আপনার সঙ্গে আছি!’

সাবেক তিন অধিনায়কের বক্তব্য : সাকিবের নিষেধাজ্ঞার ঘটনায় বিষণ্ন দেশের ক্রিকেট। সেই বিষাদের ছায়া সাবেক তিন অধিনায়ক আকরাম খান, মিনহাজুল আবেদীন নান্নু ও হাবিবুল বাশারদের চেহারাতেও। আকরাম খান বলেন,  ‘খুবই খারাপ লাগছে। অনেক দিন পর আমরা ভারতে একটি পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলতে যাচ্ছি, সেখানে ওকে মিস করছি। বিশ্বকাপে এত ভালো পারফর্ম করেছে, দারুণ ফর্মে ছিল। ওর জন্য খারাপ লাগছে, বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য খারাপ লাগছে।’ নান্নু বলেন, ‘দেশের সেরা ক্রিকেটারকে আমরা এক বছর পাব না। খুবই খারাপ অবশ্যই আমাদের ক্রিকেটের জন্য। অনেক বড় শূন্যতা অবশ্যই। স্বাভাবিকভাবে অনেক বড় শূন্যতা পূরণ করা নিয়ে ভাবতে হবে আমাদের।’ হাবিবুল বলেন, ‘আমার জন্য সবচেয়ে দুঃখের দিন। বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্যও। তবে সাকিবকে আমি যতটুকু জানি, ও দারুণভাবে ফিরে আসবে।’

সাকিবের পাশে জামাল ভূঁইয়া : নিষিদ্ধ হওয়া সাকিবের পাশে দাঁড়িয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া। দেশের সব ক্রিকেটপ্রেমীর মতো জামালও মর্মাহত। তাই তো নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে স্ট্যাটাস দিয়ে সাকিবকে শক্ত থাকতে বলেছেন লাল-সবুজ জার্সিতে ফুটবল মাঠ দাপানো এই কাপ্তান, ‘নাম্বার ওয়ান অলরাউন্ডারের ক্রিকেট থেকে কমপক্ষে এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ হওয়ার খবর শোনাটা কষ্টের। শক্ত থাকো, সাকিব আল হাসান।’

এমসিসি থেকে সরে দাঁড়ালেন সাকিব : হঠাৎ এক ঝড় যেন এলোমেলো করে দিলো সাকিবের জীবন। এক নিষেধাজ্ঞায় তার সবই যেন হারাতে বসেছেন। নিষেধাজ্ঞার পর মেরিলবোন ক্রিকেট ক্লাব (এমসিসি) ওয়ার্ল্ড ক্রিকেট কমিটি থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন সাকিব। এমসিসি এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। ২০১৭ সালে ইতিহাসের প্রথম বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে এমসিসি ওয়ার্ল্ড ক্রিকেট কমিটির সদস্য হন সাকিব। সম্মানিত এই পদটিতে শুধু ক্রিকেট বিশ্বের আইকনিক ব্যক্তিরাই সদস্য হিসেবে নিয়োগ পান। ওয়ার্ল্ড ক্রিকেট কমিটির চেয়ারম্যান ও ইংলিশ কিংবদন্তি মাইক গেটিং বলেন, ‘সাকিবকে কমিটি থেকে হারিয়ে আমরা ব্যথিত। গত কয়েক বছরে সে এখানে অনেক অবদান রেখেছে। ক্রিকেটীয় চেতনার অভিভাবক হিসেবে আমরা তার পদত্যাগকে সমর্থন করি এবং বিশ্বাস করি, সে সঠিক সিদ্ধান্তটিই নিয়েছে।’

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads