• শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ৩০ কার্তিক ১৪২৬
ads
মুরগীর খামারের বায়োগ্যাসকে সিএনজিতে রূপান্তর

ছবি : বাংলাদেশের খবর

বৈচিত্র

টেকনাফে রুপান্তরিত জ্বালানী হিসেবে ব্যাপক সাড়া

মুরগীর খামারের বায়োগ্যাসকে সিএনজিতে রূপান্তর

  • জাবেদ ইকবাল চৌধুরী, টেকনাফ
  • প্রকাশিত ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

টেকনাফে মুরগীর খামার হতে উৎপন্ন বায়োগ্যাসকে সিএনজি তে রূপান্তরের একটি প্রকল্প সাড়া জাগিয়েছে। আনুষ্ঠানিক উদ্ভোধন না হলেও ইতিমধ্যে কার, মাইক্রো মালিকরা এ ষ্টেশন থেকে গ্যাস সংগ্রহ করে তাদের চাহিদা পূরণ করছেন। সরকারী-বেসরকারী আর্থিক সহায়তা ছাড়া শুধু মাত্র ব্যাক্তি উদ্যোগে প্রায় আড়াই কোটি টাকা ব্যয়ে এ প্রকল্পটি এখন আলোর মুখ দেখেছে। দীর্ঘ চার বছরের ধৈর্য ও একান্ত প্রচেষ্ঠায় এ ধরনের একটি অনিশ্চিত কাজ বাস্তবায়ন করতে পেরে বেশ খুশি প্রকল্পের উদ্যোক্তা কবির আহমদ।

প্রকৃতিক সম্পদ ও পর্যটনের সম্ভাবনার সীমান্ত শহর টেকনাফ। কালের প্ররিক্রমায় ইয়াবা শহরে পরিগনিত হতে থাকে। সম্প্রতি এই শহরের কয়েক কিলোমিটার পশ্চিম-দক্ষিণ সড়কের অতি সন্নিকটে প্রায় এক যুগ ধরে মুরগীর খামার ব্যবসা পরিচালনা করছেন স্থানীয় কবির আহমদ। ১২ বছরে খামারের সংখ্যা বাড়তে থাকে। কয়েক কিলোমিটার এলাকায় তার রয়েছে ৬ টি খামার। যেখানে প্রায় ৪৫ হাজার মুরগী ডিম দিচ্ছে। এসব মুরগীর বিষ্ঠা নিয়ে বেকায়দায় পড়ে কবির আহমদ। এলাকার পরিবেশ ভারী হয়ে উঠে দূগর্ন্ধে। এ থেকে এলাকাকে রক্ষা করতে উদ্যোগী হন খামারী কবির আহমদ। চার বছর অক্লান্ত চেষ্টার পর সফলও হন তিনি। টেকনাফ সদর ইউনিয়নের খোনকার পাড়া এলাকায় মেরিন ড্রাইভ সড়কের কাছেই মুরগীর খামারের পাশেই গড়ে তুলেন সাগর ফিলিং ষ্টেশন।

কবির আহমদ বলেন, সহকর্মী এক খামারীর পরামর্শে গড়ে তুলে বায়ো গ্যাস প্রকল্প। এতে তিনি একদিকে পরিবেশ রক্ষা করবেন অন্যদিকে উৎপাদিত বায়ো গ্যাস এলাকায় বিক্রি করবেন। কিন্তু উৎপাদিত গ্যাস কোথাও কাজে লাগাতে পারছিলেন না। সিদ্ধান্ত নিলেন আরো বেশী আর্থিক ঝুকিঁ নেবেন। বায়ো গ্যাসকে সিএনজি জাতীয় গ্যাসে রূপান্তরের। তাই চেষ্টা করতে লাগলেন চার বছর ধরে। দেশের বিভিন্ন স্থানে বায়ো গ্যাস প্রকল্প দেখে আসেন, বিভিন্ন বিশেষজ্ঞদের পরার্মশ নিলেন, তবে কোন কাজ হচ্ছিল না। শেষে ভারত সফর করে অভিজ্ঞতা নিয়ে ফিরলেন। তা প্রয়োগও করলেন। সফল হলেন। চলতি বছরের প্রথম থেকে এ প্রকল্প আলোর মুখ দেখতে পেলো। খরচ হলো প্রায় আড়াই কোটি টাকা। কোন সরকারী-বেসরকারী সংস্থা হতে আর্থিক সহযোগিতা না নিয়ে খামারের আয়ের টাকা দিয়েই তিনি এ সফলতা অর্জন করেছেন বলে জানান কবির আহমদ। এখন প্রতিদিন তার সিএনজি ষ্টেশন হতে ১৫/২০ হাজার টাকার গ্যাস বিক্রি করছেন। ১০ টি সিলিন্ডারে বায়ো গ্যাস হতে সিএনজি রূপান্তর করে তিনি কার-মাইক্রোতে সীমিত আকারে গ্যাস সরবরাহ দিয়ে যাচ্ছেন। তার দাবী এটি দেশে প্রথম এ ধরনের একটি প্রকল্প।

টেকনাফের মাইক্রো চালক নুরুল আলম বলেন, অন্যান্য সিএনজি গ্যাস হতে বায়োগ্যাস একটু হালকা মনে হয়। অর্থাৎ মনে হবে চালানোর সময় গাড়ী একটু ভারী ভারী। আসলে টুনিং টা একটু এডজাস্ট করে দিতে হয়। তখন পুরোপুরি ঠিক হয়ে পরিস্কার ভাবে গাড়ী চালানো যায়। তিনি আরো বলেন, আমাদের গাড়ী গুলোতো সিএনজি ফরম্যাটে এডজাস্ট করা থাকে। যখন বায়োগ্যাস ব্যবহার করা হয় তখন টুনিং একটু পরিবর্তন করে দিলেই হয়।

গাড়ী চালক নুরুল আলম বলেন, টেকনাফে এই গ্যাস পাওয়ার ফলে গাড়ী মালিকরা অনেক সাশ্রয়ী মূল্যে ভাড়া যেতে পারছেন। টেকনাফ হতে বায়োগ্যাস নিয়ে কক্সবাজার-চট্টগ্রাম যায়। আর সেখান হতে সিএনজি গ্যাস নিয়ে টেকনাফ আসছি এখন আমরা। এতে আমরা আর্থিকভাবে অনেক লাভবান হচ্ছি।

এলাকার যুবক বশির আহমদ বলেন, প্রথম প্রথম এলাকার অনেকে উদ্যোক্তা কবির আহমদকে ভারসাম্যহীন ভাবতে শুরু করে। কিভাবে এত দিন ধরে লাখ লাখ টাকা খরচ করছে এখানে। কেউ চিন্তাও করেনি। বায়োগ্যাস উৎপাদন করে তা রূপান্তর করে গাড়ীতে জ্বালানী হিসেবে ব্যবহার করতে পারবে। কিন্তু চার বছর ধরে অদম্য চেষ্টায় সফল হয়েছে। এখন এখানে প্রতিদিন অনেক কার-মাইক্রো গ্যাসনিতে আসে। খামারী কবির আহমদ অভিনন্দন পাওয়ার যোগ্য।

সাগর ফিলিং ষ্টেশনের মালিক কবির আহমদ বলেন, এ প্রকল্পটি ছড়িয়ে দিতে পারলে গোটা দেশে আরো অনেক উদ্যোক্তা তৈরী হবে তাই সরকারী সংশ্লিষ্টদের নজর দেওয়া দরকার বলে মনে করেন তিনি।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads