• মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯, ৪ আষাঢ় ১৪২৫
ads
শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পরিবর্তন না প্রত্যাবর্তন?

লোগো শিক্ষা মন্ত্রণালয়

শিক্ষা

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পরিবর্তন না প্রত্যাবর্তন?

  • অভিজিৎ ভট্টাচার্য্য
  • প্রকাশিত ০৩ জানুয়ারি ২০১৯

শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বর্তমান মন্ত্রী এবং প্রতিমন্ত্রীর প্রত্যাবর্তন না পরিবর্তন হবে- এ নিয়ে গত দুদিন ধরে ব্যাপক আলোচনা চলছে শিক্ষা প্রশাসনের অলিগলিতে। আগামী ১০ জানুয়ারির মধ্যে গঠিত হতে যাচ্ছে নতুন মন্ত্রিসভা- আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের পর শিক্ষা এবং প্রাথমিক গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হওয়ার জন্য দৌড়ঝাঁপ ইতোমধ্যে শুরু হয়ে গেছে। ঘরোয়া আলোচনায় তারা জানার চেষ্টা করছেন শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সামলানোর দায়িত্ব কার হাতে ছাড়ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা? সেখানে একাধিক নাম থাকলেও যুক্তিতর্কে আপাতত ‘পুরনোরাই হয়তো ফিরছেন’- এমন মতও রয়েছে। গত সাড়ে ১০ বছর ধরে শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে নুরুল ইসলাম নাহিদ এবং পাঁচ বছর ধরে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী হিসেবে রয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার। আর এক বছরের বেশি কিছু সময় ধরে শিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব সামলাচ্ছেন কাজী কেরামত আলী।

শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মতো গুরুত্বপূর্ণ দফতর সামলানোর পরীক্ষায় বিগত দিনে তারা কতটা সফল এবং সার্বিক মূল্যায়নে সরকারপ্রধান তার কার্যক্রমে কতটা সন্তুষ্ট? এর ওপরেই তাদের প্রত্যাবর্তন বা ফিরে আসা নির্ভর করছে বলে ধারণা পেশাদারদের। তাদের মতে, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদকে নিয়ে অনেকেরই ভিন্ন রকম বক্তব্য রয়েছে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর আস্থা রয়েছে নাহিদে। ফলে তৃতীয়বারের জন্য তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেতে যাচ্ছেন বলে জল্পনা রয়েছে। কিন্তু কোনো বিষয়েই কেউ পাকা কথা বা উপসংহার না টেনে বিষয়টি একান্তভাবে টানা তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেওয়ার অপেক্ষায় থাকা আওয়ামী লীগ সভাপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার বিবেচনায় রাখছেন। দিনের শেষে তিনিই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন।

এদিকে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ পুনরায় এমপি নির্বাচিত হয়ে গতকাল প্রথম সচিবালয়ের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে গেলে সেখানে শিক্ষা প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা তাকে ফুলেল শুভেচ্ছায় বরণ করেন। এর আগে মন্ত্রী গত সোমবার রাতে সিলেট থেকে ঢাকায় ফেরেন। মঙ্গলবার সকালে আজিমপুর সরকারি গার্লস স্কুলে বই উৎসবে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন। সেখান থেকে দুপুরে বাসায়, তারপর যান গণভবনে। গতকাল বুধবার তিনি দিনের বেশিরভাগ সময় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে নিজ দফতরে ছিলেন। এ সময় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দুই বিভাগের সচিব, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা দফতরের মহাপরিচালকসহ কর্মকর্তারা, ঢাকা শিক্ষা বোর্ড, মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড, পরিদর্শন ও নিরীক্ষা দফতরের কর্মকর্তারা এবং বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানরা মন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানান। সবাই মন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে ফের মন্ত্রী হয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে আসবেন বলে শুভকামনা জানিয়েছেন। তবে সব কয়টি বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে ফের মন্ত্রী হতে যাচ্ছেন নুরুল ইসলাম নাহিদই। কারণ প্রধানমন্ত্রী যেভাবে দেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে উন্নত করতে চান সেই কাজের জন্য নুরুল ইসলাম নাহিদের বিকল্প নেই বলে জানা গেছে।

অন্যদিকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার গতকাল বুধবার নিজ দফতরে আসেন। নির্বাচনে জয়ী হওয়ার পর গতকালই তিনি প্রথম অফিস করেন। এ সময় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালকসহ কর্মকর্তারা মন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। একই সঙ্গে সবাই দোয়া করে বলেন, তিনি যেন ফের প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান। তবে অনেকেই বলেছেন, মোস্তাফিজুর রহমান ফিজারকে ভূমিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে। এ ক্ষেত্রে প্রাথমিক ও গণশিক্ষায় মন্ত্রী হয়ে আসতে পারেন সাবেক মন্ত্রী ডা. মো. আফসারুল আমীন। তিনি ২০০৯ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন। 

এদিকে সদ্যসমাপ্ত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের শপথ আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় অনুষ্ঠিত হবে। নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যদের গেজেট গত মঙ্গলবার রাতে প্রকাশ করা হয়েছে। গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট ২৮৮টি আসনে জয়লাভ করে। আওয়ামী লীগ একাই জিতেছে ২৫৭টি আসনে। একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ায় দলটি টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করতে যাচ্ছে। এই নির্বাচনে বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোট পেয়েছে ৭টি আসন। বিএনপি এককভাবে পেয়েছে ৫টি। নির্বাচনে এককভাবে ২২টি আসন পেয়ে দ্বিতীয় বৃহত্তম দল হয়েছে জাতীয় পার্টি। একাদশ সংসদে তারাই বিরোধী দল হতে যাচ্ছে।

আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন, নির্বাচিতরা শপথ নেওয়ার এক সপ্তাহের মধ্যে নতুন মন্ত্রিপরিষদ গঠন হবে। তারপরই আনুষ্ঠানিকভাবে মন্ত্রীদের দফতর বণ্টন করবেন প্রধানমন্ত্রী। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা টানা তৃতীয় মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন।

 

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads