• বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৬
ads
জাবিতে ফের উপাচার্য বিরোধী আন্দোলন

জাবিতে উপাচার্য বিরোধী বিএনপি, বাম ও আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের একাংশের জোট ‘সম্মিলিত শিক্ষক সমাজ’ এর বৈঠক

ছবি : বাংলাদেশের খবর

শিক্ষা

জাবিতে ফের উপাচার্য বিরোধী আন্দোলন

  • জাবি প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত ১৬ জুন ২০১৯

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) উপাচার্য বিরোধী বিএনপি, বাম ও আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের একাংশের জোট ‘সম্মিলিত শিক্ষক সমাজ’ এর নতুন আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। নতুন এ কমিটির মাধ্যমে পূনরায় সংগঠিত হয়ে উপাচার্যের সকল অনিয়ম, দূর্নীতি ও দুঃশাসনের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার প্রত্যয়। জাকসুসহ মেয়াদোত্তীর্ণ সকল পর্ষদের নির্বাচন দাবি।

রবিবার (১৬ জুন) বেলা ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের শিক্ষক লাউঞ্জে সংবাদ সম্মেলনে করে নতুন এ কমিটি ঘোষণা করা হয়। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসনের নানা অনিয়মের চিত্র তুলে ধরে নতুন নেতৃত্বের মাধ্যমে আন্দোলনে নামার ঘোষণাও প্রদান করেন ‘সম্মিলিত শিক্ষক সামজ’র শিক্ষক নেতারা।

কমিটিতে আহ্বায়ক করা হয়েছে আওয়ামীপন্থী শিক্ষক ও জীববিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. আব্দুল জব্বার হাওলাদার এবং সদস্য সচিব করা হয়েছে বিএনপিপন্থী শিক্ষক অধ্যাপক জামাল উদ্দিন রুনুকে। এর আগে ‘সম্মিলিত শিক্ষক সমাজ’র আহ্বায়ক ছিলেন গাণিতিক ও পদার্থ বিষয়ক অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. অজিত কুমার মজুমদার। উপাচার্যের সাথে ‘সখ্যতা’র অভিযোগে তাকে আহ্বায়ক থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে।

কমিটির অন্যান্যরা হলেন, যুগ্ম আহ্বায়ক সরকার ও রাজনীতি বিভাগের অধ্যাপক শামছুল আলম সেলিম ও নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সাঈদ ফেরদৌস। কমিটিতে সদস্য হিসেবে অধ্যাপক সোহেল রানা, অধ্যাপক খবির উদ্দিন, অধ্যাপক মোহাম্মদ কামরুল আহসান, অধ্যাপক শফি মুহাম্মাদ তারেক, অধ্যাপক মো. নুরুল ইসলাম, অধ্যাপক কবিরুল বাশার, অধ্যাপক নাজমুল হাসান তালুকদার, অধ্যাপক তারেক রেজা, অধ্যাপক মনোয়ার হোসেন, অধ্যাপক লুৎফর রহমান এবং সহযোগী অধ্যাপক খন্দকার হাসান মাহমুদ।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সদস্য সচিব বলেন, ‘উপাচার্যের এ্যাক্ট বিরোধী ও স্বেচ্ছাচারী কর্মকান্ড শিক্ষা ও গবেষণাকার্যক্রমে স্থবিরতা, সীমাহীন দুর্নীতি এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অধিকার হরণ, মর্যাদাহানি ও লাঞ্ছনার প্রতিবাদে আমরা আবারও আন্দোলনে নামবো।’
এসময় তারা মেয়াদোত্তীর্ণ ডিন, সিন্ডিকেট, একাডেমিক কাউন্সিল ও জাকসু নির্বাচর্নের জোর দাবি এবং অধ্যাপক অজিত কুমার মজুমদার ও তার অনুসারিদের পক্ষ ত্যাগ করে উপাচার্যপন্থী জোটে যোগ দেয়াকে নীতি বহির্ভূত আখ্যায়িত করে শিক্ষক সমিতির কার্যনির্বাহী পরিষদ থেকে পদত্যাগ করার আহ্বান জানান তারা।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন, শিক্ষক সমিতির সম্পাদক অধ্যাপক অধ্যাপক সোহেল রানা, সদস্য অধ্যাপক সাঈদ ফেরদৌস। ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের’ সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক খবির উদ্দিন এবং বিএনপিপন্থী শিক্ষক অধ্যাপক নূরুল ইসলাম।

উল্লেখ্য, আওয়ামীপন্থী শিক্ষক অধ্যাপক অজিত কুমার মজুমদারকে আহ্বায়ক ও বিএনপিপন্থী অধ্যাপক জামাল উদ্দিন রুনুকে সদস্য সচিব করে এ বছরের জানুয়ারীতে আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের একাংশ, জাতীয়তাবাদী ও বামপন্থী শিক্ষকদের নিয়ে গঠিত হয় উপাচার্য বিরোধী শিক্ষকদের এ জোট। শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে এই জোট সভাপতি-সম্পাদকসহ ১৫টি পদের মধ্যে ১০টি পদে জয়লাভ করেন। জোটটির আহ্বায়ক অধ্যাপক অজিত কুমার মজুমদার সভাপতি পদে জয়লাভ করার পর হঠাৎ তিনি ও তার অনুসারীরা পক্ষ ত্যাগ করে উপাচার্যের পক্ষে যোগ দেন। এখন নতুন করে পুনর্গঠনের মাধ্যমে আবারও উপাচার্য বিরোধী আন্দোলনকে চালিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করে তারা।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads