• মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬
ads
বৃত্তির সংখ্যা ও অর্থের পরিমাণ দ্বিগুণ হচ্ছে

ছবি : সংগৃহীত

শিক্ষা

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা

বৃত্তির সংখ্যা ও অর্থের পরিমাণ দ্বিগুণ হচ্ছে

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯

প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় বৃত্তির সংখ্যা ও অর্থের পরিমাণ দ্বিগুণ করা হচ্ছে। বর্তমানে দেশে প্রথম শ্রেণির বৃত্তি (ট্যালেন্টপুল) ও সাধারণ কোটায় ৮২ হাজার ৫০০ জনকে বৃত্তি দেওয়া হয়। আগামী ২০২০ সাল থেকে এ সংখ্যা বাড়িয়ে এক লাখ ৬৫ হাজার করা হবে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সম্মতিতে এমন প্রস্তাব দিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই) ও মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। সূত্র জানায়, ওই প্রস্তাব গ্রহণ করে চলতি বছর প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে নতুন বৃত্তিপ্রাপ্তদের তালিকা প্রকাশ করা হবে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র বলছে, প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় পাস করা শিক্ষার্থীদের বৃত্তির সংখ্যা এবং এ বাবদ অর্থ দ্বিগুণ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। মন্ত্রণালয়ে গত আগস্ট মাসে এক সভায় এমন প্রস্তাব তোলা হয়। সেখানে সবাই এ প্রস্তাবে সম্মতি দেন এবং ডিপিই ও মাদরাসা বোর্ডকে প্রস্তাবটি মন্ত্রণালয়ে পাঠাতে বলা হয়। পরে চলতি সপ্তাহে ওই দুই প্রতিষ্ঠান থেকে এ সংক্রান্ত প্রস্তাব মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়।

প্রস্তাবে বলা হয়, বর্তমানে প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে সারা দেশে ৩৩ হাজার ট্যালেন্টপুল ও ৪৯ হাজার ৫০০ জনকে সাধারণ কোটায় অর্থাৎ মোট ৮২ হাজার ৫০০ শিক্ষার্থীকে বৃত্তি দেওয়া হয়। এর মধ্যে প্রাথমিকের ৬০ হাজার শিক্ষার্থীকে ওই দুই কোটায় বৃত্তি দেওয়া হয়।

ইবতেদায়িতে সাত হাজার ৫০০ জনকে ট্যালেন্টপুল এবং ১৫ হাজার শিক্ষার্থীকে সাধারণসহ মোট ২২ হাজার ৫০০ জনকে বৃত্তি দেওয়া হয়। এসব শিক্ষার্থীর বৃত্তিবাবদ ট্যালেন্টপুলে মাসিক জনপ্রতি ৩০০ টাকা, সাধারণ বৃত্তিবাবদ মাসিক জনপ্রতি ২২৫ টাকা দেওয়া হয়।

ওই প্রস্তাব অনুযায়ী, এক লাখ ৬৫ হাজার জনের মধ্যে ট্যালেন্টপুল কোটায় ১ লাখ ২০ হাজার এবং সাধারণ কোটায় ৪৫ হাজার জনকে বৃত্তি দেওয়া হবে। পাশাপাশি বর্তমানে ট্যালেন্টপুল কোটায় মাসিক ৩০০ টাকার পরিবর্তে ৬০০ টাকা ও সাধারণ কোটায় ২২৫ টাকার বদলে ৪৫০ টাকা দেওয়া হবে।

জানা গেছে, সাধারণ কোটায় ইউনিয়ন ও পৌরসভার প্রতি ওয়ার্ডে ছয়জনকে বৃত্তি দেওয়া হয়। এর মধ্যে তিনজন ছাত্রী ও তিনজন ছাত্র থাকবে। এ ছাড়া ওয়ার্ড পর্যায়ে বৃত্তি দেওয়ার পর অবশিষ্ট বৃত্তি থেকে প্রতি উপজেলায় বা থানায় দুজন ছাত্র ও দুজন ছাত্রীকে বৃত্তি দেওয়া হয়।

শিক্ষার্থীদের ফলাফলের ভিত্তিতে প্রতি বিভাগ থেকে তিনজন করে ২৪ জনকে সাধারণ বৃত্তি দেওয়ার পর চারজনের সাধারণ বৃত্তি সংরক্ষণ করা হয়ে থাকে। নতুন প্রস্তাব কার্যকর হলে ইউনিয়ন ও পৌরসভায় প্রতি ওয়ার্ডে ১২ জনকে বৃত্তি দেওয়া হবে। এ ছাড়া ওয়ার্ড পর্যায়ে প্রতি উপজেলায় বা থানায় চারজন ছাত্র ও চারজন ছাত্রীকে বৃত্তি দেওয়া হবে। প্রতি বিভাগে ছয়জন করে ৪৮ জনকে সাধারণ বৃত্তি দেওয়ার পর আটটি সাধারণ বৃত্তি সংরক্ষণ করা হবে।

ডিপিই মহাপরিচালক এফ এম মনজুর কাদির বলেন, প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে বৃত্তির সংখ্যা ও অর্থ দ্বিগুণের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের এক সভায় প্রতিমন্ত্রী ও সচিবসহ সবাই সম্মতি জানিয়েছেন। ওই সভার পর অধিদপ্তর ও মাদরাসা বোর্ডকে এ সংক্রান্ত প্রস্তাব পাঠাতে বলা হয়।

তিনি বলেন, মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় আমরা যাচাই-বাছাইয়ের ভিত্তিতে এ সংক্রান্ত প্রস্তাবনা তৈরি করি। চলতি সপ্তাহে সেটি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। যেহেতু প্রতিবছর শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়ছে, বিপুল শিক্ষার্থী ভালো ফল করছে। অনেকে ভালো ফল করলেও তাদের বৃত্তি দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। এ বিষয়ে গুরুত্ব দিয়ে বৃত্তির সংখ্যা বাড়ানোর যৌক্তিকতা তুলে ধরা হয়েছে।

‘এ ছাড়া প্রাথমিকে যে পরিমাণ বৃত্তিবাবদ অর্থ দেওয়া হয়, বর্তমান বাজারে তা খুবই অপ্রতুল। সেই অর্থ দিয়ে বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা নিজেদের ব্যয় বহন করতে পারছে না। তাই যৌক্তিক হিসাব-নিকাশ করে বৃত্তির অর্থ দিগুণ করতে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে’-যোগ করেন ডিপিই মহাপরিচালক।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads