• বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ২ বৈশাখ ১৪২৭
কেন বিদেশে পড়বেন

সংগৃহীত ছবি

শিক্ষা

কেন বিদেশে পড়বেন

  • প্রকাশিত ০১ মার্চ ২০২১

বিদেশে পড়াশোনা একজন শিক্ষার্থীর জন্য অনেক উপকারী। কারণ অভিজ্ঞতায় বিজ্ঞ হওয়ার সুযোগ তৈরি হয়। বিদেশে পড়াশোনা করলে একটি দেশ সম্পর্কে, ইতিহাস-ঐতিহ্য, দর্শনীয় স্থান, আচার-আচরণ, সাহিত্য-সংস্কৃতিসহ অনেক কিছুই জানতে পারেন

সচরাচর প্রতিটি শিক্ষার্থীর স্বপ্ন থাকে বিদেশে পড়াশোনার। অনেকে পড়তে পারেন বা অনেকের স্বপ্ন অধরাই থেকে যায়। আবার একদল রয়েছে যারা বিদেশে পড়াশোনাকে প্যারা হিসেবে নেয়। কিন্তু বিদেশে পড়াশোনা একজন শিক্ষার্থীর জন্য অনেক উপকারী। কারণ অভিজ্ঞতায় বিজ্ঞ হওয়ার সুযোগ তৈরি হয়। বিদেশে পড়াশোনা করলে একটি দেশ সম্পর্কে, ইতিহাস-ঐতিহ্য, দর্শনীয় স্থান, আচার-আচরণ, সাহিত্য-সংস্কৃতিসহ অনেক কিছুই জানতে পারেন। কেন বিদেশে পড়বেন? সে সম্পর্কিত কয়েকটি উপকারিতা জানাচ্ছেন-সাব্বির আহম্মেদ

বিশ্ব দেখুন, জানুন

বিদেশে পড়াশোনা করার সবচেয়ে বড় কারণ বিশ্বকে দেখার অবাধ সুযোগ। বিদেশে পড়ার সুবাদে একটি দেশের মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি, কার্যকলাপের সাথে পরিচিত হওয়া যায়। সহজেই অভিজ্ঞতা অর্জন করা যায়। বিদেশে পড়াশোনা করার সুবিধার মধ্যে একটি দেশের ভূখণ্ড, প্রাকৃতিক দৃশ্যায়ন, ইতিহাস-ঐতিহ্য সর্বোপরি দেশের ল্যান্ডমার্ক দেখার সুযোগ তৈরি হয়। যখন আপনি বিদেশে থাকবেন তখন যে দেশে পড়াশোনা করছেন সেখানেই সীমাবদ্ধ থাকবেন না। প্রতিবেশী দেশগুলোকেও দেখতে পারবেন। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, আপনি যদি ফ্রান্সে পড়াশোনা করেন তাহলে লন্ডন, বার্সেলোনা এবং রোমসহ ইউরোপের অন্যান্য দেশও ভ্রমণ করার সুযোগ পাবেন।

শিক্ষা

বিদেশে পড়াশোনা করার আরেকটি কারণ হলো শিক্ষার নানান রীতি কৌশল রপ্ত করার সুযোগ। বিদেশের একটি ভার্সিটিতে ভর্তি হওয়ার মাধ্যমে আপনার মেধাকে বিকশিত করার সুযোগ পাবেন; যেটা হয়তো বাড়িতে উন্মোচিত নাও করতে পারতেন।

নতুন সংস্কৃতি গ্রহণ

যারা বিদেশে পড়াশোনা করতে পছন্দ করেন, দেশ ছেড়ে বিদেশে পাড়ি জমানোর সাথে সাথে নতুন সংস্কৃতি গ্রহণের যাত্রা শুরু করেন। যখন বিদেশে পড়াশোনা করবেন নতুন খাদ্য, রীতিনীতি, ঐতিহ্য এবং সামাজিক পরিবেশে বেড়ে উঠবেন। আর নতুন কিছু জানার, শেখার মাধ্যমে অভিজ্ঞতার ঝুড়ি হবে ভরপুর। দেখতে পাবেন জাতি, জনগণ এবং ইতিহাসের জন্য তাদের উপলব্ধি, কাজকর্ম। তখন আপনি একটি সম্পূর্ণ নতুন জীবনধারার সাথে যুক্ত হয়ে যাবেন।

ভাষা দক্ষতা

যদি আপনি বিদেশে পড়াশোনা করার পরিকল্পনা করেন, তাহলে প্রথমেই শিখতে হবে ভাষা। নতুন একটি ভাষা শেখার মাধ্যমেও নিজেকে নিয়ে যেতে পারেন অনন্য উচ্চতায়। নতুন ভাষা শেখার মাধ্যমে নতুন একটি জাতিকে জানার আগ্রহ বেড়ে যায়।

কর্মজীবনে সুযোগ

পড়াশোনা শেষ করে যখন দেশে ফিরে আসবেন তখন সংস্কৃতি, ভাষার দক্ষতা, শিক্ষা নিয়ে ফিরে আসবেন। তখন এগুলো সবই আপনার ভবিষ্যৎ কর্মজীবনকে সহজ, সুন্দর এবং আকর্ষণীয় প্ল্যাটফরম তৈরি করতে সহায়তা করবে। আবার অনেক শিক্ষার্থীকে দেখা যায়, পড়াশোনা শেষ করে বা মাঝ সময়ে সেই দেশেই কাজ খুঁজতে থাকেন এবং সেখানে থেকে যাবার সিদ্ধান্ত নেন। দেখতে পাবেন যে চাকরি খোঁজার সময় সেখানকার শিক্ষাসনদ খুবই সহায়ক ভূমিকা রাখছে।

বন্ধনে বন্ধুত্ব

বিদেশে পড়াশোনার আরেকটি বড় সুবিধা হলো বিভিন্ন প্রেক্ষাপট ও দেশ থেকে আগত শিক্ষার্থীদের সাথে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠা। পড়াশোনা শেষ হওয়ার পর, আন্তর্জাতিক বন্ধুদের সাথে কমিনিউকেশনের মাধ্যমে ভালো একটা পজিশনে যাওয়া যায়। আপনি দেশে ফিরে এলেও যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমে বন্ধুত্ব বজায় রেখে নিজেকে ভবিষ্যতে অনন্য উচ্চতায় নিতে যেতে পারবেন।

ব্যক্তিগত উন্নয়ন

খেয়াল করে থাকবেন, বিদেশে পড়াশোনার প্ল্যাটফরম আপনাকে মুক্ত স্বাধীনতায় রেখেছে। যেসব শিক্ষার্থী বিদেশে পড়াশোনা করেন তারা জাতির অভিযাত্রী হয়ে ওঠেন। অজানাকে জানার, অচেনাকে চেনার মাধ্যমে নতুন কিছু আবিষ্কার করে ফেলেন। এমনটা হয় মূলত স্বাধীনতায়, মুক্তমতে অভ্যস্ত হওয়ার সুবাদে। এ ছাড়া ভিন্ন সংস্কৃতি উপলব্ধির মাধ্যমে নিজেকে আবিষ্কার করার সুযোগ হয়ে ওঠে। এ ছাড়া নতুন জায়গায় থাকার কারণে যে-কোনো পরিস্থিতিতে নিজেকে মানিয়ে নেওয়ার ক্ষমতা তৈরি হয়ে যায়।

লেখক: অরণ্য সৌরভ

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads