• মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৪
ads
ভবিষ্যতে বিদ্যুতে ভর্তুকি থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

বৃহস্পতিবার রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সপ্তাহের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ছবি: বাসস

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি

ভবিষ্যতে বিদ্যুতে ভর্তুকি থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮

সরকার ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য উন্নত সমৃদ্ধ জীবন নিশ্চিত করতে কাজ করে যাচ্ছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবাইকে বিদ্যুৎ ও জ্বালানির অপচয় রোধে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, সরকার এখন বিদ্যুৎ খাতে বড় ধরনের ভর্তুকি দিচ্ছে। ভবিষ্যতে এই ভর্তুকি তুলে নেওয়া হবে। 

আজ বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সপ্তাহের উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, গড় হিসাব করলে দেখা যায় বিদ্যুৎ উৎপাদনে খরচ হচ্ছে ৬ টাকা ২৫ পয়সা প্রতি কিলোওয়াট। কিন্তু সেই বিদ্যুৎ বিক্রি করছি ৪ টাকা ৮২ টাকা কিলোওয়াট হারে। 


শেখ হাসিনা বলেন, ২০০৯ সালে সরকারের দায়িত্ব নেয়ার সময় বিদ্যুতের অপর্যাপ্ততা ও লোডশেডিং-এ জনজীবন বিপর্যস্ত ছিল। এ অবস্থার উত্তরণের জন্য ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। বিগত প্রায় সাড়ে ৯ বছর সরকারি ও বেসরকারি খাতে ৯৪টি বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে ১৩,৮১১ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হয়েছে।


তিনি বলেন, ‘বর্তমানে ১৪,১৩৪ মেগাওয়াট ক্ষমতার ৫৬টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণাধীন রয়েছে। বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ২০,০০০ মেগাওয়াটে উন্নীত হয়েছে। দেশের ৯০ শতাংশ জনগোষ্ঠী বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসেছে। ২০২১ সালের মধ্যে আমরা সকলের ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেব, ইনশাআল্লাহ।’ 


প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০৮’র নির্বাচনে আমাদের নির্বাচনী ইশতেহারে আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার ঘোষণা দিয়েছিলাম। আজকের বাংলাদেশ সত্যিকার অর্থে ডিজিটাল বাংলাদেশ হয়েছে। আমাদের ছেলে-মেয়েরা আধুনিক জ্ঞান সম্পন্ন হবে। আমার সেটা চাই। 


তিনি বলেন, ২০৪১ সালে আমরা বাংলাদেশকে কিভাবে গড়ে তুলবো এবং পরবর্তীতে শতাব্দীতে বাংলাদেশ কি হবে সেই বদ্বীপ পরিকল্পনা ২১০০ প্রণয়ন করে সেটাকেও এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এভাবেই বাংলাদেশের জন্য একটা ভবিষ্যত গড়ে তোলার পদক্ষেপ নিচ্ছি। 


প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিদ্যুৎ চাহিদা মেটাতে পার্শ্ববর্তী পশ্চিমবঙ্গ থেকে এক হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করা হবে। ভারতের মাধ্যমে নেপাল-ভুটান থেকেও বিদ্যুৎ আনা হবে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads