• মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
সড়ক দুর্ঘটনা একটি সামাজিক সমস্যা

ছবি : সংগৃহীত

মুক্তমত

সড়ক দুর্ঘটনা একটি সামাজিক সমস্যা

  • প্রকাশিত ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

হাদিউল হৃদয়

 

 

সড়ক দুর্ঘটনা বর্তমানে একটি নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার। সম্প্রতি বাংলাদেশের অন্যতম দুঃখজনক সমস্যা হলো, সড়ক দুর্ঘটনা। নিরাপদ জীবনযাপনের জন্য একটা সার্বক্ষণিক হুমকি সড়ক দুর্ঘটনা। আমাদের দেশে প্রতিদিনই সংঘটিত হচ্ছে ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনা, নির্বিবাদে প্রাণ হারাচ্ছে অসংখ্য মানুষ। খবরের কাগজ খুললেই চোখে পড়ে সড়ক দুর্ঘটনার খবর। সড়ক দুর্ঘটনা মৃত্যুদূত হয়ে দাঁড়িয়ে আছে আমাদের দরজায়।

প্রতিটি দুর্ঘটনা আমাদের মনে কষ্টের রেখাপাত টানে। মর্মান্তিক এসব দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে বিভিন্ন বয়স ও পেশার মানুষ। এসব দুর্ঘটনার ফলে আমরা হারাচ্ছি আমাদের প্রিয়জন, কাছের মানুষ, আপনজন, মেধাবী বন্ধু। বর্তমানে সড়ক দুর্ঘটনা এতটাই বৃদ্ধি পেয়েছে, রাস্তায় বেরুলেই সবার মনে একটা ভীতি কাজ করে। অনেকে এটাও ভেবে থাকেন, বাসা থেকে বের হয়েছেন, সুস্থভাবে ফিরতে পারবেন কি না তার কোনো নিশ্চয়তা নেই।

এত কিছুর পরও সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের তেমন কোনো মাথাব্যথা নেই বললেই চলে। তা ছাড়া দুর্ঘটনার জন্য দায়ী চালকদের যথাযথ শাস্তি পেতেও দেখা যায় না। সড়ক দুর্ঘটনার মূল কারণ চালকদের বেপরোয়া গাড়ি চালানো, যানবাহনের যান্ত্রিক ত্রুটি, রাস্তাঘাটের দুরবস্থা ইত্যাদির প্রতিও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সজাগ দৃষ্টি প্রয়োজন।

বর্তমান রাস্তাঘাটের দুরবস্থার প্রকৃত উদাহরণ ঢাকা শহরের বিভিন্ন রাস্তাঘাটসহ সারা দেশের রাস্তাগুলোর দুরবস্থার কারণে যাত্রীরা দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন প্রতিনিয়ত। এ অবস্থার মধ্য দিয়ে প্রতিদিন হাজারো মানুষ যাতায়াত করে চলছে এবং ভোগান্তির শিকারও হচ্ছে। ঢাকার সঙ্গে দেশের উত্তরাঞ্চল ও পূর্বাঞ্চলের যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম রাস্তা। দেশের উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করার ক্ষেত্রে সুষ্ঠু পরিবহন ব্যবস্থা, যাতায়াত, মালামাল আনা-নেওয়ার ক্ষেত্রে রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। রাস্তাগুলো দীর্ঘদিন সংস্কারের অপেক্ষায় থাকলেও তা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজরে আসে না। তবে বিভিন্ন সময়ে এসব খবর সংবাদমাধ্যমেও এক্ষেত্রে উদাসীনতা লক্ষ করা যায়।

কারণ ছাড়া দুর্ঘটনা ঘটে না। সড়ক দুর্ঘটনার বহুবিধ কারণ অনুসন্ধানে পাওয়া যায়, চালকদের বেপরোয়া গাড়ি চালানো; ত্রুটিযুক্ত যানবাহন রাস্তায় নামানো; যথাযথ প্রশিক্ষণ ছাড়াই গাড়ি চালানো; গাড়ি চালানোর সময় মোবাইল ফোনে কথা বলা; দক্ষ ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ড্রাইভারের অপ্রতুলতা; অধিকাংশ গাড়ি উপযোগী নয় বা রিকন্ডিশন্ড গাড়ির অধিক ব্যবহার; নিরাপত্তা আইন ও ট্রাফিক আইনের যথাযথ প্রয়োগ না করা; নিম্নমানের রাস্তা নির্মাণ; ব্যস্ত রাস্তা দিয়ে হেঁটে চলাফেরা করা; গুরুত্বপূর্ণ ও ব্যস্ত সড়কগুলো পথচারীদের জন্য প্রয়োজনীয় ফুটপাত না থাকা; এবং অনিয়ন্ত্রিত ওভারটেকিং ইত্যাদি।

সড়ক দুর্ঘটনার ফলে সবচেয়ে বড় ক্ষতি হচ্ছে মানবসম্পদের বিনষ্টি। এ ক্ষতি অপূরণীয়। তারপরেই রয়েছে অর্থনৈতিক ক্ষয়ক্ষতি। প্রতিবছর সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ২৫ কোটি ডলার বা এক হাজার কোটি টাকা। সমস্যা জটিলতর হয় তখনি, যখন দেখা যায় ক্ষয়ক্ষতির প্রায় পুরোটাই বৈদেশিক মুদ্রার ওপর গিয়ে পড়ে। কারণ মোটরগাড়ি কিংবা এর স্পেয়ার পার্টস কিনতে হয় বিদেশ থেকে। গবেষণায় দেখা যায়, উন্নয়নশীল দেশগুলোর প্রতি কিলোমিটারে সড়ক দুর্ঘটনার হার ব্রিটেনের চেয়ে দ্বিগুণ। বাংলাদেশে প্রতি দশ হাজার যানবাহনে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃতের হার প্রায় ১৬৯ জন। যা উন্নত দেশগুলোর তুলনায় প্রায় ৩০ গুণ বেশি।

সড়ক দুর্ঘটনা বর্তমানে আমাদের সামাজিক সমস্যায় পরিণত হয়েছে। মানুষ এখন নিরাপত্তাহীন। প্রতিনিয়ত নষ্ট হচ্ছে মূল্যবান জীবন। তাই আমাদের দেশ, জাতি, সর্বোপরি দেশের জনগণের কল্যাণের জন্য এ সমস্যা থেকে উত্তরণের পথ খুঁজে বের করা আশু প্রয়োজন। সড়ক দুর্ঘটনা যত জটিল সমস্যাই হোক না কেন, আমরা সবাই এর সমাধানে এগিয়ে এলে, আন্তরিকভাবে চেষ্টা করলে এ থেকে পরিত্রাণ পাওয়া অসম্ভব কিছু নয়। এ জন্য সবাইকে সচেতন করে তুলতে হবে এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাদি গ্রহণ করতে হবে। তবেই সড়কপথ হয়ে উঠবে নিরাপদ ও আনন্দদায়ক। নিশ্চিত হবে নাগরিক জীবন।

লেখক : গণমাধ্যমকর্মী

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads