• রবিবার, ৫ এপ্রিল ২০২০, ২২ চৈত্র ১৪২৬
ads
বায়ুদূষণ যেভাবে জাতিকে ধ্বংস করছে

প্রতীকী ছবি

মুক্তমত

বায়ুদূষণ যেভাবে জাতিকে ধ্বংস করছে

  • প্রকাশিত ১২ মার্চ ২০২০

আব্দুল ওয়াহিদ

 

 

আমাদের চারপাশে যা কিছু আছে, তা নিয়েই আমাদের পরিবেশ। মাটি, পানি এবং বায়ু হলো পরিবেশের খুবই গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। সুস্থ ও সুন্দরভাবে বেঁচে থাকার জন্য এই তিনটি উপাদান খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। এর কোনো একটি উপাদান ছাড়া মানুষ, প্রাণী এমনকি উদ্ভিদকুলও বেঁচে থাকতে পারে না। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য উপাদান হচ্ছে বায়ু, গাছ মাটিস্থ পানি, বাতাসের CO2-এর  মাধ্যমে সালোকসংশ্লেষণ প্রক্রিয়ায় খাদ্য তৈরি করে, সঙ্গে O2 উৎপন্ন করে পরিবেশে ছেড়ে দেয় যা কি না, মানুষসহ সব প্রাণী শ্বসনের জন্য ব্যবহার করে থাকে।

আমরা প্রতিনিয়ত আমাদের ঘরবাড়ি, চেয়ার, টেবিল, আসবাব ইত্যাদি তৈরির জন্য নির্বিচারে গাছপালা কেটে ফেলছি, ফলে পরিবেশে CO2-এর পরিমাণ বেড়ে যাচ্ছে। প্রতিদিন ঢাকা শহরে প্রায় হাজার হাজার গাড়ি চলছে, যা থেকে প্রচুর CO2 ও অন্যান্য গ্যাস নির্গত হচ্ছে। আবার কলকারখানা, ইটের ভাটা, ২০ বছরের পুরোনো গাড়ি ইত্যাদি থেকে প্রচুর পরিমাণে CO2 গ্যাস নির্গত  হচ্ছে। গৃহস্থালির ময়লা, প্লাস্টিক, পলিথিন পোড়ানো হলে CO, CH4, SO2, NOX  ইত্যাদি গ্যাস নির্গত হচ্ছে যা বায়ুদূষণের জন্য দায়ী। পৃথিবীর সব দেশেই নগরায়ণ ও শিল্পায়নের হার খুব দ্রুত বহুগুণ পরিমাণে বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাংলাদেশের ঢাকাসহ চট্টগ্রাম, রাজশাহী, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর এমনকি ময়মনসিংহ অঞ্চলেও দ্রুত নগরায়ণ ও শিল্পায়নের মাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে। দ্রুত নগরায়ণ ও শিল্পায়নের ফলেই পরিবেশের বায়ুদূষণের মাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে। অপরিকল্পিত নগরায়ণ ও শিল্পায়নের ফলেই ঢাকা শহরের বায়ু দূষিত হচ্ছে। ঢাকা শহরের ৩০-৪০ বছরের পুরোনো গাড়ির সংখ্যাই বেশি যা প্রতিনিয়তই পরিবেশে বিভিন্ন গ্যাস নির্গত করছে, যা কি না, বায়ুদূষণের অন্যতম কারণ হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

বিশ্বের যে পাঁচটি দেশ বায়ুদূষণের শতভাগ শিকার তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে বাংলাদেশের ঢাকা শহর। বিশ্বে বায়ুদূষণজনিত মৃত্যুর সংখ্যার দিক দিয়ে ঢাকার অবস্থান পঞ্চম। বিশ্ব স্বাস্থ্যসংখ্যার ২০১৪ সালের রিপোর্ট অনুযায়ী ২০১২ সালে বিশ্বে বায়ুদূষণের কারণে প্রায় ৭ মিলিয়ন মানুষের অকালমৃত্যু হয়েছে। বায়ুদূষণের ফলে ঢাকার মানুষের চলাফেরা, কাজকর্ম ইত্যাদি বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এর ফলে ঢাকার পরিবেশ খুবই নাজুক এবং ঢাকার অর্থনীতিও খুবই হুমকির মধ্যে আছে। বায়ুদূষণের কারণে হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোক হতে পারে। বিশ্বে প্রতিবছর প্রায় ৩ মিলিয়ন মানুষের মৃত্যুর কারণ হচ্ছে হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোক। বায়ুদূষণের কারণে স্ট্রোক, ফুসফুসের ক্যানসার, কিডনি রোগ, জন্মগত ত্রুটি, শুক্রাণুর ক্ষতি, উচ্চ রক্তচাপ—এমনকি মানসিক সমস্যা হতেও পারে। সূর্যের রশ্মি যেমন ওজনস্তর ক্ষতি করে ঠিক তেমনিভাবে দূষিত বায়ু মানুষের ফুসফুসকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে, যার ফলে মানুষ ক্যানসার নামক মারাত্মক রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। বায়ুদূষণের কারণে ঢাকা শহরের মানুষ তীব্র সমস্যায় ভুগছে। বায়ুদূষণের কারণে মানুষের মস্তিষ্কে চাপের সৃষ্টি হয়, যা মানুষের গুরু-মস্তিষ্ককে ক্ষতিগ্রস্ত করে; ফলে তা মানুষের ঘ্রাণ, চিন্তাচেতনা, স্মৃতি, জ্ঞান-বুদ্ধি-বিবেক লোপ করে দেয়। এর ফলস্বরূপ মানুষ ঠিকমতো কাজ করতে পারে না। কাজে অমনোযোগী হয়, ঠিকমতো অফিসে যাওয়া হয় না ইত্যাদি বিভিন্ন ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। এই কারণে মানুষের আয়ের উৎসও হ্রাস পাচ্ছে, যা কিনা অর্থনীতির ওপরও বড় ধরনের চাপের সৃষ্টি করতে পারে।

বায়ুদূষণের কারণে ঢাকাসহ পার্শ্ববর্তী এলাকাগুলোর পরিবেশ ও সম্পদ নষ্ট হচ্ছে। বায়ুদূষণের ফলে নানা পেশাজীবী মানুষের কর্মক্ষেত্র হ্রাস পাচ্ছে, জনজীবন হুমকির সম্মুখীন হচ্ছে। ফলে জাতীয় অর্থনীতিও হুমকিতে পড়ছে। বায়ুদূষণ একটি মারাত্মক আতঙ্ক। এই দূষণ প্রতিরোধ করতে হলে সরকারকে নানামুখী প্রদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। আবার সরকারের পাশাপাশি নানা পেশাজীবী মানুষকে এগিয়ে আসতে হবে। বায়ুদূষণ রোধে সবাইকে সচেতন থাকতে হবে। সবাইকে বায়ুদূষণের ক্ষতিকর প্রভাব সম্পর্কে অবহিত করতে হবে। এটির ক্ষতিকর প্রভাব সম্পর্কে বিভিন্ন গণমাধ্যম, সোশ্যাল মিডিয়ায়সহ সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বায়ুদূষণের ক্ষতিকর প্রভাব সম্পর্কে জনগণকে অবহিত করতে হবে, সচেতন করে তুলতে হবে। পরিবেশ দূষণ প্রতিরোধে পরিবেশ সংরক্ষণ আইনের যথাযথ প্রয়োগ ও বাস্তবায়ন নিশ্চিত করা বাঞ্ছনীয়। এ ক্ষেত্রে জরুরি ভিত্তিতে পরিবেশ অধিদপ্তরকে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত। সর্বোপরি, সরকারের পাশাপাশি আপনি, আমি সচেতন হলেই কিন্তু বায়ুদূষণের মতো বড় একটি মারাত্মক সমস্যা প্রতিরোধ করা খুব সহজেই সম্ভব। আসুন, আমরা যার যার অবস্থান থেকে সচেতন হই, পরিবেশ সুস্থ রাখি, দেশকে এগিয়ে নিই।

 

লেখক : শিক্ষার্থী, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়, ত্রিশাল, ময়মনসিংহ

awwahid35@gmail.com

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads