• রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯, ১০ চৈত্র ১৪২৪
ads
শরীরের জন্য অতি প্রয়োজনীয় ভিটামিন ডি

ছবি : সংগৃহীত

স্বাস্থ্য

শরীরের জন্য অতি প্রয়োজনীয় ভিটামিন ডি

  • প্রকাশিত ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮

ভিটামিন ডি’র অভাবে অনেক ধরনের অসুখ-বিসুখের ঝুঁকি দেখা দেয়। সূর্যালোকের সংস্পর্শে আসার পর দেহ-ত্বক ভিটামিন ডি তৈরি করে। তাছাড়া খাবার দাবার থেকেও এ ভিটামিন পাওয়া যায়। ভিটামিন ডি’র ঘাটতির কারণে দেহের হাড় নরম ও দুর্বল হয়ে যেতে পারে।

ভিটামিন ডি দুই ধরনের- ভিটামিন ডি২ এবং ভিটামিন ডি৩। ভিটামিন ডি২ পাওয়া যায় সাধারণত খাবারে এবং ভিটামিন ডি৩ পাওয়া যায় সূর্য কিরণে। আবার ভিটামিন ডি৩ কেবল মাত্র একটি সাধারণ ভিটামিন নয়। এটি রক্তে ক্যালসিয়াম ও ফসফরাসের সাধারণ পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে। রক্তে যদি ফসফরাসের পরিমাণ কমে যায় তবে কাজ কর্মের পর একজন মানুষ দ্রুত দুর্বল হয়ে পড়ে। রক্তে ফসফরাস ভারী কাজের পর শরীরকে আবার সচল করতে বিশেষ ভূমিকা নেয়। এছাড়া ভিটামিন ডি৩ অন্ত্রের এবং হাড়ের ক্যালসিয়ামও নিয়ন্ত্রণ করে। এর ফলে মানুষের হাড়ের গঠন শক্ত হয়। ভিটামিন ডি৩ শরীরের একাধিক রোগ নিয়ন্ত্রণে বিশেষ ভূমিকা রাখে। ভিটামিন ডি৩-এর সঙ্গে শরীরের ওজন কমা ও বাড়ার বিশেষ সম্পর্ক রয়েছে।

আমরা কোথায় পাব ভিটামিন ডি : খাবারের মধ্যমে (plant source) ভিটামিন ডি২ পাওয়া যায়। ভিটামিন ডি৩ সাধারণত সূর্যকিরণ থেকে। তাছাড়া প্রাণিজ প্রোটিন থেকে আমরা শরীরে ভিটামিন ডি৩ বাড়াতে পারি।

সূর্যকিরণ : কেউ যদি নিয়মিত সূর্যের আলোয় না যায় তবে তার শরীরে ভিটামিন ডি ৩’র অভাব দেখা দিতে পারে। অতএব সূর্যকিরণ আমাদের শরীরের ভিটামিন ডি৩ তৈরিতে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

মাশরুম : মাশরুম একটি অপ্রচলিত পুষ্টিকর খাবার। মাশরুম খেলে আপনার শরীরে ভিটামিন ডি২-এর পরিমাণ বাড়বে।

সূর্যমুখীর বীজ : সূর্যমুখী ফুল থেকে পাওয়া বীজ ভিটামিন ডি২ এবং ভিটামিন ডি৩-এর বিশেষ উৎস! যারা নিরামিষ খাবার খান তাদের জন্য সূর্যমুখী ফুলের বীজ একটি উৎকৃষ্ট ভিটামিন ডি-এর উৎস। এছাড়া আপনি সূর্যমুখী বীজের তেল থেকে ও ভিটামিন ডি পেতে পারেন।

 

পুষ্টিবিদ আয়শা সিদ্দিকা

— ডায়েট ও নিউট্রিশন কনসালট্যান্ট, জাপান বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads