• সোমবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১১ মাঘ ১৪২৭

স্বাস্থ্য

শীতে ত্বক, চুল এবং ঠোঁটের যত্ন

  • প্রকাশিত ৩১ ডিসেম্বর ২০২০

ঋতুর রাণীখ্যাত শীত চলছে! বছরের এই সময়টি কমবেশি সবার-ই খুব পছন্দের। তবে এই সময়ের বাতাসে একপ্রকার পদার্থ থাকে যা ত্বকের সাথে ধ্বংসাত্মক খেলায় মেতে উঠে। যদি পর্যাপ্ত যত্ন না নেওয়া হয় তবে শুষ্ক ত্বক এবং ঠোঁট ফাটিয়ে দেয়। আপনাদের জন্য কয়েকটি টিপস নিয়ে আজ হাজির হলাম, যা আপনার ত্বককে হাইড্রেটেড বা আলোকিত রাখতে সহায়তা করবে। শুষ্ক ত্বক তৈলাক্ত ত্বকের চেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয় তাই আপনার যদি শুষ্ক ত্বক থাকে তবে আপনার জন্যই এই পরামর্শগুলি।

ডায়েটের দিকে তাকান:

আপনার ত্বকের টেক্সচার কেবল বাইরের চিকিৎসার উপরই নয়, আপনার খাদ্য গ্রহণের উপরও নির্ভর করে। সঠিক পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণ ত্বককে অভ্যন্তর থেকে চাঙ্গা রাখতে সহায়তা করে। আমাদের শরীরের জন্য জল প্রয়োজনীয় এবং প্রতিদিন ২-৩ লিটারের বেশি জল গ্রহণ সবসময়েই বজায় রাখা উচিত। এটি আপনার ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখার পাশাপাশি ত্বকের ব্যাধিগুলি উপশম করতে সহায়তা করে। আপনার প্রতিদিনের ডায়েটে ফল এবং শাকসবজি রাখুন, কারন তা আপনাকে প্রচুর পরিমাণে জল উৎপাদনে সহায়হতা করবে। আপনার ডায়েটে প্রাইমরোজ সিরাপ / ক্যাপসুল এবং অলিভ অয়েলও রাখতে পারেন, তা ত্বককে নরম করতে সহায়তা করে।

আর্দ্রতা প্রতিদিন:

শীতল আবহাওয়া বা শীতল বাতাস শুষ্ক ত্বকের অবস্থাকে খারাপ করে তোলে। শীতের সময় ময়েশ্চারিয়ারস এবং কোল্ড ক্রিমগুলি ব্যবহারে নজর দিতে পারেন। আপনার ত্বকের আর্দ্রতা সংরক্ষণ এবং পূরণের জন্য পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকুন। প্রয়োজনে প্রতি সন্ধ্যায় ময়েশ্চারাইজিং নাইট ক্রিম ব্যবহার করুন। উপযুক্ত ব্র্যান্ডগুলোর বিষয়ে চর্মরোগ বিশেষজ্ঞের মতামতের পরে, আপনার চোখের চারপাশে এবং শুকনো অঞ্চলে প্রতিদিন সকালে ময়শ্চারাইজার প্রয়োগ করুন।

তেল থেরাপি:

শুষ্কতা নিরাময়ের জন্য স্নানের আগে আপনার ত্বকে সামান্য নারকেল তেল দিয়ে মালিশ করুন। এমন ক্রিম বা সাবান ব্যবহার করুন যা আপনার ত্বককে অতিরিক্ত শুষ্কতা থেকে বাঁচাতে সহায়তা করে। আপনি যে পানি দিয়ে স্নান করতে যাচ্ছেন তাতে কয়েক ফোঁটা তেল ঢালুন এটি স্নানের সময় হারিয়ে যাওয়া আর্দ্রতা ধরে রাখতে সহায়তা করবে। শীতের সময় খুব গরম জল ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন এটি আপনার ত্বকের প্রাকৃতিক তেলকে হ্রাস করতে পারে।

ঠোঁটের যত্নে মানা :

আপনার ঠোঁট চাটানো এড়িয়ে চলুন এবং আপনার ঠোঁটের পৃষ্ঠের ত্বকে কামড়াবেন না। যদি আপনি ঠোঁট চিবিয়ে থাকেন তবে ত্বকের আরোগ্য হওয়ার কোনও সুযোগ থাকবে না। এটি অভ্যাসে পরিণত হয়ে উঠবে আর আপনাকে কালো রঙের ঠোঁট উপহার দেবে। এই অভ্যাস থেকে সরে আসা খুবই কষ্টসাধ্য তবুও প্রচেষ্টা থাকা ভাল।

চুলের যত্ন:

চুল ভেজা নিয়ে বাইরে যাবেন না কারণ ধূলিকণা চুলে লেপ্টে গিয়ে চুলের ভাঙ্গনের ঝুঁকি হতে পারে।

বছরে ৩৬৫ দিন সূর্য উদয় হয়। গ্রীষ্ম, বৃষ্টি বা শীত যাই হোক না কেন আপনার ত্বককে রৌদ্র থেকে রক্ষা করা দরকার। শীতের সময় যদি আপনি সানস্ক্রিন প্রয়োগ না করেন তবে পিগমেন্টেশন বাড়তে পারে।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads