• বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১ কার্তিক ১৪২৪
ads
বাংলাদেশের আজ কোরিয়া পরীক্ষা

পঞ্চম স্থান নির্ধারণী ম্যাচে আজ প্রতিপক্ষ শক্তিশালী দক্ষিণ কোরিয়া

ছবি : ইন্টারনেট

হকি

বাংলাদেশের আজ কোরিয়া পরীক্ষা

  • প্রকাশিত ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮

কবিরুল ইসলাম, ইন্দোনেশিয়া থেকে

১৯৭৮-এ প্রথমবার এশিয়ান গেমসে অংশ নিয়েই হকিতে ষষ্ঠ স্থান অর্জন করেছিল বাংলাদেশ। এরপর কেটে গেছে ৪০ বছর। প্রায় চার দশক পর আবারো ষষ্ঠ স্থানটি নিশ্চিত হয়ে গেছে লাল-সবুজদের। তবে এবার সুযোগ আছে আরো একধাপ সামনে এগিয়ে যাওয়ার। তবে সে পথটা বেশ কঠিন। পঞ্চম স্থান নির্ধারণী ম্যাচে আজ প্রতিপক্ষ শক্তিশালী দক্ষিণ কোরিয়া। আজ গেলোরা বুঙ কার্নো স্টেডিয়ামের হকি গ্রাউন্ডে বাংলাদেশ সময় দুপুর দুটায় শুরু হবে ম্যাচটি।

এ ম্যাচে জয় পেলে নিজেদের হকিতে নতুন রেকর্ড গড়ে ফেলব গোপীনাথনের শিষ্যরা। একই দিন ব্রোঞ্জের লড়াইয়ে মাঠে নামবে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তান-ভারত। এশিয়ান হকির শীর্ষ এ দল দুটি এবার সেমি ফাইনাল থেকেই বিদায় নিয়েছে। শেষ চারের লড়াইয়ে মালয়েশিয়ার কাছে হেরেছে ভারত। জাপানের কাছে পাকিস্তান হেরে ছিল পড়ে ফাইনাল থেকে। স্বর্ণপদক প্রত্যাশী এ দুই দলের দ্বৈরথ একই ভেন্যুতে শুরু হবে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায়।  

এশিয়ান গেমসে ৪ বারের চ্যাম্পিয়ন কোরিয়া। বিশ্ব র্যাঙ্কিংয়ে তাদের অবস্থান ১৪ নম্বরে। আর বাংলাদেশ আছে ৩১তম স্থানে। শক্তির বিচারে কোরিয়ার সামনে একেবারেই নস্যি লাল-সবুজরা। তবু বাংলাদেশের বড় ভরসা বুক চিতিয়ে লড়াই করার মানসিকতা। আগে যেখানে শুধু ডিফেন্স সামলাতেই সময় যেত বাংলাদেশের, সেখানে এখন লড়াই করতে শিখেছে জিমি-শিটুলরা। শুধু চাপ সামলাতেই নয়, এখন প্রতিপক্ষকে চেপেও ধরা শিখেছে তারা। দলীয় অধিনায়ক ফরহাদ হোসেন শিটুলের কণ্ঠেও যেন আত্মবিশ্বাসের সুর, ‘শুধু ডিফেন্সিভ খেলার কোনো কারণ নেই। আমাদের স্বাভাবিক খেলাটা ধরে রাখতে চাইব। মনস্তাত্ত্বিক একটা ব্যাখ্যাও রয়েছে। সেটি হলো জাপানের কাছে সেমিতে হেরে তারা মানসিকভাবে একটু দুর্বল রয়েছে, আমরা চাইব সে সুযোগটা নিতে। তা ছাড়া তাদের সঙ্গে ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা তো আমাদের রয়েছেই। সব কিছু প্রয়োগে আশা করছি ভালো একটা কিছু হবে।’ শক্তিশালী কোরিয়ার  বিপক্ষে খেলোয়াড়রা সামর্থ্যের সেরাটা দিয়ে খেললেই খুশি থাকবেন কোচ গোপীনাথন, ‘ওরা যদি আজ নিজেদের সেরাটা দিয়ে খেলতে পারে, তাতেই আমি খুশি। ডিফেন্সিভ খেলা আমি পছন্দ করি না। আমাদের ছেলেদের অ্যাটাকিং করে খেলার মতো স্কিল রয়েছে।’

আজকের ম্যাচকে ঘিরে একটি আনন্দ-বেদনার বিষয়ও থাকবে বাংলাদেশ শিবিরে। দেশের পিসি স্পেশালিস্ট মামুনুর রহমানের শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ আজ। এই ম্যাচের পরই জাতীয় দল থেকে অবসর নেবেন তিনি। ফলে কণ্ঠ কিছুটা ভারী হয়ে চয়নের, ‘অনেক তো খেললাম। এবার নতুনদের সুযোগ দিতে চাই। দোয়া চাই, যেন শেষ ম্যাচটি সুখের হয়।’ প্রতিপক্ষ সম্পর্কে অভিজ্ঞ এ স্ট্রাইকার বলেন, ‘কোরিয়ার সক্ষমতা, দুর্বলতা সম্বন্ধে সবকিছু আমাদের জানা আছে। তাদের ভিডিও ফুটেজ দেখা হয়েছে। তারা পেনাল্টি কর্নারে সবচেয়ে বেশি স্ট্রং। চেষ্টা থাকবে পেনাল্টি কর্নার আটকানো। তাছাড়া আমাদের সমন্বয় ভালো। ভালো খেলব এটি বলতে পারি।’

এশিয়াডে আসার আগে গত জুলাই মাসে কোরিয়া গিয়ে সেখানে জাতীয় দলের বিপক্ষে পাঁচটি অনুুশীলন ম্যাচ খেলেছিল জিমি-চয়ন-আশরাফুলরা।  প্রথম ম্যাচে ৩-২, দ্বিতীয় ম্যাচে ৫-২, তৃতীয় ম্যাচে ৬-০, চতুর্থ ম্যাচে ৩-৩ এবং শেষ ম্যাচে ৪-১ গোলে হারে বাংলাদেশ জাতীয় হকি দল। বড় সাফল্য চর্তুথ ম্যাচে ড্র। যা কিনা সে সময় আনন্দে ভাসিয়েছিল গোটা দলকে। গোপীনাথনও সহাস্যে বলতে পেরেছিলেন ভয়কে জয় করার কথা। তবে প্রাকটিস ম্যাচ আর মূল ম্যাচ এক কথা নয়। যেখানে সামান্য ভুলেরও কোনো ক্ষমা নেই। লড়াইয়ের মূল মঞ্চে আজ কোরিয়ার বিপক্ষে পঞ্চম স্থান নির্ধারণীতে কতটুকু ভালো খেলতে পারে, সেটিই দেখার অপেক্ষায় হকিপ্রেমীরা।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads