• মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ads
৫২ পেরিয়ে সালমা হায়েক

ছবি : সংগৃহীত

হলিউড

৫২ পেরিয়ে সালমা হায়েক

  • বিনোদন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সময়ের পরিক্রমায় মানুষের বয়স বাড়ে। সে আস্তে আস্তে দুর্বল হতে থাকে। কিন্তু এর বিপরীত পরিক্রমাও ঘটে। যেমনটি ঘটেছে মেক্সিকান ও আমেরিকান অভিনেত্রী সালমা হায়েকের ক্ষেত্রে। ৫২ বছর পেরিয়ে ৫৩-তে পা দিলেন এ তারকা। নিজের জন্মদিনে ফিরোজা কালারের বিকিনি পড়ে সমুদ্রসৈকতে উষ্ণতা ছড়িয়েছেন। সবাইকে মেসেজ দিয়েছেন ‘আমার শুভ জন্মদিন। সবাইকে শুভেচ্ছা। তোমাদের সবাইকে ভালোবাসি।’ 

সালমা হায়েক শুধু অভিনেত্রীই নন, তিনি একাধারে একজন পরিচালক, টেলিভিশন ও চলচ্চিত্র প্রযোজক। বেশ কিছু দাতব্য কাজের সঙ্গে জড়িত এবং  মানবিক বিষয়ে গণসচেতনতার কাজে সোচ্চার। এর মধ্যে আছে নারীর প্রতি সহিংসতা এবং অভিবাসীদের প্রতি বৈষম্য।

মেক্সিকোর ছোট্ট একটি থিয়েটার হলে চলছিল মেক্সিকান ছবি ‘উইলি ওংকা অ্যান্ড দ্য চকোলেট ফ্যাক্টরি’। দর্শক সারিতে সেদিন ছবিটি দেখছিল মেক্সিকান এক কিশোরী। ছবিটি শেষ হওয়া মাত্র বাড়ির দিকে ছুট লাগাল সে। এরই মধ্যে তার মনে বাসা বেধে ফেলেছে এক স্বপ্ন। অভিনেত্রী হতে হবে তাকে। তিনি নিজেকে দেওয়া কথা রেখেছিলেন। হয়েছিলেন বিশ্বের সেরা অভিনেত্রী। নাম তার সালমা হায়েক।

‘ডেসপারেডো’ ছবি দিয়ে সালমা হায়েক তার প্রথম ঝলক দেখান। ছবির নামটি সালমা হায়েকের ক্ষেত্রে বেশি মানানসই হয়। এরপর থেকে ডেসপারেডো গার্ল হিসেবে শুধু হলিউডের ছবিতে নয় সালমা হায়েক খ্যাতি পান বিশ্বজোড়া। মধ্যে অনেক দিন অভিনয় থেকে দূরে ছিলেন তিনি।

হলিউডের সর্বকালের সবচেয়ে আবেদনময়ী অভিনেত্রী হিসেবে ভাবা হয় তাকে। খোদ সালমা হায়েক নিজেই দাবি করেন বিষয়টি। তিনি মনে করেন, এখন তিনি অনেক বেশি আকর্ষণীয় এবং আবেদনময়ী হয়েছেন। ৫২ বছরের এ অভিনেত্রী বলেন, অল্প বয়সে তাকে মোটেই সুন্দরী লাগত না। বরং এই প্রাপ্ত বয়সে তার বডি শেপ আগের থেকে অনেক বেশি সঠিক ও সেক্সি হয়েছে।

এমনিতে স্বাস্থ্য নিয়ে খুব বেশি সচেতন নন তিনি। খাওয়া-দাওয়া, ওয়াইন পান সবই করেন। কোনো দিন শরীরচর্চার জন্য ব্যায়ামও করেননি। তবে ইদানীং যোগাসন করছেন বলে জানান এ অভিনেত্রী। সালমা বলেন, ‘এত দিন বডিলাইন সঠিক না হওয়ার কারণে ক্যারিয়ারে বেশ অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয়েছে তাকে। অন্য দক্ষ অভিনেত্রীদের ৩২, ৩৩ বছরেই ক্যারিয়ার শেষ হয়ে যায়। কিন্তু এই বাজারে এখনো সমানতালে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

অভিনয়ে সালমার হাতেখড়ি মাত্র ১৩ বছর বয়সে। সেই বয়সে অভিনয় করেন মেক্সিকান টেলিভিশন সিরিজ ‘তেরেসা’য়। ১৯৮৯ সালের এই টিভি ধারাবাহিক হায়েককে তারকা বানিয়ে দেয়। ১৯৯৫ সালে ‘দ্য অ্যালে অব মিরাকলস’ সিনেমাতে অভিনয় করেন তিনি। মেক্সিকোর চলচ্চিত্রের ইতিহাসে সব থেকে বেশি পুরস্কার জিতে নেয় সেই ছবি। সালমাও তার অভিনয় যোগ্যতা দিয়ে ‘এরিয়েল অ্যাওয়ার্ড’ (মেক্সিকান অ্যাকাডেমি অব ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড)-এর জন্য মনোনীত হন।

১৯৯১ সালে হায়েক হলিউডে পাড়ি জমান। ইংরেজিতে দুর্বল হলেও ‘ডেসপারেডো’ ছবিতে অভিনয়ের সুযোগ পেয়ে যান। এই ছবিটিই তাকে হলিউডে জনপ্রিয় করে তোলে। এরপর থেকেই একের পর এক ছবি করতে থাকেন তিনি। ‘দ্য ফ্যাকাল্টি’, ‘ওয়াইল্ড ওয়াইল্ড ওয়েস্ট’, ‘ফুলস রাশ ইন’, ‘ওয়ানস আপন আ টাইম ইন মেক্সিকো’, ‘আফটার দ্য সানসেট’ ও ‘ফ্রিদা’ সেগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য। ‘ফ্রিদা’ ছবিটি অস্কারে ছয়টি শাখায় মনোনীত হয়। এই ছবি দিয়েই সেরা অভিনেত্রী শাখায় মনোনয়ন পান সালমা হায়েক। তা ছাড়া তিনি পরিচালনা করেছেন ‘দ্য মালদোনাদো মিরাকল’ ছবিটি।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads