• সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
ads

হলিউড

মহানুভব জেনিফার লোপেজ

  • বিনোদন ডেস্ক
  • প্রকাশিত ০১ নভেম্বর ২০১৯

যুক্তরাষ্ট্রের এক শিক্ষক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষুধার্ত স্কুলশিক্ষার্থীদের একটি ভিডিও পোস্ট করেন। আর এই ভিডিওটি নজরে আসে হলিউডের বহুমাত্রিক অভিনেত্রী জেনিফার লোপেজের। সঙ্গে সঙ্গে সিদ্ধান্ত নেন তিনি নিজের কোম্পানি থেকে পাওয়া লাভের টাকা দিয়ে খাবার পাঠান সেই ক্ষুধার্ত স্কুলশিক্ষার্থীদের মাঝে। সেই খাবার পেয়ে আনন্দে আত্মহারা হয়ে ওঠে ওই স্কুলের শিক্ষার্থীরা।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, খাবার কে তাদের মাঝে পাঠালো, তখন সবার চোখে বিস্ময় ঝড়ে পড়ে। ফেসবুক লাইভে এসে সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন স্বয়ং জেনিফার লোপেজ। জেনিফার ফেসবুক লাইভের এই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করে বিষয়টি ভক্তদের সঙ্গে শেয়ারও করেছেন।

সংবাদমাধ্যমে জেনিফার বলেন, আমি জানতে পারলাম, ওই স্কুলের শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের খাবার দিয়ে সহযোগিতা করে থাকেন। কারণ সেখানে পর্যাপ্ত খাবার থাকে না শিক্ষার্থীদের জন্য। এটা শোনার পর আমার শুধু চোখে জল আসেনি, অ্যালেক্সেরও (জেনিফারেরর প্রেমিক) মন খারাপ হয়।

তিনি আরো জানান, এসব শুনে তারা সিদ্ধান্ত নেন, তাদের কোম্পানি টিলার অ্যান্ড হ্যাচ থেকে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যসম্মত খাবার পাঠাবেন। এরপর শুরু হয় তাদের বছরব্যাপী খাবার সরবরাহ কার্যক্রম। স্কুলের ক্ষুধার্ত শিক্ষার্থীদের কথা শুনে জেনিফার খুব কষ্ট পার। এর কারণ তিনি জানান, তার মাও যে স্কুলের শিক্ষক ছিলেন।

কোনো মাত্রায় তিনি সীমাবদ্ধ নন। তাকে বলা হয় বহুমাত্রিক। সর্বক্ষেত্রে তার অবাধ বিচরণ। ধারাবাহিকভাবে তিনি গায়িকা, নায়িকা, নৃত্যশিল্পী, প্রযোজক, টিভি চ্যানেলে রিয়েলিটি শোর বিচারক। এমনকি যুক্ত রয়েছেন বিভিন্ন ব্যবসা ও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে। যিনি এত মাধ্যমে সবসময় বিচরণ করেন তিনি আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে সবসময় থাকবেন এটাই স্বাভাবিক। এ তারকা নিজেই একটি ব্র্যান্ড। বলছি জেনিফার লোপেজের কথা। মানুষের বয়স বাড়লে তার ধৈর্যশক্তি কমতে থাকে। আর এ ধারণাটাকেই মিথ্যা প্রমাণিত করেছেন লোপেজ। কদিন আগেই পঞ্চাশে পা দিলেন এই তারকা। কিন্তু বয়স পঞ্চাশ হলেও যেন বিন্দুমাত্র কমেনি তার শারীরিক সৌন্দর্যের ঝলকানি। তার শারীরিক সৌন্দর্য এখনো আগের মতোই আলো ছড়াচ্ছে সবখানে। পঞ্চাশে পা রেখেও অষ্টাদশী বালিকার মতোই উদ্যম তার চলাফেরা। সম্প্রতি চতুর্থবার বিয়ে করে আবারো নতুনভাবে ব্যক্তিজীবন শুরু করেছেন।

এক বছর পর আবার নায়িকা হয়ে ফিরেছেন এই গায়িকা। মুক্তি পেয়েছে তার নতুন ছবি ‘দ্য হুইসটিয়ারস অ্যাটস্কোরস’। হিপ-হপ কমেডিনির্ভর এ ছবিতে ভিন্নধারা একটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন লোপেজ। ছবিটি প্রসঙ্গে লোপেজ বলেন, ‘অনেক ছবিতে অভিনয় করেছি। কিন্তু এ রকম গতানুগতিক ধারার বাইরের একটি চরিত্রে অভিনয় করে যে মজা পেয়েছি, তা অন্য কোনো ছবিতে পাইনি। আমার বিশ্বাস ভক্তরাও এমন চরিত্র দেখে মজা পাবে।’

এ ছাড়া আরো একটি কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয়ের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন তিনি। কলম্বিয়ার কুখ্যাত মাদকসম্রাজ্ঞী ব্ল্যাঙ্কোর জীবনী নিয়ে নির্মিত ‘দ্য গডমাদার’ শিরোনামের একটি ছবি। ছবিতে গডমাদারের ভূমিকায় দেখা যাবে তাকে। অভিনয়ের পাশাপাশি ছবিটি প্রযোজনাও করছেন তিনি। বস্ন্যাঙ্কোকে বলা হতো কোকেনের গডমাদার। দীর্ঘ চার দশকেরও বেশি সময় তিনি কলম্বিয়া থেকে যুক্তরাষ্ট্রের মায়ামি, নিউইয়র্ক আর ক্যালিফোর্নিয়ার মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করতেন। সত্তর ও আশির দশকে যুক্তরাষ্ট্রের মাদক বাণিজ্যে বিপ্লব ঘটান তিনি।

এমন চরিত্রে অভিনয় প্রসঙ্গে লোপেজ বলেন, ‘ব্ল্যাঙ্কোর জীবনের গল্প আমাকে অনেক কৌতূহলী করত। এমন রহস্যময় অন্ধকারাচ্ছন্ন জীবনকে বড়পর্দায় তুলে ধরার জন্য আমি মুখিয়ে আছি। এ ধরনের চরিত্রে অভিনয় করা যেকোনো অভিনয়শিল্পীর জীবনে স্বপ্ন সত্যি হওয়ার মতো ব্যাপার। আশা করছি, দারুণ কিছু হবে।’

সর্বগুণের অধিকারী হলেও জেনিফার লোপেজ নিজেকে একজন গায়িকা হিসেবেই পরিচয় দেন। কণ্ঠই তার মূল সম্পদ বলে মনে করেন তিনি। গানের মানুষ হয়েও অভিনয়ে বেশ সিরিয়াস জেনিফার লোপেজ হলিউড তারকা হিসেবে চমৎকার একটি অবস্থানে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। অবশ্য এর পেছনে তার একান্ত প্রচেষ্টা সবচেয়ে বেশি কাজ দিয়েছে। হলিউডে জেনিফার লোপেজ প্রথমত একজন গায়িকা, যিনি অভিনয়ে এসে সাফল্য পেয়েছেন।

আরও পড়ুন



বাংলাদেশের খবর
  • ads
  • ads